ঢাকা, শনিবার 7 April 2018, ২৪ চৈত্র ১৪২৪, ১৯ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শুধু বইয়ে বুঁদ হয়ে থাকলে চলবে না স্বপ্ন পূরণের পরিকল্পনা থাকতে হবে

আইআইইউসি’র ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠানে ভিসি প্রফেসর কে এম গোলাম মহিউদ্দিন

আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) এর ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর কে.এম গোলাম মহিউদ্দিন বলেছেন, শুধু বইয়ে বুঁদ হয়ে থাকলে চলবে না। স্বপ্ন পূরণের পরিকল্পনা থাকতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের বিশ্বনাগরিক হিসাবে গড়ে তোলে। রাতারাতি দক্ষতা অর্জিত হয় না, তবে অধ্যয়নের ধারাবহিকতা রক্ষা করতে পারলে দক্ষতা অর্জন করা সম্ভব।

বৃহস্পতিবার সকালে কুমিরাস্থ স্থায়ী ক্যাম্পাসে আইআইইউসি‘র স্টুডেন্ট এ্যাফেয়ার্স ডিভিশন (স্ট্যাড) আয়োজিত বসন্তকালীন সেমিস্টার-২০১৮-এর নবাগত ছাত্রদের ৪৬তম ব্যচের ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি‘র ভাইস চ্যান্সেলর এ অভিমত ব্যক্ত করেন। আইআইইউসি‘র ভারপ্রাপ্ত প্রোভিসি প্রফেসর ড. মোঃ দেলাওয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, আইআইইউসি’র প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও ফাইন্যান্স কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আহসান উল্লাহ।

শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, ট্রাস্ট সদস্য প্রিন্সিপাল আমীরুজ্জামান, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. আবদুল হামিদ চৌধুরী, বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মনিরুল ইসলাম, আইআইইউসি‘র রেজিস্ট্রার কর্ণেল মোহাম্মদ কাসেম পিএসসি (অবঃ) এবং স্বাগতঃ বক্তব্য রাখেন স্টুডেন্ট এ্যাফেয়ার্স ডিভিশনের পরিচালক আ. জ. ম. ওবায়েদুল্লাহ। ছাত্রদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন, সাইদুল আরেফিন মিরাজ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন স্ট্যাড এর অতিরিক্ত পরিচালক মোহাম্মদ মামুনুর রশীদ ও কবি চৌধুরী গোলাম মাওলা। মঞ্চে বিশিষ্ট জনদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আইআইইউসি ট্রাস্টের ট্রেজারার মুহাম্মদ নূরুল্লাহ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি’র ভিসি প্রফেসর কে. এম গোলাম মহিউদ্দিন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় হলো লেখাপড়ার জায়গা, রাজনীতিকে মুখ্য হিসাবে বিবেচনা ও চর্চা করা উচিত নয়। এই বিশ্ববিদ্যালয় রাজনীতিমুক্ত বলেই এখানে সেশনজট নেই। তিনি নবাগত ছাত্রদের উদ্দেশ্যে বলেন, কুরআন-হাদীসের আলোকে হলে আল্লাহর আনুগত্য করতে হবে, পিতা-মাতার নিয়ন্ত্রণের বাইরে গিয়ে কোনো সন্তান উন্নতি করতে পারেনি। শিক্ষকের প্রতি এবং মানবতার প্রতি দায়িত্ব পালনে সচেষ্ট হতে হবে। এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, আমরা শিক্ষার্থীদের শৃঙ্খলিত করতে চাই না, তবে আমরা শৃঙ্খলা বজায় রাখতে বদ্ধপরিকর।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি’র প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও ফাইন্যান্স কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আহসান উল্লাহ বলেন, মাছ পচে মাথা থেকে, জাতি পচে শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে। প্রচলিত শিক্ষা ব্যবস্থা হাজার হাজার শিক্ষিত দুর্নীতিবাজের জন্ম দিয়েছে, আর এই শিক্ষিত দুর্নীতিবাজরাই দেশকে নরকে পরিণত করেছে। এটা সোনার দেশ, এখানে সোনা ফলে। কিন্তু দুর্নীতি আমাদের কে পিছিয়ে দিয়েছে। দুর্নীতির জন্য ষোল কোটি মানুষ দায়ী নয়, প্রশাসনের এক শ্রেণী মানুষের সচেতনতার অভাবে দুর্নীতি পুরো দেশকে গ্রাস করছে। তিনি বলেন, জ্ঞানার্জন ও নিরাপত্তার জন্য আইআইইউসি একটা আদর্শ আশ্রয়স্থল। এটি যথার্থ অর্থেই একটি আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়। এখানে সত্তর জন পিএইচডিধারী শিক্ষক রয়েছে এবং দেশের বাইরে অধ্যয়নরতরা ফিরে আসার পর এই সংখ্যা শতাধিক হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। তেইশ বছরে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক অর্জন রয়েছে উল্লেখ করে অধ্যাপক আহসান উল্লাহ বলেন, তেতাল্লিশ একর জমিতে চল্লিশটা বিল্ডিংয়ে আইআইইউসি’র শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এমন কি এখানে বিশুদ্ধ পানির নিজস্ব প্ল্যান্ট রয়েছে। তিনি ছাত্রদের উদ্দেশ্যে আরও বলেন, ইহকালীন ও পরকালীন কল্যাণ নিশ্চিত করতে হবে, আত্মগঠনে ব্রতী হতে হবে।

ওরিয়েন্টেশনের আনুষ্ঠানিকতার পর বিভিন্ন বিভাগের কার্যক্রম নিয়ে আলোকপাত করেন, স্টুডেন্ট এ্যাফেয়ার্স ডিভিশনের পরিচালক আ. জ. ম. ওবায়েদুল্লাহ, সেন্টার ফর ইউনিভার্সিটি রিকোয়ারমেন্ট কোর্সেস এর পরিচালক ড. এ কে এম শাহেদ, এমডিপি’র কো-অর্ডিনেটর প্রফেসর ড. বি. এম মফিজুর রহমান, আইআইইউসি’র প্রক্টর ড. মোহাম্মদ কাওসার আহমেদ, ভারপ্রাপ্ত পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ জাহেদুর রহমান, টিএমডি’র ভারপ্রাপ্ত পরিচালক মহিউদ্দীন হোসাইন, ভারপ্রাপ্ত লাইব্রেরিয়ান মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম এবং স্টাফ ডেভলাপমেন্ট এন্ড স্টুডেন্ট ওয়লফেয়ার ডিভিশনের অতিরিক্ত পরিচালক মুহাম্মদ মাহফুজুর রহমান। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ