ঢাকা, সোমবার 9 April 2018, ২৬ চৈত্র ১৪২৪, ২১ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী বাঁশ শিল্প

আবু সাইদ বিশ্বাস: সাতক্ষীরা: গ্রাম বাংলার জনজীবন থেকে হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী বাঁশ শিল্প। গৃহে ব্যবহৃত প্লাস্টিক সামগ্রীর দাম তুলনা মূলক কম থাকায় বাঁশের তৈরি হস্ত শিল্পের পরিবর্তে মেশিনে তৈরি প্লাস্টি সামগ্রীর প্রতি আগ্রহ বাড়ছে গৃহিণীদের। ফলে সাতক্ষীরা গ্রাম বাংলা থেকে বাঁশ শিল্প অনেকটা বিলুপ্তির পথে। এ শিল্পের সাথে জড়িত অনেকেই বাপ-দাদার আমলের পেশা ত্যাগ করে পাড়ি জমিয়েছে অন্য পেশায়।

এক সময় সাতক্ষীরা জেলাতে প্রচুর বাঁশ হত। বাঁশের কদরও ছিল জেলা ব্যাপি। এমনকি সাতক্ষীরা থেকে ট্রাকে করে বাঁশ অন্য জেলাতে সরবরাহ করা হত। 

বর্তমানে,সাতক্ষীরা সদর কলারোয়া,তালা সহ বিভিন্ন এলাকাতে বাঁশ চাষ হচ্ছে। সবচেয়ে বেশি চাষ হচ্ছে তালাতে। পাণের বরজ করতে প্রচুর বাঁশের প্রয়োজন হয়। তাই বরজের কারণে এ অঞ্চলে বাঁশের চাহিদা অনেক বেশি।  এখানে প্রতি বছর নতুন নতুন বাশ ঝাড় তৈরি করা হচ্ছে। সমাজের একটু অবস্থা সম্পন্ন লোকেরা বাশ চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছে। কারণ বাঁশ রোপনের তিন বছর পর বাঁশ ব্যবহারের উপযুক্ত হয়। অনেকটা পুঁজি বিনিয়োগ করে রাখতে হয়।

পাটকেলঘাটার খলিষখালী ইউনিয়নের মঙ্গলানন্দকাটী গ্রামের মাষ্টার ইকরামুল কবির জানান,বাপ দাদার আমল থেকে তারা বাঁশ চাষ করে আসছে। বর্তমানে ২-৩ বিঘা জমিতে তিনি বাঁশ চাষ করছেন। বাশেঁর দাম ও ভাল পাচ্ছেন। একই  গ্রামের মোকাম শেখ তিনিও পৈত্রিক সূত্রে বাঁশ চাষ করে আসছেন। তালা উপজেলার এমন কোন গ্রাম নেই যেখানে বাঁশ চাষ হয় না। অন্য ফসলের চাইতে বাঁেশ টাকা বেশি বলে জানান অনেকে। 

গ্রামীণ জনপদে একসময় বাঁশঝাড় ছিল না এমনটা কল্পনাও করা যেতো না। যেখানে গ্রাম সেখানে বাঁশঝাড় এমনটিই ছিল স্বাভাবিক। বাড়ির পাশে বাঁশঝাড় এ যেন গ্রাম বাংলার চিরায়ত রূপ। বনাঞ্চলের বাইরেও এখন যেভাবে গ্রামীণ বৃক্ষরাজি উজাড় হচ্ছে তাতে হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী বাঁশ । এক সময় গ্রামীণ জনপদে বাংলার ঘরে ঘরে তৈরি হতো বাঁশের তৈরি হাজারো পণ্য সামগ্রী। অনেকে এ দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতো।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ