ঢাকা, শুক্রবার 6 April 2018, ২৩ চৈত্র ১৪২৪, ১৮ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শিলা বৃষ্টিতে চাটমোহরে ৯ হাজার পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত ॥ ফল ফসলের ব্যাপক ক্ষতি

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) সংবাদদাতা: সম্প্রতি চাটমোহরের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে চাটমোহরের অন্তত ৯ হাজার পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পাবনার জেলা প্রশাসক বরাবর চাটমোহর উপজেলা প্রশাসন কতৃক প্রেরণকৃত ক্ষয় ক্ষতির বিবরণী থেকে এ তথ্য জানা গেছে। 

শনিবার ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা ও হাসপাতাল পরিদর্শন করেছেন পাবনা-৩ এলাকার এমপি আলহাজ¦ মোঃ মকবুল হোসেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার অসীম কুমার, চাটমোহর পৌরসভার মেয়র মির্জা রেজাউল করিম দুলাল প্রমুখ।

জানা গেছে, এ ঝড় ও শিলা বৃষ্টিতে আহতের সংখ্যা ক্রমশই বাড়তে থাকে। 

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত অন্তত তিনশ ব্যক্তি আহত হবার খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ৪১ জনকে চাটমোহর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। 

২৫ জন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে হাসপাতাল ত্যাগ করেন। ১৬ জন চিকিৎসাধীন আছেন। অনেকে নিজ এলাকায় প্রাথমিক চিকিৎসা নেন। চাটমোহর পৌর সদরের ১ হাজার ২শ, গুনাইগাছা ইউনিয়নে ১ হাজার ৫শ, হরিপুর ইউনিয়নে ৩ হাজার ৫শ, মূলগ্রাম ইউনয়নে ১ হাজার ২শ, মথুরাপুর ইউনিয়নে ১ হাজার ২শ, ডিবিগ্রাম ইউনিয়নে ৪০, বিলচলন ইউনিয়নে ৫শ’ ছাইকোলা ইউনিয়নে ২শ’ ৫০ ও নিমাইচড়া ইউনয়নের ১শ পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। 

চাটমোহরের এসকল এলাকার আম লিচুসহ মাঠের বিভিন্ন ফসল ক্ষতি গ্রস্ত হয়। 

অনেক ঘর বাড়ির জানালার কাঁচ, চাটমোহর উপজেলা পরিষদের জীপ গাড়ি, শিল্পকলা একাডেমীও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। হাজার হাজার ঘরের টিনের চালা শিলার আঘাতে ভেঙে যাওয়ায় সেগুলি মেরামতে শনিবার লোহা টিনের দোকানে উপচে পড়া ভীড় জমে। 

এলাকায় ঘর  মেরামত মিস্ত্রীর সংখ্যা কম হওয়ায় মিস্ত্রী সংকটে অধিকাংশ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ঘর মেরামত করতে পারছেন না।

এ ব্যাপারে চাটমোহর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার অসীম কুমার জানান, এ ব্যাপারে আমরা উপজেলা পরিষদে জরুরী সভা করেছি। 

ইতিমধ্যে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ট্যাগ অফিসারদের সমন্বয়ে কমিটি করে দেয়া হয়েছে। 

তারা রবিবার ১২ টার মধ্যে ক্ষয় ক্ষতির সঠিক পরিমান নির্ধারণ করবে। 

কৃষি অফিস ফসলের ক্ষয় ক্ষতির পরিমান নিরুপন করবে। শিক্ষা অফিস শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্ষয় ক্ষতির পরিমান নিরুপন করবে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীনদের জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে ৫ হাজার টাকা করে অনুদান দেয়া হবে। আপাতত কিছু কম্বল ও শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে। 

পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ