ঢাকা, মঙ্গলবার 17 April 2018, ৪ বৈশাখ ১৪২৫, ২৯ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সৈয়দপুরের খাতামধুপুর ইউনিয়নে কাবিটা প্রকল্পে লুটপাট

সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা : নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নে কাজের বিনিময়ে টাকা (কাবিটা) প্রকল্পের কাজে ব্যাপক লুটপাটের খবর পাওয়া গেছে। পছন্দের ব্যক্তিদের নিয়ে প্রকল্প চেয়ারম্যান তথা প্রকল্প কমিটি গঠন করে নামমাত্র কাজ দেখিয়ে সম্পূর্ণ অর্থই তসরুপ করা হয়েছে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন।
সূত্রে জানা যায়, ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডে টন্নার মোড় হতে তালপুকুর পর্যন্ত রাস্তায় মাটি ভরাট প্রকল্পে চেয়ারম্যান করা হয় আবুল কালাম আজাদ স্বাধীনকে। কিন্তু ৫ লক্ষ টাকার এই কাজটি সৈয়দপুর শহরের কাজীপাড়ার গম পাইকার গনি ৪ লক্ষ টাকায় সম্পাদন করে। রাস্তার কাজে চরমভাবে ফাঁকি দেয়া হয়েছে অর্থাৎ কোন রকমে সামান্য পরিমান মাটি কেটে রাস্তায় দেয়া হয়েছে। আবার কোথাও কোথাও রাস্তার মাটি কেটেই উঁচু-নিচু সমান করা হয়েছে।
একইভাবে ২ নং ওয়ার্ডে খামাতপাড়া হতে গগন বাবুর বাড়ি পর্যন্ত রাস্তায় মাটি ভরাট প্রকল্পেও ইউপি সদস্য ওয়াদ আলী চৌধুরী প্রকল্প চেয়ারম্যান হলেও ইউপি চেয়ারম্যান নিজেই ঠিকাদারী কাজ করেন। ৪ লাখ টাকার এ প্রকল্পেও নাম মাত্র মাটি ভরাট করা হয় বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন।
এ ব্যাপারে ওয়ার্ড মেম্বার ওয়াদ আলী চৌধুরীর সাথে কথা হলে তিনি জানান, কাজ কত টাকার সেটা আমার মনে নেই। কাজ তদারকী করেছেন চেয়ারম্যান ও পিআইও অফিসের আব্দুল কাদের।
ইউপি চেয়ারম্যান জুয়েল চৌধুরী মুঠোফোনে জানান, কাজ দেখার পরই পিআইও বিল দিয়েছে। কাজে কোন রকম অনিয়ম হয়নি। আমার বিপক্ষ পার্টি বিষয়টি নিয়ে অহেতুক রাজনীতি করছেন।
সৈয়দপুর উপজেলার প্রকল্প কর্মকর্তা (পিআইও) মোফাখ্খারুল ইসলাম জানান, আব্দুল কাদের আমাদের অলিখিত স্টাফ। তিনি দীর্ঘদিন ধরে অফিসের কাজ করে রুটি-রুজি রোজগার করছেন। এসময় তাকে বের করে দিলে তার পেটে লাথি মারা হবে। তাই তাকে রাখা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, উপরোক্ত বিষয়ে আমি অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যাবো।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ