ঢাকা, মঙ্গলবার 17 April 2018, ৪ বৈশাখ ১৪২৫, ২৯ রজব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

হত্যা মামলার আসামী ধরতে অভিযান

দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) সংবাদদাতা: কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে গরু ব্যবসায়ী এনামুল কাজী হত্যা মামলার আসামী গ্রেপ্তারে দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যানের বাড়িতে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। সম্প্রতি উপজেলার আড়িয়া ইউনিয়নের ঘুগা গ্রামে উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আল মামুনের পৈত্রিক বাড়িতে এ অভিযান চালানো হয়। অপরদিকে হত্যাকান্ডের জের ধরে আসামীদের বাড়িতে আগুন জ্বালিয়ে সম্পদ ভষ্মিভূত করার ঘটনায় দৌলতপুর থানা পুলিশ মামলা না নিলে তারা আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। দৌলতপুর উপজেলার খলিশাকুন্ডি ইউনিয়নের মৌবাড়িয়া গ্রামের মসজিদ ও ঈদগাহর জায়গা ঘেরা নিয়ে নিয়ে আওয়ামীলীগ সমর্থিত স্থানীয় দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধের জের ধরে ২৩মার্চ রাতে মৌবাড়িয়া বাজারে এনামুল কাজীকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। হত্যাকান্ডের পর রাত ২টার দিকে পুলিশের উপস্থিতিতে আমিরুল ইসলামের বাড়িতে আগুন জ্বালিয়ে ব্যাপক ক্ষতি সাধন করা হয়। এ ঘটনায় দৌলতপুর থানায় ১১জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৫-৬ জনের নামে হত্যা মামলা দায়ের হলেও প্রতিপক্ষ আমিরুল ইসলামের বাড়িতে আগুন দেওয়ার ঘটনায় পুলিশ কোন মামলা নেয়নি বলে ক্ষতিগ্রস্তদের অভিযোগ। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে এ অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।  হত্যাকা-ের রাতে মামলার আসামী একই এলাকার ফারুক হোসেন, কালাম ও তার বাবা পলানকে গ্রেপ্তার করা হলেও অদ্যাবধি আর কোন আসামী গ্রেপ্তার হয়নি। এদিকে হত্যাকান্ডের ১০ দিন পর রোববার রাতে দৌলতপুর থানা পুলিশ উপজেলা চেয়ারম্যানের বাড়িতে আসামী ধরতে অভিযান চালালে চেয়ারম্যান ফিরোজ আল মামুনসহ এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তবে উপজেলা চেয়ারম্যানের বাড়িতে পুলিশের অভিযানে কোন আসামী পাওয়া যায়নি বলে অভিযানে থাকা দৌলতপুর থানার ওসি (তদন্ত) আজগর আলী জানিয়েছেন।  দৌলতপুর উপজেলা চেয়ারম্যানের বাড়িতে পুলিশের অভিযানের বিষয়ে মামলার তদন্তকারী অফিসার ও দৌলতপুর থানার ওসি (তদন্ত) আজগর আলী জানান, মৌবাড়িয়া গ্রামের এনামুল কাজী হত্যা মামলার ২নং আসামীসহ দু’জন আসামী উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আল মামুনের পৈত্রিক বাড়িতে অবস্থানের গোপন সংবাদ পেয়ে অভিযান চালানো হয়। তবে অসামীরা টের পেয়ে তারা পালিয়ে যায়। অভিযানে দৌলতপুর থানার ওসি শাহ দারা খানও উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ