ঢাকা, সোমবার 2 April 2018, ১৯ চৈত্র ১৪২৪, ১৪ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আবারও সংঘাতের আশঙ্কা ইমাম রশিদির

মওলানা ইমদাদুল রশিদি

১ এপ্রিল, হিনন্দুস্তান টাইমস : শান্তি ও সম্প্রীতির পক্ষে মওলানা ইমদাদুল রশিদির অভাবনীয় ভূমিকার কারণে আপাতভাবে আসানসোলে উত্তেজনা নিরসন হলেও এখনও গুজবের মধ্য দিয়ে ছড়ানো হচ্ছে ঘৃণার বিষ। এইসব গুজবে আবারও সম্প্রীতির আসানসোলে হিংসার আগুন জ্বলে উঠতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন শহরের চেতলডাঙ্গা নদী তীরবর্তী এলাকার নুরানি মসজিদের ওই ইমাম। তাই আসানসোলবাসীকে তিনি গুজবে কান দিতে মানা করেছেন। অনুসারীদের নিয়ে মাঠে নেমেছেন গুজবের বিরুদ্ধে সচেতনতামূলক প্রচারণা চালাতে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের খবর থেকে এসব কথা জানা গেছে। সাম্প্রদায়িক ঘৃণার মারণাস্ত্রে খুন হওয়া ১৬ বছরের কিশোর পুত্রের শেষকৃত্যে প্রতিশোধের বিপরীতে মাওলানা রশিদি আহ্বান জানিয়েছেন জীবনের। বলেছেন, ‘কোনও প্রতিহিংসা নয়। প্রতিশোধ নিতে যদি কারোর মৃত্যু ঘটাও, তাহলে আমি এই শহর ছেড়ে চলে যাব। আমি তোমাদের সঙ্গে ৩০ বছর ধরে আছি, আমাকে যদি তোমরা ভালোবাসো তাহলে আর কাউকে যেন এভাবে মরতে না হয়।’ মওলানার এই তৎপরতায় আপাতভাবে শান্ত হয় আসানসোল। তবে তিনি মনে করছেন আবারও শহর অশান্ত হতে উঠতে পারে গুজবের কারণে। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে তিনি বলেছেন, ‘অনেক ভিত্তিহীন গুজব ছড়িয়ে পড়ছে- এই হয়েছে, ওই হয়েছে, এখানে আক্রমণ হয়েছে, ওই বাড়িটি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছেৃযখন আস্তে আস্তে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসছে, ঠিক তখন এমন সব ভুয়া কথায় উদ্বেগ ছড়িয়ে পড়ছে।’

সাম্প্রদায়িক ঘৃণার মারণাস্ত্রে খুন হওয়া ১৬ বছরের কিশোর পুত্রের শেষকৃত্যে প্রতিশোধের বিপরীতে মাওলানা রশিদি আহ্বান জানিয়েছেন জীবনের। বলেছেন, ‘কোনও প্রতিহিংসা নয়। প্রতিশোধ নিতে যদি কারোর মৃত্যু ঘটাও, তাহলে আমি এই শহর ছেড়ে চলে যাব। আমি তোমাদের সঙ্গে ৩০ বছর ধরে আছি, আমাকে যদি তোমরা ভালোবাসো তাহলে আর কাউকে যেন এভাবে মরতে না হয়।’ শনিবার নুরানি মসজিদের দ্বিতীয় তলার এক কক্ষে ইন্ডিয়ান একসপ্রেসকে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন তিনি। সে সময় তার সঙ্গে বিপুল সংখ্যক স্থানীয় মানুষ ছিল। মওলানা ইমদাদুল বলেছেন, ‘একজন ইমামের যা করার কথা, আমি কেবল সেই দায়িত্বটা পালন করছি। প্রতি ওয়াক্ত নামাজের আগে আামি মানুষজনের সঙ্গে কথা বলছি। তাদেরকে বলছি গুজবের বিরুদ্ধে প্রচারণা শুরু করতে। আমি তাদেরকে গুজবে কান দিতে মানা করেছি।  সবাইকে বলেছি, যদি নিজে ঘটনা না দেখে থাকেন, অথবা এ সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারেন, তাহলে ধরে নেন এটা নিশ্চিত একটা গুজব। 

এই বছরের এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল রশিদির নিহত ১৬ বছরের ছোট ছেলে সিবতুল্লাহর। সাম্প্রদায়িক উত্তেজনার মধ্যে গত মঙ্গলবার রেল লাইন এলাকা থেকে নিখোঁজ হওয়ার পর বুধবার রাতে পাওয়া যায় মরদেহ। বৃহস্পতিবার ছেলের মৃতদেহ শনাক্ত করেন রশিদি। ধারণা করা হচ্ছে সিবতুল্লাহকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ছেলের দাফন অনুষ্ঠানের পর ৩০ হাজার মানুষের এক জমায়েতে রশিদি বলেছিলেন, আমি শান্তি চাই। আমার ছেলেকে কেড়ে নেওয়া হয়েছে। আমি চাই না আর কোনও পরিবার তাদের প্রিয়জনকে হারাক। চাই না আর কোনও বাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হোক। যদি প্রতিশোধের কোনও ঘটনা ঘটে তাহলে আমি আসানসোল ছেড়ে চলে যাবো। যদি আমাকে আপনারা ভালোবেসে থাকেন তাহলে আপনারা আর আঙ্গুল তুলবেন না। শুক্রবার এবং শনিবার সবসময়ই কেউ না কেউ রশিদির সঙ্গে ছিলেন। কেউ শ্রদ্ধা জানাতে, কেউ সমবেদনা জানাতে আবার কেউ এসেছেন তাকে অভিনন্দিত করতে।

শনিবার পুলিশ জানিয়েছে, সিবতুল্লাহর মৃত্যুর সঙ্গে জড়িত সন্দেহে কয়েকজনকে আটক করেছেন তারা। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এক ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা টাইমস অব ইন্ডিয়াকে বলেছেন, সাম্প্রদায়িক সংঘাতের মামলাতেও কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে ছেলের মৃত্যুর পরেও শান্তির বার্তা ছড়ানোয় ইমাম রশিদির প্রশংসায় যুক্ত হয়েছেন ভারতের বিরোধী দল কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধী। ইমাম রশিদির সঙ্গে তিনি প্রশংসা করেছেন শান্তির বার্তা ছড়ানো আরেক সন্তানহারা পিতা ইয়াশপাল সাক্সেনারও। এক টুইটার পোস্টে তিনি লিখেছেন, এভাবে ভারতে ভালোবাসা চিরকাল ঘৃণাকে হারিয়ে দেবে। রাম নবমীর মিছিলকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট উত্তেজনায় গত মঙ্গলবার বিকেলে নিখোঁজ হন আসানসোলের নুরানি মসজিদের ইমাম ইমদাদুল রশিদির ছোট ছেলে সিবতুল্লা রশিদি। একদিন পর তার মরদেহ পাওয়া যায়। সাম্প্রদায়িক উত্তেজনার মধ্যে ইমাম রশিদি আসানসোলবাসীর উদ্দেশে বলেন, ‘কোনও প্রতিহিংসা নয়। প্রতিশোধ নিতে যদি কারোর মৃত্যু ঘটাও, তাহলে আমি এই শহর ছেড়ে চলে যাব। আমি তোমাদের সঙ্গে ৩০ বছর ধরে আছি, আমাকে যদি তোমরা ভালোবাসো তাহলে আর কাউকে যেন এভাবে মরতে না হয়।’

ওই মওলানাকে প্রশংসিত করে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী টুইটারে লিখেছেন, ‘সাম্প্রদায়িক ঘৃণায় সন্তান হারানোর পরও ইমাম রশিদি ও ইয়াশপাল সাক্সেনার বার্তা প্রমাণ করে ভারতে চিরকাল ভালোবাসা ঘৃণাকে হারিয়ে দেবে।’

এক নারীকে ভালোবাসায় তার পরিবারের সদস্যদের হাতে গত ১ ফেব্রুয়ারি নিহত হন ইয়াশপাল সাক্সেনার ছেলে অঙ্কিত সাক্সেনা। ভিন্ন সম্প্রদায়ের ওই নারীর পরিবারের হাতে একমাত্র সন্তান হারানোর পরও শান্তির ডাক দিয়েছিলেন ইয়াশপাল। পশ্চিমবঙ্গের সাম্প্রদায়িক উত্তেজনার জন্য অনেকেই ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপিকে দায়ী করছেন। সমালোচকরা দলটির কট্টর হিন্দু জাতীয়তাবাদী আদর্শের সমালোচনা করে থাকেন। রাহুল লিখেছেন, পারষ্পরিক ভ্রাতৃত্ববোধ ও সম্প্রতি বজায় রাখতে কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠা হয়েছিল। আমরা ঘৃণা ছড়ানো বিজেপি/আরএসএস-এর আদর্শকে বিজয়ী হতে দেবো না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ