ঢাকা, সোমবার 16 April 2018, ৩ বৈশাখ ১৪২৫, ২৮ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

এখনই উইন্ডিজ সফরের চিন্তা নয় --মুমিনুল

স্পোর্টস রিপোর্টার : জুলাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর করবে বাংলাদেশ। পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলবে দুই দল। এই সফরের আগ্রে জুনে আফগ্রানিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। কিন্তু ওয়ানডে সিরিজে যারা ডাক পাবেন না, তাদের জন্য ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের আগ্রে নেই কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ। ডাক না পাওয়া তালিকায় সম্ভবত সবার ওপরে থাকবে মুমিনুল হকের নাম! কারণ দীর্ঘদিন ধরেই ওয়ানডের জন্য বিবেচিত হচ্ছেন না মুমিনুল। তার ম্যাচ ঝালাইয়ের শেষ ভরসা চলতি বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগ্র (বিসিএল)। বিসিএলের শেষ দুই রাউন্ডে ইসলামী ব্যাংক ইস্ট জোনের হয়ে খেলবেন মুমিনুল। ঢাকা লিগ্রের আগ্রে বিসিএলে মুমিনুলই ছিলেন সর্বোচ্চ রান সংগ্র্রাহক। ৩ ম্যাচে করেছিলেন ৩৮২ রান। চতুর্থ রাউন্ডেও খেলতেন মুমিনুল। কিন্তু ওমরাহ পালনের জন্য ওই সময়টায় ছিলেন দেশের বাইরে। ওমরাহ পালন করে দেশে ফিরেছেন মুমিনুল। আজ তাকে দেখা যাবে বিসিএলের ম্যাচে। ইসলামী ব্যাংক ইস্ট জোনের হয়ে খেলবেন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট আসরে। শেষ দুই রাউন্ডে নিশ্চয়ই মুমিনুল ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের প্রস্তুতি সারতে চাইবেন? মুমিনুল জানালেন, এখনো ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর নিয়ে ভাবনার সময় আসেনি। তিনি বলেন,‘ওয়েস্ট ইন্ডিজে যাওয়ার আগ্রে এটাই হয়তো শেষ চার দিনের ম্যাচ। এরপর খেললেও খেলতে পারি। ওই মানসিকতা নিয়েই খেলার চেষ্টা করব, যেভাবে টেস্ট খেলি। তবে আপাতত বিসিএল নিয়েই ভাবছি। বিসিএল শেষ হলে হয়তো ওইটা (ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর) নিয়ে চিন্তা করব।’ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধ কন্ডিশন নিয়ে একেবারেই চিন্তিত নন মুমিনুল। কন্ডিশনকে পারফরম্যান্সের প্রতিবন্ধকতাও মনে করছেন না বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান, ‘আপনি যদি কন্ডিশন কঠিন মনে করেন, তাহলে কঠিন। আমার কাছে সময় আছে। আমরা এর আগ্রেই প্রস্তুত নিয়ে নিব। আশা করি ভালো কিছু হবে।’ বছরের শুরুতেই শ্রীলংকার বিপক্ষে দারুণ দুটি সেঞ্চুরি করেছিলেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। আবারো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরে মুমিনুল ফিরবেন চেনা রূপে, এমনটাই প্রত্যাশা ক্রিকেটপ্রেমীদের। তাইতো খুব মন দিয়ে বিসিএল খেলতে চান বাংলাদেশের ‘ টেস্ট স্পেশালিস্ট’। শিরোপার দৌড়ে টিকে আছে তাদের দল। দলকে চ্যাম্পিয়ন করানোই এখন একমাত্র লক্ষ্য মুমিনুলের। মুমিনুল বলেন,‘দলকে চ্যাম্পিয়ন করানোর চেষ্টা করব। একটা দল যখন চ্যাম্পিয়ন হবে, তখন দেখবেন যে তালিকায় তাদের ব্যাটসম্যানরাই ওপরে থাকবে। একজন ব্যাটসম্যান হিসেবে সব সময় ইচ্ছে থাকে কোনো আসরে বড় বড় স্কোর করার। অনেক বেশি রান করার ইচ্ছে আমারও আছে। সেই  চেষ্টাও করব। দল হিসেবে আমাদের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার খুব ভালো সম্ভাবনা আছে। আমাদের লক্ষ্য সেটাই। রান করতেই হবে, সর্বোচ্চ রানের তালিকাতে থাকতেই হবে- এমন ভাবনা নিয়ে আগ্রে মাঠে নামতেন মুমিনুল হক! হয়তো কখনো সফল হয়েছেন। আবার কখনো ব্যর্থতা সঙ্গী করেছেন। কিন্তু এমন ভাবনাটা যে ভুল ছিল, তা একটু দেরিতে হলেও বুঝলেন মুমিনুল। সময় নষ্ট হলেও ক্যারিয়ারের সাফল্যের সূর্য যখন মধ্যগ্রগ্রনে তখনই সঠিক পথে বাংলাদেশের ‘টেস্ট স্পেশালিষ্ট’। তাই নিজের ভুলগুলোকে এখন শুধরে নিচ্ছেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। এখন  ছোট্ট মুমিনুলের একটাই লক্ষ্য, দলের চাহিদা পূরণ। মুমিনুল বলেন, ‘আপনি যখনই সর্বোচ্চ রান করার চেষ্টা করবেন বা চিন্তা করবেন; তার মানে হলো আপনি নিজের জন্য চিন্তা করছেন। এভাবে আগ্রে চিন্তা করতাম, সেটা ভুল ছিল, এখন বুঝি। সুতরাং আমি ওভাবে চিন্তা করে আর কখনোই খেলব না।’ নিজেকে আরো পরিণত করতে মুমিনুল চিন্তা করছেন তুষার ইমরানের মতো করে। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে দশ হাজার রান করা তুষার কীভাবে খেলছেন, কীভাবে নিজেকে চার দিনের ম্যাচে মানিয়ে নিয়েছেন’ সেটা ফলো করছেন মুমিনুল। বাঁহাতি ব্যাটসম্যান বললেন সে কথাই। তিনি বলেন, ‘তার সফল হওয়ার পিছনে নির্দিষ্ট কিছু কারণ আছে। কারণটা হলো উনি চার দিনের খেলার ধরনটা বুঝে গ্রেছেন। কখন আক্রমণ করবেন, কখন রক্ষণাত্মক খেলবেন, তা উনি ভালো বোঝেন। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো উনি সেশন বাই সেশন চিন্তা করে খেলেন। এ জন্য মনে হয় উনি চার দিনের ম্যাচে খুব সফল। চার দিনের খেলার বিষয়টা উনি ধরে  ফেলেছেন, এ জন্য নিয়মিত রান করেন।’  বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগ্রের (বিসিএল) প্রথম তিন রাউন্ড শেষে সর্বোচ্চ রান সংগ্র্রাহক ছিলেন মুমিনুল হক। তবে চতুর্থ রাউন্ডের ম্যাচে জোড়া  সেঞ্চুরি করে তাকে ছাড়িয়ে গ্রেছেন বর্ষীয়ান ক্রিকেটার তুষার ইমরান। যদিও এ রাউন্ডে  খেলেননি মুমিনুল। তাই পঞ্চম রাউন্ডে শীর্ষস্থান ফিরে পাওয়ার লড়াইয়েই নামার কথা তার। তবে মুমিনুল বললেন ভিন্ন কথা।  তিনি বলেন‘না, এই জিনিসটা আমার মাথায় থাকবে না। আপনি যখনই সর্বোচ্চ রান করার চেষ্টা করবেন, চিন্তা করবেন, তার মানে হলো আপনি নিজের জন্য চিন্তা করছেন। এভাবে আগ্রে চিন্তা করতাম,  সেটা ভুল ছিলো, এখন বুঝি। সুতরাং আমি ওভাবে চিন্তা করে খেলবো না। দলকে চ্যাম্পিয়ন করানোর চেষ্টা করবো। একটা দল যখন চ্যাম্পিয়ন হবে, তখন দেখবেন যে তালিকায় তাদের ব্যাটসম্যানরাই উপরে থাকবে।’ সরাসরি সর্বোচ্চ রান করার লক্ষ্যে না নামলেও বড় স্কোর করার জন্যই মাঠে নামবেন মুমিনুল। তবে দলের শিরোপাই মূল লক্ষ্য বলে জানালেন তিনি, ‘একজন ব্যাটসম্যান হিসেবে তো সবসময় ইচ্ছে থাকে যে কোনো আসরে বড় বড় স্কোর করার। অনেক বেশি রান করার ইচ্ছে আমারও আছে। সেই চেষ্টাও করবো। তবে সবচেয়ে বড় ব্যাপার হলো, দল হিসেবে আমাদের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার খুব ভালো সম্ভাবনা আছে। দেখা যাক কি হয়।’ চার রাউন্ড শেষে দারুণ জমে উঠেছে বিসিএল। ৪১ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে বিসিবি উত্তরাঞ্চল। ২ পয়েন্ট কম নিয়ে তাদের পরেই আছে মুমিনুলের দল প্রাইম ব্যাংক পূর্বাঞ্চল। আর তাদের চেয়ে ১ পয়েন্ট কম নিয়ে তৃতীয় স্থানে অবস্থান করছে ইসলামী ব্যাংক দক্ষিণাঞ্চল। তালিকার তলানিতে থাকা ওয়াল্টন মধ্যাঞ্চলের সংগ্র্রহ ২৯ পয়েন্ট। এই টুর্নামেন্টটি ৬ রাউন্ডের।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ