ঢাকা, মঙ্গলবার 3 April 2018, ২০ চৈত্র ১৪২৪, ১৫ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কাশ্মীরে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২০ সর্বাত্মক বনধ-এ জনজীবন অচল

সন্দেহভাজন স্বাধীনতাকামীর দাফনে এক কাশ্মীরি নারী             -রয়টার্স

২ এপ্রিল, পার্সটুডে, জিও নিউজ : জম্মু-কাশ্মীরে সোপিয়ান ও অনন্তনাগের সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২০ জনে পৌঁছেছে। গত রোববার নিরাপত্তা বাহিনী ও গেরিলাদের মধ্যে পৃথক ৩ স্থানে বন্দুকযুদ্ধে ১৩ স্বাধীনতাকামী, ৪ বেসামরিক ব্যক্তি এবং নিরাপত্তা বাহিনীর ৩ সদস্য নিহত হয়েছেন।এছাড়া বিভন্নস্থানে সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০০ বেসামরিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। আহতেদের মধ্যে প্রচুর মানুষ বুলেট বিদ্ধ ও পেলেটগানের ছররা গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। কাশ্মিরে বেসামরিক ব্যক্তিদের হতাহতের প্রতিবাদে গতকাল সোমবার সাইয়্যেদ আলীশাহ গিলানী, মীরওয়াইজ ওমর ফারুক এবং মুহাম্মদ ইয়াসীন মালিকের সমন্বিত যৌথ প্রতিরোধ নেতৃত্বের আহ্বানে সর্বাত্মক বনধ পালিত হয়েছে। বনধের ফলে সেখানকার দোকানপাট, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ও গণপরিবহণ ব্যবস্থা বন্ধ রয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে সরকারি নির্দেশে সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়সহ সেখানকার সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে আজকের নির্ধারিত পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। শ্রীনগর জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে খানইয়ার, রায়নাওয়াড়ি, নৌহাট্টা, সাফাকদল, এম আর গঞ্জ, মৈসুমা ও ক্রালখুদ থানা এলাকায় ১৪৪ ধারা অনুসারে সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। কর্মকর্তারা বলছেন, যেকোনো অবাঞ্ছিত ঘটনা প্রতিরোধ করতে ওই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। গতকাল সোমবার সকালে জম্মু-কাশ্মির পুলিশের পক্ষ থেকে জে কে এল এফ চেয়ারম্যান মুহাম্মদ ইয়াসীন মালিককে আটক করা হয়েছে। সংগঠনটির এক মুখপাত্র বলেন, আজ ভোরে প্রচুর পুলিশ ইয়াসীন মালিকের মৈসুমাস্থিত  বাসায় এসে তাকে আটক করে নিয়ে যায়।

চুপ করাতে পারবে না ভারত

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহীদ খাকান আব্বাসি বলেছেন, গোলযোগপূর্ণ কাশ্মিরকে চুপ করাতে পারবে না ভারত। পাশাপাশি তিনি কাশ্মিরে সাম্প্রতিক সহিংসতায় জনজীবনের ক্ষয়ক্ষতির জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন এবং ভারতীয় বর্বরতার নিন্দা জানান।

আব্বাসি বলেন, ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরে যে সংগ্রাম চলছে তাকে কোনোভাবেই সন্ত্রাসবাদ বলা যাবে না। ভারত কাশ্মিরের মুখ বন্ধ করে দিতে পারবে না। একইসঙ্গে তিনি জাতিসংঘ মহাসচিবকে কাশ্মির বিষয়ক একজন দূত নিয়োগ করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ভারত অধিকৃত কাশ্মিরে জাতিসংঘ তদন্ত দলকে প্রবেশ করার অনুমতি দেয়া উচিত। এদিকে, পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী খাজা মুহাম্মাদ আসিফ এক টুইটার বার্তায় বলেছেন, “রক্তে ভেসে গেছে কাশ্মির, ছেলেরা খুন হচ্ছে আর কাশ্মিরিরা মৃতদেহ গুনছে এবং যুবকেরা কফিন বহন করছে।”

খাজা আসিফ তার ভাষায় আরো বলেন, ভারতের রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসবাদ কাশ্মিরি তরুণদের নিঃশেষ করে দেয়ার পর্যায়ে রয়েছে। তিনি বলেন, কাশ্মিরে ভারতীয় হত্যাকা- আন্তর্জাতিক বিবেকের জন্য কলংক-স্বরূপ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ