ঢাকা, বৃহস্পতিবার 19 April 2018, ৬ বৈশাখ ১৪২৫, ২ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আমতলীতে ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব

আমতলী (বরগুনা) সংবাদদাতা: আমতলীতে ব্যাপক হারে ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। গত এক সপ্তাহে অন্তত দুই শতাধিক লোক ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৬১ জন রোগী আমতলী হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছে। হাসপাতালের আইভি স্যালাইন না থাকায় রোগীরা পড়েছে চরম সংকটে।
আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, গরমের তীব্রতা বাড়ার সাথে সাথে আমতলী ও তালতলী উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়নের বিভিন্ন প্রত্যন্ত অঞ্চলে সপ্তাহ খানেক ধরে ব্যাপক হারে ডায়রিয়া ছড়িয়ে পড়েছে এর মধ্যে বয়স্ক এবং শিশুরাই রয়েছে বেশী। অনেকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে না এসে  বিভিন্ন কমিউনিটি ক্লিনিক ও স্থানীয় গ্রাম্য ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। আমতলী ও তালতলী উপজেলায় ডায়রিয়া রোগী বাড়ার সাথে সাথে  আইভি স্যালাইন (ইন্টা ভেনাস) সংকট প্রকট আকার ধারন করেছে। ফলে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীরা চরা মূল্যে বাহির থেকে আইভি স্যালাইন কিনে চিকিৎসা করাচ্ছেন। আমতলী ও তালতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কোন আইভি স্যালাইন নেই বলে জানান ডাক্তারা। সোমবার সকালে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে  দেখা গেছে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ৪ জ ভর্তি হয়েছে। এর আগো ৭ এপ্রিল থেকে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত ৯ দিনে গড়ে অন্তত প্রতিদিন ৭ জন করে রোগী  হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। সোমবার সকালে ভর্তি হওয়া পাতাকাটা গ্রামের নূরমহম্মদ (৭০) জানান, সকাল থেকে পাতলা পায়খানা এবং বমি সমান ভাবে শুরু হওয়ায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি। তবে হাসপাতাল থেকে খাওয়ার স্যালাইন বাদে আর কোন ওষুধ দেওয়া হয় নাই। অন্যান্য সকল ওষুধ বাহির থেকে কিনে এনেছি। সকালে ভর্তি হওয়া আরেক রোগী আমতলী পৌরসভার বাসিন্দা মনির হোসেন  (৪৫) জানান, হাসপাতাল থেকে খাবার স্যালাইন ছাড়া আর কিছুই দেওয়া হয়নাই। বাহির থেকে আইভী স্যালাইন কিনে আনতে হয়েছে। একই কথা জানালেন হাসপাতালে ভর্তি হওয়া অন্যান্য রোগীরাও।
আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেস্কের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা: শাহাদাত হোসেন জানান, এই মুহুর্তে আমতলী হাসপাতালে কোন আইভি স্যালাইন নেই। মুখে খাওয়ার স্যালাইনের কোন সংকট নেই বলেও তিনি জানান।   তিনি আরো জানান, আইভী স্যালাইনের চাহিদা দেওয়া হয়েছে। ওষুধ পাওয়া গেলে  আশা করি এ সংকট থাকবে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ