ঢাকা, মঙ্গলবার 3 April 2018, ২০ চৈত্র ১৪২৪, ১৫ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

৪ সন্দেহ ভাজন আটক

রংপুর অফিস : রংপুরের এ্যডভোকেট রথিশ চন্দ্র ভৌমিক বাবু সোনা রহস্যজনক নিখোঁজের চারদিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ, র‌্যাব গোয়েন্দা সংস্থাসহ আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলো তাঁর কোন সন্ধান করতে পারেনি।  এদিকে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার একটি সূত্রে জানা গেছে এডভোকেট বাবুসোনার বাড়িতে খোঁজ করে তাঁর পাসর্পোট পাওয়া যাচ্ছেনা। বাবুসোনার নিখোঁজ ঘটনার ব্যাপারে পুলিশ সন্দেহ ভাজন হিসেবে ৪ জনকে আাটক করেছে বলে জানা গেছে। এরা হচ্ছে-মাহিগঞ্জ ডিমলার কানোনগোটোলা এলাকার আলম হোসেনের পুত্র দেলওয়ার হোসেন, হায়দার আলীর পুত্র রফিক মিয়া, আজহারুল ইমসলামের পুত্র বাহারুল ইসলাম এবং আব্দুস সালামের পুত্র জিয়ারুল ইসলাম। 
এদিকে এডভোকেট বাবুসোনাকে উদ্ধারের দাবিতে গতকাল সোমবারও রংপুর নগরীতে বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করেছে। রংপুর আইনজীবী সমিতি গতকাল সোমবার দ্বিতীয় দিনের মত দুপুর ১২টা পর্যন্ত কলম বিরতি  এবং বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেেেছ।  সমিতির সেক্রেটারি এবং জেলা জজ আদালতের পিপি এডভোকেট আব্দুল মালেক বলেছেন আমাদের সহকর্মী উদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত আমাদের কর্মসূিচ চলবে। প্রয়োজনে আরও বৃহত্তর কর্মসূচি দেয়া হবে। এদিকে একই দাবিতে রংপুর আইনজীবী সহকারী সমিতি অর্ধ দিবস কর্মবিরতী এবং বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে। 
এদিকে পুলিশসহ আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলো এডভোকেট বাবু সোনাকে উদ্ধারের ব্যাপারে জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন। বাবু সোনার রহস্যজনক নিখোঁজের ঘটনাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী ঘরনার বিভিন্ন রাজনৈতিক দল আঙ্গুলী হেলন করে যে সব অভিযোগ তুলেছেন সে সব বিষয়ও মাথায় নিয়ে কাজ করছে বিভিন্ন গোয়েন্দাসংস্থা, পুলিশ, র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সংশ্লিষ্ট সকল সদস্যগণ। বিশেষ করে জাপানি নাগরিক হোসি কোনিও হত্যা মামলা এবং গতমাসের ১৮ তারিখে রংপুরের চাঞ্চল্যকর মাজারের খাদেম রহমত আলী হত্যা মামলায় নব্য জেএমবির  কয়েকজন সদস্যের ফাঁসির রায়ের প্রতিক্রিয়ায় এঘটনার আশংকার ব্যাপারে পুলিশের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তার ভাষ্য হচ্ছে- জেএমবির জঙ্গী সদস্যদের কাজের ধরণ এবং বৈশিষ্ট হচ্ছে স্পটে হিট করা; কিডন্যাপ্ট করা নয়। তবে এঘটনায় জঙ্গী সংশ্লিষ্টতা আছে কিনা তা খাতিয়ে দেখা হ”চ্ছ।
এছাড়া জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল এটিএম আজহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের মামলায় এডভোকেট বাবুসোনার  সাক্ষ্য প্রদানের প্রতিক্রিয়ার অভিযোগ নিয়ে এমন ঘটনার বিষয়ে একজন পুলিশ কর্মকর্তার ভাষ্য হচ্ছে- ঐ মামলায় তাঁর চেয়েও শক্ত সাক্ষী বদরগঞ্জে রয়েছে। তাঁর উপর জামায়াতের সদস্যরা কোন প্রতিশোধ নেয়নি। অধিকন্তু বাবুসোনা ঐ মামলায় যে অভিযোগের বিষয়ে সাক্ষ্য প্রদান করেছেন আজহারুল ইসলামের রায়ে আদালত সে বিষয়টি আমলেই নেয়নি। তাই এ বিষয়টিও তাঁর সাক্ষ্য প্রদানের র্দীঘদিন পর এমন ঘটনার কারণ হতে পারেনা। তবে পুলিশের ঐ সূত্রমতে সাম্প্রতিক কালে মাহিগঞ্জ ডিমলা কালীবাড়ী রাজদেবত্তর সম্পত্তি উদ্ধারের ঘটনায় ঐ এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে বসবাসকারী শতাধিক পরিবারকে উচ্ছেদের ঘটনাসহ আরও কয়েকটি দেবত্তর সম্পত্তির বিষয়ে বেশকিছু হিন্দু এবং মুসলিম পরিবারের সাথেও তাঁর বিরোধ ছিল বলে জানা গেছে। এসব বিষয়ও তাঁরা খতিয়ে দেখছেন। এছাড়াও বাবু সোনা নিখোঁজ হয়েছেন না তাঁকে অপহরকরা হয়েছে নাকি তিনি সেচ্ছায় আত্মগোপন করছেন  পুলিশ এবং বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা সেসব বিষয়ও খতিয়ে দেখছেন। এর বাহিরেও তাঁরা বাবুসোনার পেশা এবং পারিবারিক সংশ্লিষ্ট সব বিষয় গুলো গভীর ভাবে ক্ষতিয়ে দেখছেন বলে তাঁরা জানান।
এদিকে গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০ টায় বাবুসোনার ফোন থেকে রংপুর রেল ষ্টেশন এলাকার যে ব্যক্তির সাথে সর্বশেষ তাঁর কথা হয়েছে। সে ব্যক্তিরও সন্ধান এখনও পাওয়া যায়নি বলে জানা গেছে।  বাবুসোনার সুস্থশরীরে উদ্ধারের দাবিতে গতকালও রংপুর নগরীতে বিভিন্ন সংগঠন মানববন্ধন, সমাবেশ এবং বিক্ষোভ প্রর্দশন করেছে। 
এডভোকেট বাবুসোনাকে উদ্ধারের দাবিতে গতকাল সোমববার রংপুর প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধনও সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট, সিপিবি,  বাংলাদেশ ক্ষাত্রীয় সমিতি রংপুর জেলা শাখা। এসময় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের মহানগর সেক্রেটারি তুষার কান্তি ম-ল, সিপিবির সভাপতি আফজালুর রহমান, মহানগর সভাপতি দেবদাস দেব দেবু, বাসদের জেলা সমন্বয়ক আব্দুল কুদ্দুস,  হিন্দু, বৌদ্ধ, খৃষ্টান ঐক্য পরিষদের জেলা সেক্রেটারি স্বপন রায়, বাংলাদেশ পূজা উদয়াপন পরিষদ রংপুর জেলা শাখার যুগ্ম সম্পাদক অলক নাথ প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ