ঢাকা, বুধবার 18 April 2018, ৫ বৈশাখ ১৪২৫, ১ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

মিরসরাইয়ে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় দুই নারী নিহত

মিরসরাই সংবাদদাতা : চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় দুই নারী নিহত হয়েছে। উপজেলার নিজামপুর পুলিশ ফাঁড়ির সামনে ও বড়তাকিয়ায় চক্ষু হাসপাতালের সামনে এই দুটি দুর্ঘটনা ঘটেছে।
গতকাল মঙ্গলবার  সকাল আটটার দিকে নিজামপুরের ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দ্রুতগতির কাভার্ডভ্যানের চাকায় পিষ্ট হয়ে সাজেদা বেগম (৪২) নামের এক পথচারী নিহত হয়েছেন। নিহত সাজেদা মধ্যম ওয়াহেদপুর এলাকার মালু বাড়ির আকতার  হোসেনের স্ত্রী।
নিজামপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল হাসেম দুর্ঘটনার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।
এদিকে, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের উপজেলার বড়তাকিয়া এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় আনুমানিক ৪২ বছরের অজ্ঞাত নারী নিহত হয়েছেন।
মঙ্গলবার  ভোরে  জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে  গেছে।
জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ  সোহেল সরকার বলেন, বড়তাকিয়া চক্ষু হাসপাতালের সামনে সড়কের মাঝখানে একটি মরদেহ পড়ে থাকার খবর  পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যাই।  সেখান থেকে তার ছিন্নভিন্ন মরদেহটি উদ্ধার করি। এখনো পরিচয় জানা যায়নি।এলাকার লোকজনের ধারণা ওই নারী মানসিক ভারসাম্যহীন বা ভবঘুরে।
শ্রমিক নিহত
চট্টগ্রামের মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলে পাইলিংয়ের কাজ করার সময় লোহার পাইপের আঘাতে মো. আকরাম হোসেন (১৯) নামের এক শ্রমিক নিহত হয়েছে। মঙ্গলবার (১৭ এপ্রিল) সকাল ১০টায় এই ঘটনা ঘটে। নিহত আকরাম ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দা থানার অনন্তপুর গ্রামের মো. হাকিম উদ্দিনের সন্তান। সে চট্টলা বোরিং কর্পোরেশনের অধীনে মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলে কাজ করতো। এই বিষয়ে চট্টলা বোরিং কর্পোরেশনের সুপারভাইজার মো. রবিউল আউয়াল বলেন, আকরাম তাদের কোম্পানীতে গত এক বৎসর ধরে কাজ করছিলেন। মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় ইকোনোমিক জোনে পাইলিংয়ের কাজ করার সময় দুর্ঘটনাবশত আকরামের গায়ে একটি লোহার পাইপের আঘাত লাগে। তাৎক্ষণিকভাবে তাকে আমরা ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে মিরসরাই সদরে মাতৃকা হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে। এখন আমরা আকরামের লাশ তার গ্রামের বাড়িতে পাঠানোর ব্যবস্থা করছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ