ঢাকা, মঙ্গলবার 17 April 2018, ৪ বৈশাখ ১৪২৫, ২৯ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

মাদারীপুরে ইভটিজিংয়ে বাধা দেয়ায় ২ জনকে কুপিয়ে জখম

মাদারীপুর  সংবাদদাতা : মাদারীপুর শহরের পুলিশ সুপার কার্যালয়ের পূর্ব পাশে শকুনি লেকেরপাড়ে বৈশাখী মেলা প্রাঙ্গনে ভাগ্নিকে ইভটিজিং করার সময় প্রতিবাদ করায় মামা হামিম খান ( ২৯) ও শাহিন সরদার (২৬) নামে দুইজনকে  রোববার সকাল ১১টায় রামদা ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করেছে একদল বখাটে। এব্যাপারে গতকাল সোমবার সকালে মাদারীপুর সদর থানার একটি মামলা হয়েছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হামিম ও শাহিন সরদার বৈশাখী মেলা প্রাঙ্গনে একটি কসমেটিক্স এর দোকান নিয়ে বসায়।  মেলা চলাকালীন সময়ে রোববার সকালে হামিম খানের বোনের মেয়ে ও তার কয়েক বান্ধবী মেলার স্টল ঘুরে দেখার জন্য আসে। এসময় শহরের বাগেরপাড় এলাকার আলামিন হাওলাদারের ছেলে অন্তর হওলাদার ও অমিত হওলাদার এদের বন্ধু আশিক ও জুলহাস সহ কিছু বখাটে ছেলে হামিমের ভাগ্নীকে উদ্দেশ্য করে বাজে কথা বলে। এই বিষয়টা কসমেটিক্স দোকানে থেকে বের হয়ে হামিম  প্রতিবাদ করলে বখাটেরা তখন চলে যায়। ঘটনার পরে স্থানীয় কতিপয় সন্ত্রাসীদের নিয়ে পুনরায় মেলার মাঠে প্রবেশ করে হামিমকে অন্যলোক দিয়ে দোকান থেকে ডেকে  মেলার পাশে বসেই রামদা ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতারীভাবে কুপিয়ে গুরতর জখম করে। হামিমের চিৎকারে দোকানের সহযোগী শাহিন সরদার ও পাশের দোকানের লোকজন এগিয়ে আসলে বখাটেরা দোকানের সহযোগী শাহিনকেও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপ দেয়। আহত অবস্থায় তাদেরকে উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
হামিম এর বড় ভাই ও ইভটিজিং এ শিকার ছাত্রীর মামা রিপন খান বখাটে সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার ও বিচার দাবি করেছেন।
 দোকানের সহযোগী আহত শাহিন সরদার জানান, অপরিচিত এক লোক কথা বলার জন্য ডেকে দোকান থেকে হামিমকে  ডেকে  নেয়। কিন্তু কিছু বুঝে উঠার আগেই পরিকল্পিত ভাবে আসা বখাটে সন্ত্রাসী অন্তর, অমিত, আশিক, জুলহাস সহ ১০/১২জন রামদা ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হামিমকে গুরুতর জখম করে। আমি বাধা দিতে গেলে সন্ত্রাসীদের কোপ আমার হাতেও লাগে। ঘটনায় জড়িত সকল সন্ত্রাসী বখাটেদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি করেন তিনি।
মাদারীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি ) মো. কামরুল হাসান জানান, এব্যপারে  সোমবার সকালে একটি মামলা হয়েছে। আমরা তদন্ত সাপেক্ষে আসমীদের গ্রেফতার করবো।
পল্লী চিকিৎসককে কুপিয়ে জখম
আকুব আলী বেপারী (৫০) নামে এক পল্লী চিকিৎসককে কুপিয়ে জখম করেছে দুর্বৃত্তরা। রোববার রাত ১১টায়  রাস্তার পাশ থেকে আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে স্থানীয়রা। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে পরে তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে  প্রেরন করে কর্তব্যরত চিকিৎসক। আহত চিকিৎসক উপজেলার দ্বিতীয়খ- এলাকার মোজাফফরপুর গ্রামের আরব আলী বেপারীর ছেলে।
পুলিশ জানায়  উপজেলার দ্বিতীয়খ- এলাকার নদীরপার বাজারের পল্লী চিকিৎসক আকুব আলী বেপারী (৫০) রাত সাড়ে ১০টার পেশাগত কাজ শেষে  বাড়ি ফেরার পথে ধারালো অস্ত্র দিয়ে দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে জখম করে রাস্তার পাশে ফেলে রেখে যায়। এ সময় তার চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন এসে উদ্ধার করে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। তার গলাসহ শরীরের ৪টি স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।
শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাকির হোসেন মোল্যা জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ব্যাপারে তদন্ত এবং দোষীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ