ঢাকা, সোমবার 9 April 2018, ২৬ চৈত্র ১৪২৪, ২১ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে-

শরীয়তপুর সংবাদদাতা: জাজিরায় প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে নিজের স্ত্রীকে কুপিয়ে জখম করার অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি জাজিরা পৌরসভার রাড়ীপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তবে এক পক্ষ অপর পক্ষকে দোষ চাপাচ্ছে। পুলিশ বলছেন জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে একটি মারামারির ঘটনা শুনে পুলিশ পাঠিয়ে ঘটনাস্থলে কাউকে পাওয়া যায়নি। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত জাজিরা থানায় কোন মামলা হয়নি।  

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী পুনাইখা জানান, শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার রাড়ীপাড়া গ্রামের আব্বাস আলী মাদবর ও প্রতিবেশী জামাল খানের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে জমিজমা ও মামলা সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে তাদের মাঝে মধ্যেই ঝগড়া বিবাদ হয়। 

বিষয়টি মিমাংসার জন্য কিছুদিন পূর্বে স্থানীয় মুরব্বীরা উভয় পক্ষকে নিয়ে দরবার করে জায়গা জমি মেপে উভয়কে বুঝিয়ে দেন। কিন্তু আব্বাস আলী মাদবর এ বিচারে সন্তুষ্ট ছিলেন না। তিনি পুনরায় জমি মেপে সীমানা নির্ধারণের আবেদন করেন। আচ শুক্রবার সকালে জামাল খান আব্বাস মাদবরের দাবী না মেনে বিরোধপুর্ন জায়গায় বেড়া দিতে গেলে উভয় পক্ষ আবারও বিবাদে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আব্বাস আলী মাদবরের স্ত্রী নুরজাহান বেগম গুরুতর জখম হন। 

তাকে উদ্ধার করে জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। জামাল খান ও তার পক্ষের লোকজন দাবি করেন, প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে আব্বাস আলী মাদবর তার স্ত্রী নুরজাহান বেগমকে কুপিয়ে জখম করেছে। আব্বাস আলী মাদবরের দাবি, বিরোধপূর্ন জায়গায় বেড়া দেয়ার প্রতিবাদ করায় জামাল খান ও হাশেম খানের ছেলেরা আব্বাস মাদবরের স্ত্রী নুরজাহানকে কুপিয়ে জখম করেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ