ঢাকা, বৃহস্পতিবার 19 April 2018, ৬ বৈশাখ ১৪২৫, ২ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শিপ ব্রেকিং শিল্পকে দেশের স্বার্থে বাঁচিয়ে রাখতে হবে

বাংলাদেশ শিপ ব্রেকার্স এন্ড রিসাইক্লার্স এসোসিয়েশন (বিএসবিআরএ) এর উদ্যোগে জাহাজ পুনঃপ্রক্রিয়াজাতকরণ সেক্টরে শিশু শ্রম নিরসন ও অনুকাক্সিক্ষত দুর্ঘটনা রোধকল্পে উদ্বুদ্ধকরণ সভায় বক্তব্য রাখছেন এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট এমএ তাহের

চট্টগ্রাম ব্যুরো: বাংলাদেশ শিপ ব্রেকার্স এন্ড রিসাইক্লার্স এসোসিয়েশন (বিএসবিআরএ) এবং শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের উদ্যোগে জাহাজ পুন:প্রক্রিয়াজাতকরণ সেক্টরে শিশু শ্রম নিরসন ও অনাকাঙ্খিত দূর্ঘটনা রোধকল্পে উদ্ভুদ্ধকরণ সভা গত  ১৬ এপ্রিল দুপুর ১২টায় ভাটিয়ারীস্থ সিফাত কনভেনশন সেন্টারে বাংলাদেশ শিপ ব্রেকার্স এন্ড রিসাইক্লার্স এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট মো: আবু তাহেরের সভাপতিত্বে ও সহকারী সচিব মো: নাজমুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়।  
স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএসবিআরএ’র সচিব মো: সিদ্দীক। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপ মহাপরিদর্শক, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর মো: আবদুল হাই খান, বিএসবিআরএ’র ভাইস প্রেসিডেন্ট আমজাদ হোসেন চৌধুরী, শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ড শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি সফর আলী, ইয়ার্ড মালিক মাষ্টার আবুল কাশেম, ইপসার প্রকল্প পরিচালক মো: আলী শাহীন, সেইফটি অফিসারের পক্ষে বক্তব্য রাখেন সৈয়দ জামিল উদ্দিন, ইয়ার্ড ম্যানেজারের পক্ষে বক্তব্য রাখেন আজম মিয়া, সেইফটি এজেন্সীর পক্ষে নিরুজ বড়–য়া, সেইফটি অফিসার রণজিত কুমার নাথ, মো: জাহাঙ্গীর, শুভ্রত দত্ত প্রমুখ।
সভাপতির বক্তব্যে এম এ তাহের বলেন, শিপ ব্রেকিং শিল্পকে দেশের স্বার্থে বাঁচিয়ে রাখতে হবে। এশিল্প দেশের অর্থনীতিতে অগ্রণি ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। বর্তমান সময়ে আমরা এখানে শিশু শ্রম মুক্ত করেছি। স্বল্প সময়ের মধ্যে এখানে দূর্ঘটনা জিরোতে নিয়ে আসতে পারবো বলে আমাদের দৃঢ়বিশ্বাস।
ভাইস প্রেসিডেন্ট আমজাত হোসেন চৌধুরী বলেন, নানা রকম ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে আমরা ঠিকে আছি। এ শিল্প বিভিন্ন দেশের চেয়ে আমাদের দেশে নিরাপদে প্রক্রিয়াজাতকরণ করা হচ্ছে। বিদেশে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জল হচ্ছে। দূর্ঘটনা মুক্ত ইয়ার্ডে পরিণত করার জন্য তিনি শ্রমিকদেরকে প্রতিদিন দিকনির্দেশনা দেয়ার আহবান জানান।
উপ মহাপরিদর্শক, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর মো: আবদুল হাই খান বলেন, জাহাজ ভাঙ্গা শিল্পকে ঠিকিয়ে রাখতে হলে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ শ্রমিক তৈরী করতে হবে।
প্রতিটি ইয়ার্ডে সেইফটি কমিটি গঠন ও কার্যকর প্ল্যান নিয়ে শ্রমিকদের কাজের ধারণা দিতে হবে। যে কোন দূর্ঘটনা দ্রুত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে। তিনি আরো বলেন, সর্বোপরি শ্রমিকদের সচেতনতা বৃদ্ধি ও শিক্ষিত শ্রমিকদের কাজে লাগিয়ে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা জোরদার করতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ