ঢাকা, বৃহস্পতিবার 19 April 2018, ৬ বৈশাখ ১৪২৫, ২ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নতুন অধ্যায়ে কিউবা ক্ষমতা ছাড়ছেন রাউল

১৮ এপ্রিল, রয়টার্স : নতুন নেতৃত্ব ঠিক করতে দুদিনের এক অধিবেশনে বসেন কিউবান সাংসদরা, যার মধ্য দিয়ে চার দশকেরও বেশি সময় পর কমিউনিস্টশাসিত কিউবা বরণ করতে যাচ্ছে কাস্ত্রো পরিবারের বাইরে নতুন এক প্রেসিডেন্টকে।

হাভানার কনভেনশন সেন্টারে গতকাল বুধবার থেকে শুরু হওয়া এ অধিবেশনে বিভিন্ন এলাকা ও শ্রেণির ৬০৫ সাংসদ রাউল কাস্ত্রোর স্থলাভিষিক্ত নির্বাচনের পাশাপাশি নতুন ৩০ স্টেট কাউন্সিলরও ঠিক করবেন, আগামী দিনগুলোতে এ কাউন্সিলররাই দেশটির প্রতিনিধিত্ব করবেন। 

তুলনামূলকভাবে তরুণ এ নেতৃত্বকে রাউলের শুরু করা অর্থনৈতিক সংস্কার কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়াসহ প্রবৃদ্ধি বাড়ানো এবং ট্রাম্প প্রশাসনের নানামুখী হুমকি মোকাবেলা করতে হবে।

৮৬ বছর বয়সী রাউলের জায়গায় নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে দেশটির বর্তমান ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট মিগুয়েল দিয়াজ-কানেলের নামই ঘুরেফিরে আসছে। উদারপন্থি হিসেবে পরিচিত ৫৭ বছর বয়সী এ প্রকৌশলীর প্রযুক্তিতে ঝোঁক আছে; যার হাতে ক্ষমতা সপে দিয়ে নিশ্চিন্ত হতে চাইছেন কিউবা বিপ্লবের সময় সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়া গেরিলা প্রজন্ম।

 প্রেসিডেন্টের পদ ছাড়লেও ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টিতে কাস্ত্রো এবং ১৯৫৯ সালে হওয়া কিউবা বিপ্লবের শীর্ষস্থানীয় নেতৃত্বের প্রভাব আগের মতই বলবৎ থাকবে। ফিদেলের নেতৃত্বে ওই বিপ্লবেই মার্কিন মদতপুষ্ট একনায়ক বাতিস্তা ক্ষমতাচ্যুত হন।

এরপর থেকেই ক্ষমতায় ছিলেন ফিদেল কাস্ত্রো। ১৯৫৯ থেকে ১৯৭৬ পর্যন্ত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী। সংবিধানে প্রেসিডেন্টের হাতে একচ্ছত্র ক্ষমতা দেওয়ার পর ওই বছরই পদ বদলে রাষ্ট্রের শীর্ষ পদে বসেন এ কিংবদন্তি বিপ্লবী। তার হাত ধরেই দেশটি প্রবেশ করে সমাজতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থায়। শারিরীক অসুস্থতার কারণে এক দশক আগে ক্ষমতা ছেড়ে দেন ভাই রাউলের হাতে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ