ঢাকা, বৃহস্পতিবার 5 April 2018, ২২ চৈত্র ১৪২৪, ১৭ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ইউটিউব সদর দফতরে গোলাগুলীতে হতাহত ৪

গোলাগুলির পর ইউটিউব কার্যালয় থেকে বেরিয়ে আসছেন কর্মচারীরা

৪ এপ্রিল, বিবিসি : ক্যালিফোর্নিয়ার সান ব্রুনোতে ইউটিউব সদর দপ্তরে গুলী চালিয়ে তিনজনকে আহত করার পর আত্মঘাতী হয়েছেন এক নারী। বিবিসির খবরে বলা হয়, আহতদের মধ্যে ৩৬ বছর বয়সী একজনের অবস্থা গুরুতর।

তিনি হামলাকারী ওই নারীর বয়ফ্রেন্ড বলে খবর দিয়েছে সিবিএস নিউজ। আহতদের মধ্যে ৩২ ও ২৭ বছর বয়সী দুই নারীও আছেন। গত মঙ্গলবার স্থানীয় সময় দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে গোলাগুলী শুরু হলে পুরো এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে, শুরু হয় ছুটোছুটি। এনবিসিরি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সন্দেহভাজন হামলাকারী দপ্তরটির বহিঃপ্রাঙ্গণ ও ডাইনিং এলাকায় এসে প্রায় লাঞ্চটাইম শুরুর সময় গুলী করতে শুরু করে।

সান ব্রুনোর পুলিশ প্রধান এড বারবেরিনি বলেন, স্থানীয় সময় ১২টা ৪৮ মিনিটে পুলিশ কর্মকর্তারা ওই দপ্তরটিতে গিয়ে ‘বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি’ দেখতে পান, বহু লোক তখন পালিয়ে যাচ্ছিল। তারা প্রথমে গুলীবিদ্ধ অবস্থায় একজনকে ইউটিউব সদর দপ্তরের সামনে পড়ে থাকতে দেখেন। এর কয়েক মিনিট পর অস্ত্রধারী এক নারীর লাশ পাওয়া যায়, যিনি আত্মঘাতী হয়েছেন বলে ধারণা হয়েছে পুলিশের।

পরে আরও দুজনকে গুলীবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয় বলে বারবেরিনি জানান। আত্মঘাতী ওই নারীই হামলাটি চালিয়েছেন বলে সন্দেহ পুলিশের। সে একটি পিস্তল নিয়ে হামলাটি চালিয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ, কিন্তু হামলার উদ্দেশ্য সম্পর্কে কিছু বলেনি তারা। ওই নারীর পরিচয় নিশ্চিত করা হচ্ছে। আহত তিন জনকে জাকারবার্গ সান ফ্রান্সিসকো জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ৩২ বছর বয়সী নারীর অবস্থা গুরুতর কিন্তু ২৭ বছর বয়সীর অবস্থা অনেকটা ভাল। পালাতে গিয়ে গোড়ালিতে আঘাত পাওয়া আরেক ব্যক্তিকেও হাসপাতালটিতে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বারবেরিনি। বিবিসি জানিয়েছে, ক্যালিফোর্নিয়ায় ইউটিউবের এই প্রধান কার্যালয়ে ১৭০০ লোক কাজ করেন। ইউটিউবের মালিকানা রয়েছে গুগলের হাতে। গুগল বলেছে, গোলাগুলীর ঘটনা নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে তারা। ইউটিউবের মুখপাত্র ক্রিস ডেল পুলিশের তৎপরতার প্রশংসা করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রে এ ধরনের গোলাগুলীর ঘটনার অধিকাংশই ঘটিয়েছেন পুরুষরা। এফবিআইয়ের এক প্রতিবেদনের তথ্যানুযায়ী, ২০০০-২০১৩ পর্যন্ত এ ধরনের ১৬০টি ঘটনার মধ্যে মাত্র ছয়টি ক্ষেত্রে গুলীবর্ষণকারী নারী ছিলেন। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ