ঢাকা, মঙ্গলবার 3 April 2018, ২০ চৈত্র ১৪২৪, ১৫ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

মির্জা ফখরুল শঙ্কামুক্ত

স্টাফ রিপোর্টার : সুস্থ হয়ে উঠায় গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে  করোনারি কেয়ার ইউনিট (সিসিইউ) থেকে কেবিনে স্থানান্তর করা হয়েছে। গতকাল সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টায় দিকে বিএনপি মহাসচিবকে কেবিনে আনা হয়েছে বলে জানান দলের ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন। তিনি বলেন, মহাসচিবের অবস্থা স্টেবেল। তিনি সুস্থ আছেন। তাকে কেবিন নিয়ে আসা হয়েছে। আশা করা যায়, মঙ্গলবার তিনি হাসপাতাল থেকে বাসায় যেতে পারবেন।
গতকাল সোমবার সকালে উত্তরার বাসায় বুকে ব্যথা বোধ করায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক মোমিন উজ্জামানের তত্ত্বাবধায়নে  তার চিকিৎসাধীন চলছে।
এদিকে মহাসচিবকে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, বরকতউল্লাহ বুলু, আবদুল আউয়াল মিন্টু, কেন্দ্রীয়  নেতা রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, শামা ওবায়েদ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ দেখতে আসেন। মহাসচিবের স্ত্রী রাহাত আরা বেগম ও মহাসচিবের ছোট ভাই মির্জা ফয়সল আমীন সার্বক্ষণিক হাসপাতালে বিএনপি মহাসচিবের পাশে রয়েছেন।
মির্জা ফখরুলের মা ফাতিমা আমিনও বার্ধক্যজনিত অসুস্থতায় বেশ কিছুদিন ধরে ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতালে ভর্তি আছেন। সোমবার তাকে দেখতে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নেয়ার সময় মির্জা ফখরুল নিজেই অসুস্থ বোধ করেন বলে বিএনপির একজন জ্যেষ্ঠ নেতা জানান। এছাড়া অফিসার্স ক্লাবে সাংবাদিকদের সাথে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ারও কথা ছিল তার।
২০১৬ সালে কারাগারে থাকা অবস্থায় মির্জা ফখরুলের ঘাড়ে ক্যারোটিড আর্টারিতে ব্লক ধরা পড়ে। পরে তিনি কয়েক দফা যুক্তরাষ্ট্র ও সিঙ্গাপুরে গিয়ে ওই অসুস্থতার চিকিৎসা নেন। বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া গত ৮ ফেব্রুয়ারি দুদকের একটি মামলায় কারাগারে যাওয়ার পর দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব যায় খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমানের হাতে। কিন্তু তিনি গত এক দশক ধরে লন্ডনে আছেন। এ পরিস্থিতিতে মির্জা ফখরুলই বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যদের নিয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে আসছেন। এছাড়া দলের সব কটি কর্মসূচিও চালিয়ে যাচ্ছিলেন। তিনি যেন দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠেন সেজন্য দল ও পরিবারের পক্ষ থেকে দেশবাসীর কাছে দোয়া কামনা করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ