ঢাকা, সোমবার 2 April 2018, ১৯ চৈত্র ১৪২৪, ১৪ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে কাঁচা ঘরবাড়ি ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি

নীলফামারী : সম্প্রতি এখানে ঝড় ও শিলাবৃষ্টি হয়

নীলফামারী সংবাদদাতা: নীলফামারীর ডোমার, ডিমলা, সৈয়দপুর ও জলঢাকা উপজেলায় সম্প্রতি শিলাবৃষ্টিতে ফসল ও ঘরবাড়ির ব্যাপক ক্ষতি হয়। এ ৪ টি উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের ৩ শতাধিক বসতবাড়ির টিনের ছাদ শিলার আঘাতে ফুটো হয়ে গেছে। শিলাবৃষ্টিতে ৩ জন আহত ে হয়েছেন। প্রায় ১০ মিনিট স্থায়ী শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নগুলোর হলো ডোমার উপজেলার কেতকীবাড়ী, গোমনাতী, ভোগডাবুড়ী, বামুনীয়া ও পাঙ্গা মটুকপুর এবং ডিমলা উপজেলার বালাপাড়া, পশ্চিম ছাতনাই, পূর্ব ছাতনাই, গয়াবাড়ী ও খড়াখড়িবাড়ী। অপরদিকে জলঢাকা উপজেলার মীরগঞ্জ, শিমুলবাড়ী ও গোলনা ইউনিয়নে এবং সৈয়দপুর উপজেলায় হালকা শিলাবৃষ্টি হয়েছে। কৃষি বিভাগ জানিয়েছে ভারী শিলাবৃষ্টির কারণে ভুট্টা, মরিচ, পেঁয়াজ ও বোরো আবাদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। মাঠ থেকে বাড়ি ফেরার পথে শিলার আঘাতে ডিমলার মিনা বেগম, রমজান আলী ও চিত্ররঞ্জন নামে ৩ জন আহত হয়েছে। আহতদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।
গাইবান্ধা
সাঘাটা উপজেলায় ঝড় ও শিলা বৃষ্টিতে টিনের ঘর-বাড়িসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। জুম্মার নামাযের সময় আকস্মিকভাবে উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে বয়ে আসা ঝড় ও শিলাবৃষ্টি শুরু হয়। শিলগুলোর ওজন প্রায় ৩শ’ গ্রাম।
প্রায় ৫০ বছরেও এত বড় শিল পড়তে দেখা যায়নি। শিলা বৃষ্টিতে উপজেলার বোনারপাড়া, পদুমশহর, জুমারবাড়ী, হলদিয়া, কামালেরপাড়া, ঘুড়িদহ, সাঘাটা, ভরতখালী, মুক্তিনগর, কচুয়া ইউনিয়নের সহস্রাধিক ঘরের টিনের চালা ছিদ্র হয়ে যায়। ব্যাপক ক্ষতি হয় উঠতি ফসল ইরি-বোরো, পাট, ভূট্টা, আমের গুটি, মরিচ, বেগুন, শাক-সবজিসহ বিভিন্ন জাতের ফসলের। এ ব্যাপারে পদুমশহর ইউনিয়নের সংরক্ষিত মহিলা সদস্যা আফরুজা বেগম জানান, চকদাতেয়াসহ পদুমশহর এলাকায় শিলা বৃষ্টিতে ইরি-বোরোসহ বিভিন্ন ফসল ও বসতবাড়ীর অনেক ক্ষতি হয়েছে। বোনারপাড়া ইউনিয়নের শিমুলতাইড় গ্রামের প্রবীণ কৃষক মজিবর রহমান জানান, ৪০-৫০ বছরেও আমি এত বড় শিল পড়তে দেখিনি।
ফুলবাড়ী (দিনাজপুর)
চিরিরবন্দর উপজেলায় শিলাবৃষ্টিসহ ঝড়ো-হাওয়া বয়ে যাওয়ায় জনজীবন থমকে যায়। এতে গাছে গাছে সদ্য আসা আম ও লিচুর গুটিসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষতির আশঙ্কা করছেন কৃষকরা। স্থানীয় লোকজন জানান, চৈত্র্য মাসের হঠাৎ এ বৃষ্টিতে বিপাকে পড়েন পথচারীরা। বৃষ্টির পাশাপাশি বয়ে যায় দমকা হাওয়া। প্রায় আধা-ঘণ্টাব্যাপী ধরে হওয়া বৃষ্টিতে কোথাও কোথাও শিলার স্তূপ জমে যায়।
হরিপুর (ঠাকুরগাঁও)
ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুওে গত শুক্রবার হঠাৎ করেই শিলাবৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টির পানির মতই অঝেড়ে পাথর পড়তে দেখা যায়। এতে কৃষকের কাটার উপযোগী গম ফসল, আমের মুকুলসহ এই মৌসুমের বিভিন্ন ফলের মুকুল এবং চলিত বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতিসাধন হওয়ার খবর পাওয়া গেেেছ। স্থানীয়রা জানান, উপজেলার গেদুরা ও আমগাঁও ইউনিয়নে শিলাবৃষ্টি প্রচুরহারে হয়েছে। তারা আরো জানান, উপজেলার বিভিন্ন সড়কের পথচারীরা ও মাঠের লোকজন পাথরের আঘাতে আহত হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ