ঢাকা, মঙ্গলবার 17 April 2018, ৪ বৈশাখ ১৪২৫, ২৯ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নিয়োগের দুইদিন পর মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টার পদত্যাগ

১৬ এপ্রিল, রয়টার্স : নিয়োগের মাত্র দুই দিন পরই পদত্যাগ করলেন মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের নতুন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা। বর্তমানে জাতিসংঘে মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালির জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা জন লার্নারকে গত শুক্রবার পেন্সের বিদেশ নীতি বিষয়ক উপদেষ্টা নিয়োগ দেওয়া হয়। তবে তার নিয়োগ নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অস্বস্তির খবর সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ হয়ে গেলে তিনি পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেন। হোয়াইট হাউসের এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা এ খবর জানিয়েছে।

ট্রাম্প দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই প্রশাসনের বিভিন্ন পদের কর্মকর্তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব বা ট্রাম্পের অপছন্দের কারণে অনেকেই পদত্যাগ করেছেন। কেউ কেউ বহিস্কারও হয়েছেন। কিন্তু এতদিন ভাইস প্রেসিডেন্টে পেন্স এসব বিতর্ক থেকে দূরে ছিলেন। এবার নিয়োগের মাত্র দুইদিনের মাথায় পদত্যাগ করলেন তার উপদেষ্টা। ভাইস প্রেসিডেন্ট দফতর থেকে শুক্রবার লার্নারকে পেন্সের বিদেশ নীতি বিষয়ক উপদেষ্টা নিয়োগের কথা ঘোষণা দেওয়া হয়। এরপর রবিবার আরেক ঘোষণায় জানানো হয়, লার্নার পদত্যাগ করেছেন।

আমেরিকান সম্মেলনে যোগ দিতে পেন্স ও তার দফতরের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা পেরুতে থাকাকালীন বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছিল। হোয়াইট হাউসের এক কর্মকর্তা বলেন, ট্রাম্পকে বলা হয়েছিল, লার্নার একজন ‘নেভার ট্রাম্পার’। ট্রাম্পবিরোধী রিপাবলিকানদের এই নামে ডাকা হয়ে থাকে। বিষয়টি শোনার পর থেকেই ট্রাম্প মর্মাহত ছিলেন। তবে পেন্স ফোনে ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি মীমাংসা করে ফেলেন। কিন্তু রবিবার এই ছোট্ট নাটকটি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ পেয়ে যায়। মার্কিন সংবাদমাধ্যম অ্যাক্সিয়োস জানায়, ট্রাম্প খবরটি শোনার পর তার চিফ অব স্টাফ জন কেলিকে ওই নিয়োগ বাতিল করার নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে পেন্স কেন তাকে বাছাই করেছে নিয়ে প্রশ্ন করারও নির্দেশ দেন ট্রাম্প। হোয়াইট হাউস কর্মকর্তা বলেন, ‘দ্বন্দ্ব নিরসন ও অভ্যন্তরীণ নাটক বন্ধ করতে’ লার্নার রবিবার রাতে পদত্যাগের ঘোষণা দেন। ভাইস প্রেসিডেন্ট পেন্সও এটাকে সেরা বিকল্প হিসেবে মনে করেছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ