ঢাকা, বুধবার 18 April 2018, ৫ বৈশাখ ১৪২৫, ১ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

রূপসায় কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে অব্যাহতি

খুলনা অফিস : খুলনার রূপসা ডিগ্রী কলেজে গত ১১ এপ্রিল বুধবার এইচএসসি পরীক্ষা চলাকালে তুলকালাম কান্ড ঘটেছে। এ ঘটনায় কলেজের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ১১ এপ্রিল বোর্ডের পরীক্ষার সময়সূচি অনুযায়ী সকালে সমরবিদ্যা (তত্ত্বীয়) দ্বিতীয় পত্র, গার্হস্থ্য বিজ্ঞান দ্বিতীয় পত্র, গার্হস্থ্য অর্থনীতি (তত্ত্বীয়) দ্বিতীয় পত্র, প্রকৌশল অঙ্কন ও ওয়ার্কশপ প্রাকটিস (তত্ত্বীয়) ঐচ্ছিক-১, প্রকৌশল অঙ্কন ও ওয়ার্কশপ প্রাকটিস (তত্ত্বীয়) দ্বিতীয় পত্র, ঐচ্ছিক-২ এর পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। যথারীতি সকাল ১০টায় পরীক্ষা শুরু হলে উক্ত কেন্দ্রে দায়িত্বরত শিক্ষকরা গার্হস্থ্য বিজ্ঞান দ্বিতীয় পত্রের পরিবর্তে পরের দিন ১২ এপ্রিলের জীব বিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) প্রথম পত্রের প্রশ্নপত্র শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেন। পরীক্ষার ১৫/২০ মিনিট পর শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিষয়টি নিয়ে কানাকানি শুরু হয়। এক পর্যায়ে পরীক্ষা কেন্দ্রের কর্মকর্তারা বিষয়টি টের পেয়ে তাদের কাছ থেকে প্রশ্নপত্র নিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেন। কাকতালীয়ভাবে যশোর শিক্ষা বোর্ডের সচিব মোল্লা আমির হোসেনসহ বোর্ডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উক্ত কেন্দ্র পরিদর্শনে এসে বিষয়টি জানতে পারেন। সঙ্গে সঙ্গে উপজেলা পর্যায়ের পরীক্ষা কমিটির কর্মকর্তাদেরও বিষয়টি দৃষ্টি গোচর হয়। পরবর্তীতে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সরবরাহকৃত প্রশ্নপত্র ফিরিয়ে নেয়া হয় এবং পরবর্তী দিনের পরীক্ষার প্রশ্নপত্রও তাৎক্ষণিকভাবে সংশোধন করার জন্য বোর্ড কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেয়।
এ ব্যাপারে যশোর শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাধব চন্দ্র রুদ্র জানান, উক্ত কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফ ম আব্দুস সালাম ঐদিন দেরিতে কেন্দ্রে আসায় এবং ভুল প্রশ্নপত্র শিক্ষার্থীদের মাঝে সরবরাহ করার অপরাধে তাকে পরীক্ষার সকল দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। পরবর্তীতে উক্ত কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল মো. শহিদুল্লাহকে দায়িত্ব প্রদান করা হয়। দায়িত্বে অবহেলার বিষয়টি নিয়ে উপজেলা প্রশাসনসহ যশোর শিক্ষা বোর্ডের সকল কর্মকর্তাদের মধ্যে অসন্তোষ বিরাজ করছে।
কেসিসির রিটার্নিং অফিসারের জন্য গানম্যান: খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও খুলনা আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসার মো. ইউনুচ আলী গানম্যান পেয়েছেন। গতকাল সোমবার থেকে তিনি এ গানম্যান পান। আগামী ১৫ মে নির্বাচন সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত রিটার্নিং অফিসারের সাথে থাকবেন এই গানম্যান। কেএমপি কমিশনার মো. হুমায়ুন কবির বলেন, রিটার্নিং অফিসারের নিরাপত্তার স্বার্থে তাকে একজন গানম্যান দেয়া হয়েছে। সোমবার সকাল থেকেই অস্ত্রধারী একজন গানম্যান (পুলিশ কনস্টেবল) রিটার্নিং অফিসারের সাথে থাকছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ