ঢাকা, সোমবার 16 April 2018, ৩ বৈশাখ ১৪২৫, ২৮ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে অত্যাধুনিক ‘ফ্যাব্রিকেশন ল্যাবরেটরি’ চালু

চট্টগ্রাম ব্যুরো : চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)-এ অত্যাধুনিক ‘ফ্যাব্রিকেশন ল্যাবরেটরি’ (ফ্যাব ল্যাব) চালু করা হয়েছে। দেশের ৮ম বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে HEQEP প্রজেক্টের আওতায় বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে প্রায় দুই কোটি (১.৮৯ কোটি) ব্যয়ে উক্ত ল্যাব তৈরি করা হয়েছে। ল্যাবটিতে থ্রি-ডি প্রিন্টার, সিএনসি মাইলিং মেশিন, পিসিবি মাইলিং মেশিন, লেজার কাটার ও ভিনীল কাটারসহ বিভিন্ন অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি সংযোজন করা হয়েছে। এর ফলে শিক্ষার্থীরা সহজেই বিভিন্ন পণ্য ও সেবা উৎপাদনে তাদের সৃজনশীল আইডিয়া ও ডিজাইনকে বাস্তবে রূপদানের সুযোগ পাবেন।
গত ১০ এপ্রিল (মঙ্গলবার) দুপুরে নতুন একাডেমিক ভবনে স্থাপিত উক্ত ল্যাবের উদ্বোধন করেন চুয়েটের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। এ উপলক্ষে কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের সেমিনার কক্ষে ‘Inception workshop on Fab Lab CUET : aims & opportunity’ শীর্ষক এক কর্মশালার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। ফ্যাব ল্যাবের সাব-প্রজেক্ট ম্যানেজার ও সিএসই বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মশিউল হকের সভাপতিত্বেকর্মশালায় রিসোর্স পারসন ছিলেন ঢাকা ফ্যাব ল্যাবের প্রতিষ্ঠাতা মোঃ তাওসিফ আনোয়ার। এতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ফ্যাব ল্যাবের ডেপুটি সাব-প্রজেক্ট ম্যানেজার ও ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ। সঞ্চালনায় ছিলেন ইলেক্ট্রনিক্সএন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোঃ আজাদ হোসাইন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, আমাদের শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল আইডিয়াগুলোকে বাস্তবে রূপ দেওয়ার জন্যই অত্যাধুনিক এই ফ্যাব ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এই ফ্যাব ল্যাবের মাধ্যমে শিল্পপ্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন পণ্য ও সেবার উৎপাদন প্রক্রিয়ার ধরণে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে। শিক্ষার্থীরা চাইলে এখানে বিভিন্ন সৃজনশীল আইডিয়া ও ডিজাইন সৃষ্টি করতে পারে নতুবা নিজেই একজন উদ্যোক্তা হয়ে উঠতে পারে। এই ল্যাবে শিক্ষার্থীরা যেটা চিন্তা করবে সেটাই বানাতে সক্ষম হবে। এছাড়া মোবাইল ল্যাব ও রোবটিক্স ল্যাব নামে আরো দুটি সময়োপযোগী ল্যাব তৈরির কাজ প্রায় শেষের দিকে। এসব ল্যাব চালু হলে শিক্ষার্থীরা এর সুফল পাবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ