ঢাকা, সোমবার 16 April 2018, ৩ বৈশাখ ১৪২৫, ২৮ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

মিরসরাইয়ে বিস্তীর্ণ জমিতে চাষ হচ্ছে মুগ ডাল

মিরসরাই ইছাখালী ইউনিয়নের চরশরৎ এলাকার বিস্তীর্ণ জমিতে চাষ হচ্ছে মুগ ডাল -দৈনিক সংগ্রাম

মিরসরাই (চট্টগ্রাম)সংবাদদাতা : মিরসরাই উপজেলার বিস্তীর্ণ জমিতে মুগ ডাল চাষ করে লাভাবান হয়েছেন অনেক কৃষক। এক ফসলি জমির ফসল কাটার পর খালি পড়ে থাকে। সেই খালি জমিতে মুগ ডাল চাষ করা হয়। বর্তমানে প্রতি কেজি গোটা মুগ বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকায়। স্থানীয় বাজারগুলোতে ডালে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে বলে জানা গেছে। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর উপজেলার ১৬টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভায় ২ হাজার ৬০০ হেক্টর জমিতে মুগডাল চাষ করা হয়েছে। সবচেয়ে বেশি মুগ ডাল চাষ হয়েছে সাহেরখালী ইউনিয়নে। ওই ইউনিয়নে ৫৫০ হেক্টর জমিতে মুগ ডাল চাষ করা হয়েছে। তবে চলতি বছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কম মুগডাল চাষ হয়। লক্ষ্যমাত্রা অর্জন না করার কারণ হিসেবে কৃষি অফিস অতিবৃষ্টিকে দায়ি করছে। সম্প্রতি উপজেলার ইছাখালী ইউনিয়নের চরশরৎ এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, যে দিকে চোখ যায় চরের জমিগুলোতে শুধু মুগ ডাল। বাতাসে মুগডালের চারাগুলো দুলছে। কিছু গাছে ফলস এসেছে।
আর কিছু গাছ ফলনের অপেক্ষায় রয়েছে। কথা হয় স্থানীয় কৃষক নুর নবীর সাথে। তিনি জানান, চলতি বছর তিনি ৫ একর জমিতে মুগডাল চাষ করেছেন। এবছর ফলন ভালো হয়েছে। তবে অতিবৃষ্টির কারণে এখনো ১ একর জমিতে চাষ করতে পারেননি। ইতিমধ্যে কৃষকরা ফলন তুলতে শুরু করেছে। অনেকে স্থানীয় বাজারে গোটা মুগ বিক্রি করছে। স্থানীয়রা জানান, মুগডাল একটি লাভজনক শস্য। কম খরচে অধিক ফলন পাওয়া যায়। জমিতে তেমন সেচ দিতে হয় না। তবে মাঝে মাঝে আগাছা ছাটাই করতে হয়। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বুলবুল আহম্মদ জানান, অতিবৃষ্টির কারণে চলতি বছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কম মুগডাল চাষ হয়েছে। তবে স্থানীয় কৃষকরা ধীরে ধীরে ডাল চাষে আগ্রহী হচ্ছে। উপজেলার বিভিন্ন বাজারে ডালের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ