ঢাকা, সোমবার 9 April 2018, ২৬ চৈত্র ১৪২৪, ২১ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আমার চুয়াডাঙ্গা

আহাদ আলী মোল্লা

অনেক ঘোরা অনেক দেখা অনেক হলো জানা

কিন্তু কোথায় মন পড়ে রয় কোনখানে একটানা

আমার প্রিয় জন্মভূমি চুয়াডাঙ্গা জেলা

নানান রূপে বাতাস এসে মাঠে জমায় খেলা।

 

আমার কাছে আমার শহর সে যেন এক নগর

হাজার গুণে শোভা ছড়ায় হয়ে গোলাপ টগর

হরেক রকম ছবির বাহার হরেক রঙে আঁকা

মাঠের ছবি ঘাটের ছবি নদীর ছবি বাঁকা।

 

চড়ুই শালিক টিয়ে ঘুঘু দোয়েল শ্যামা ফিঙে

কোয়েল শালিক টুনটুনিরা নাচে গরুর শিঙে

নদীর জলে মাছ ধরে আর ডুব পাড়ে মাছরাঙ্গা,

কী মায়াময় কী মধুময় আমার চুয়াডাঙ্গা।

 

বিল বাঁওড়ে ভরা জেলা ফুল ফসলে ঘেরা

নদ-নদীরা বারো মাসই করছে চলাফেরা

ওই দেখো না হাওড় ও ঝিল দাঁড়িয়ে সারি সারি

দলকার বিল কাঁঠালি বিল ভৈরব ডাকমারী।

 

বর্ষা এলে প্রতি বছর ডাকে কাছাকাছি

রায়সা কুমার মাথাভাঙ্গা ভাটুই চাপাইগাছি

ডোবা পুকুর দিঘির জলে মাছরা বেড়ায় খেলে

মোটামুটি সুখেই আছে এই এলাকার জেলে।

 

আমার জেলার মাটি মানুষ সোনার মতো খাঁটি

মাঠে মাঠে ফসলে তাই বেজায় পরিপাটি

চাষির মুখে হাসির পাহাড় আলো ঝরে পড়ে

উন্নয়নের অবদানে এরাই প্রথম লড়ে।

 

বিপদ আপদ এলে সবাই পরস্পরে ভাই

গর্ব করি জন্ম নিয়ে এই চুয়াডাঙ্গায়।

একাত্তরে অনেক যুবক বাধায় হুলস্থূল

খালিদ আফাজ হাসান খোকন কাশেম রবিউল।

 

অস্ত্র হাতে যুদ্ধ করে দীর্ঘ ন’টা মাস

আনলো জিতে স্বাধীনতার স্বর্ণ ইতিহাস

সেই ইতিহাস বুকে ধরে একটা কথাই জানি

চুয়াডাঙ্গা দেশের প্রথম অস্থায়ী রাজধানী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ