ঢাকা, সোমবার 16 April 2018, ৩ বৈশাখ ১৪২৫, ২৮ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

টঙ্গীতে ট্রেন লাইনচ্যুত নিহত ৬ ॥ আহত ৪০

রোববার দুপুর ১২টায় টঙ্গীর নতুনবাজার এলাকায় ঢাকা-জয়দেবপুর রেললাইনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। গাজীপুরের টঙ্গী এলাকায় যাত্রাবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ার ঘটনায় নিহত হয়েছে চারজন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৩০ জন -সংগ্রাম

গাজী খলিলুর রহমান, টঙ্গী থেকে : টঙ্গীতে ১৬ ঘন্টার ব্যবধানে টঙ্গী রেলওয়ে জংশনের আউটার সিগনালের কাছে আবারো ট্রেন লাইনচ্যুতির ঘটনায় ৬ জন নিহত এবং ৪০ জন আহত হয়েছেন। গতকাল রোববার দুপুরে টঙ্গী রেলস্টেশনের কাছে বেলা ১২টার দিকে লাইন ক্রসিংয়ে দুর্ঘটনাটি ঘটে। দুর্ঘটনার পর ঢাকার সঙ্গে সারাদেশের ট্রেন যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। সাড়ে ৫ ঘন্টা পর বিকাল সাড়ে ৫টায় ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়। দুর্ঘটনা কবলিত ট্রেনটি জামালপুর থেকে ঢাকা যাচ্ছিল। ঘটনায় নিহতদের মধ্যে একজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তার নাম আবির হোসেন (৪৪), সে জামালপুর জেলার বাসিন্দা। ঢাকার বেগুনবাড়িতে তার বাসা। সে ঢাকায় কাজ করতো। শবে মেরাজ এবং পহেলা বৈশাখ পালন করে দেশের বাড়ি থেকে ঢাকায় ফিরছিল বলে তার ঘনিষ্ঠজনরা জানান। দুর্ঘটনায় নিহতদের লাশ দেখে বুঝা যাচ্ছিল না যে, কার লাশ কোনটি। তাদের চেনার কোন উপায় ছিল না। লাশগুলো দলিত-মথিত এবং ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। আহতদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় আলমগীর হোসেন (২৩), শরিফ (২৫), ইস্রাফিল হোসেন (১৩), বাদল মিয়া (৫৫),  হালিমা আক্তার (৩৩), মনির হোসেনকে (৩২) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও  সাজ্জাদ হোসেনকে (২৬) পঙ্গু হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। এছাড়া বিপ্লব হোসেন (২৫), শাহিন (১৮), ফিরোজ মিয়া (৩৫), লিয়াকত হোসেন (৪০), আব্দুর রাজ্জাক (৩৮), নজরুল ইসলাম (৬৫) ও আবু সাঈদকে (২৫) টঙ্গী  সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এবং ১২ জন আহত যাত্রীকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেয়া হয়েছে এবং অন্য আহতরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে। নিহতদের লাশ কমলাপুর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে রেলমন্ত্রী মজিবুল হক, গাজীপুর জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ন কবীর, গাজীপুর পুলিশ সুপার হারুন-অর-রশিদ এবং গাজীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল এবং জেলা আওয়ামী লীগের মহানগর সভাপতি আজমত উল্লা খান ঘটনাস্থলে ছুটে যান। ট্রেন দুর্ঘটনার তদন্তে ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

জামালপুর থেকে ছেড়ে আসা কমিউটার ট্রেনটি জামালপুর থেকে ঢাকার দিকে আসছিল। হতাহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে স্থানীয় হাসপাতালগুলো জানায়। হতাহতদের টঙ্গী হাসপাতাল ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসা জামালপুর কমিউটার ট্রেনটি দুপুর সোয়া ১২টার দিকে টঙ্গী রেলওয়ে জংশনের ২নম্বর লাইন দিয়ে ঢাকায় যাচ্ছিল। এসময় ট্রেনের ৫টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে যায়। বগিগুলো লাইন থেকে আছড়ে পরলে ওই বগিতে থাকা কয়েকজন যাত্রী ছিটকে নিচে রেল লাইনে পড়েন এবং ওই ট্রেনেই কাটা পড়ে চারজনের দেহ খন্ডবিখন্ড হয়ে যায়। এসময় ৪০ যাত্রী আহত হন। খবর পেয়ে টঙ্গী ফায়ার সার্ভিস, টঙ্গী থানা পুলিশ ও রেলপুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন এবং উদ্ধার কাজ শুরু করেন। বিকাল ৫টার দিকে লাইনচ্যুত হওয়া ট্রেনের বগিগুলোকে টেনে লাইনের ওপরে তোলা হয়। রেলওয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ প্রতিনিধিকে জানান, সন্ধ্যা নাগাদ ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হবে। রেলওয়ের কর্মীরা এঘটনায় ডিএসটিই, ডিটিও, ডিএমই ও ডিইএন-১ এর প্রধানদের নিয়ে ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। কমিটিকে আগামী ৩ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। এব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে টঙ্গী রেলওয়ের স্টেশন মাস্টার মো. হালিমুজ্জামান বলেন, কিভাবে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে তা তদন্তের পরে বলা যাবে।

রেল স্টেশন সূত্রে জানা গেছে, জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী জামালপুর কমিউটার ট্রেনটি টঙ্গীর নতুনবাজার এলাকায় রেল সিগনাল পার হওয়া মাত্রই পেছনের ৫টি বগি লাইনচ্যুত হয়। এতে ঘটনাস্থলেই ৪ জন মারা যান। এবিষয়ে টঙ্গী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, ট্রেন লাইনচ্যুতির ঘটনায় নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে। 

এব্যাপারে টঙ্গী সরকারি হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক  মো. পারভেজ হোসেন বলেন, ট্রেন লাইনচ্যুতির ঘটনায় আহত ২৬ জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে আনা হয়েছিল। এদের মধ্যে গুরুতর ৭জনকে ঢামেক ও পঙ্গু হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। ৭ জনকে এ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে এবং ১২জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। জিআরপি ওসি ইয়াসিন ফারুক জানান, ট্রেনটি ক্রসিংয়ের সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে। টঙ্গীর স্টেশন মাস্টার জানান, এ ঘটনায় উত্তরবঙ্গের সঙ্গে ঢাকার রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। জামালপুর কমিউটার ট্রেনের টিসি মাসুদ জানান, টঙ্গী স্টেশনে ট্রেনটি আসার পর ২ নম্বর লাইন দিয়ে ট্রেনটি ঢাকার দিকে যাচ্ছিল। এ সময়ে পিছনের কয়েকটি বগিতে প্রচন্ড ঝাকুনি অনুভব হয়। এর পরপরই  ২ নম্বর লাইন থেকে পেছনের কয়েকটি বগি ১ নম্বর লাইনে চলে যায় এবং বিকট শব্দে ট্রেনের বগিগুলো দুমরে মুচড়ে পড়ে যায়। যাত্রীরা ভয়ে আতঙ্কে চিৎকার করতে থাকে। আমি নিচে নেমে দেখি ৩/৪জন যাত্রী ট্রেনের নিচে কাটা পড়েছে এবং অনেক যাত্রী আহত হয়েছে। স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়। এ সময় আহত নিহতদের উদ্ধারে টঙ্গী ফায়ার সার্ভিসসহ এলাকার শত শত লোক এগিয়ে আসে। বিকাল পর্যন্ত শত শত মানুষ তাদের আত্মীয় স্বজনের খোঁজ নিতে দুর্ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন।

টঙ্গী ফায়ার সার্ভিসের মুখপত্র আতিকুর রহমান জানান, লাইন পরিবর্তনের সময় পেছন থেকে পাঁচটি বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। তখন আতঙ্কিত হয়ে ছাদ থেকে অনেকে লাফিয়ে পড়েন। ১৫ থেকে ২০ জনকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এদের মধ্যে দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এদিকে রেলওয়ের একটি সূত্র জানায়, টঙ্গী রেল স্টেশনে ট্রেনটি লাইন ক্রসিং করার সময় ভুল সিগনালিংয়ের কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটে থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। 

উল্লেখ করা যেতে পারে শনিবার রাত ৮টার দিকে ১নম্বর লাইনে তিতাস কমিউটার ট্রেনের ২টি বগি লাইনচ্যুত হয়। এর কিছুদিন পূর্বেও একই স্থানে দিনাজপুরগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেসের কয়েকটি বগি লাইনচ্যুতির ঘটনা ঘটে। 

টঙ্গী রেলওয়ে স্টেশন সূত্র জানিয়েছে, দুর্ঘটনার পর থেকে ঢাকার সঙ্গে উত্তরবঙ্গের সব ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল। বাংলাদেশ রেলওয়ে এক বার্তায় তাদের ফেসবুক পেইজে জানিয়েছেন, ‘সম্মানিত বন্ধুগণ, আপনাদের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, টঙ্গীতে ঢাকাগামী জামালপুর কমিউটার ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ায় ঢাকা-টঙ্গী-ঢাকা রেল যোগাযোগ সাময়িকভাবে বন্ধ আছে, সাময়িক অসুবিধার জন্য বাংলাদেশ রেলওয়ে আন্তরিকভাবে দুঃখিত।’ দুর্ঘটনার খবর পেয়ে রেল মন্ত্রী মজিবুল হক ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। 

উল্লেখ করা যেতে পারে, শনিবার রাত ৮টার দিকে টঙ্গী রেলওয়ে জংশনের কাছে একই স্থানে যাত্রীবাহী তিতাস এক্সপ্রেস ট্রেনের দু’টি বগি লাইনচ্যুত হওয়ার ঘটনায় ঢাকার সঙ্গে সারাদেশের ট্রেন চলাচল ৩ ঘন্টা বিঘ্ন ঘটে। ট্রেন লাইনচ্যুতির সময় আতঙ্কিত যাত্রীরা ট্রেন থেকে লাফালাফি করে নামতে গিয়ে ৫ যাত্রী আহত হন। তিতাস এক্সপ্রেস ট্রেনটি ঢাকা থেকে আখাউড়া যাচ্ছিল। টঙ্গীতে ট্রেন দুর্ঘটনার পর পর ঢাকা থেকে উদ্ধারকারী রিলিফ ট্রেন ঘটনাস্থলে পৌঁছে দুর্ঘটনায় কবলিত ট্রেনের বগি উদ্ধার এবং রেল লাইন মেরামত শুরু করে এবং রাত ১১টার দিকে সারাদেশের সঙ্গে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ