ঢাকা, বৃহস্পতিবার 19 April 2018, ৬ বৈশাখ ১৪২৫, ২ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সীমানা প্রাচীর নির্মাণের প্রতিবাদে খামার কর্মকর্তা ঘেরাও

চৌগাছা (যশোর) সংবাদদাতা: খামারের সীমানা প্রাচীর নির্মাণকে কেন্দ্র করে দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ তুলা বীজ বর্ধন খামার যশোরের চৌগাছার জগদিশপুর তুলাবীজ বর্ধন খামার কর্মকর্তাকে অবরুদ্ধ করে রাখে একটি কলেজ, দুটি স্কুল ও একটি মাদ্রাসার শিক্ষার্থী এবং এলাকাবাসি। পরে স্থানীয় নেতৃবৃন্দ গিয়ে এলাকাবাসিকে আস্বস্ত করে তাকে উদ্ধার করেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জগদীশপুর তুলা খামারের প্রধান গেইট রয়েছে জগদিশপুর ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনের পাশ দিয়ে। অন্য পাশে স্বর্পরাজপুর বাজারের পার্শ্বেও একটি ছোট গেইট রয়েছে। একইভাবে মির্জাপুর গ্রামের দিক দিয়ে একটি গেইট রয়েছে। যেটি দিয়ে মির্জাপুর উত্তর, মির্জাপুর পশ্চিম, কান্দি ও আড় কান্দি গ্রামের স্কুলগামি শিক্ষার্থীরা খামারের মাঝের সড়ক দিয়ে স্বর্পরাজপুর বাজার পার্শ্ববর্তী স্বর্পরাজপুর দাখিল মাদ্রাসা, কান্দি আদর্শ কলেজ, কান্দি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও স্বর্পরাজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের যাতায়াত করেন।
এছাড়াও স্থানীয়রা স্বর্পরাজপুর ও কান্দি বাজারে যাতায়াতে ব্যাবহার করেন।
সম্প্রতি তুলাবীজ বর্ধন খামারের সীমানা প্রাচীর নির্মানের সময় স্বর্পরাজপুর বাজারের পাশের ছোট গেইট এবং মির্জাপুরের দিকের গেইটি বন্ধ করে দেয়ার চেষ্টা করেন খামার কর্মকর্তারা। এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে স্থানীয়রা তুলা উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী পরিচালক বরাবর গণস্বাক্ষর যুক্ত আবেদন করেন।
স্থানীয় সংসদ সদস্যও বিষয়টিতে সুপারিশ করেন। এরপরও বীজ বর্ধন খামার কর্মকর্তারা সীমানা প্রাচীর নির্মাণের সময় গেইট দুটি বন্ধ করে দিচ্ছিলেন। এনিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরে চলা উত্তেজনার এক পর্যায়ে সোমবার সকালে স্কুল ও কলেজগুলির এক দেড় হাজার শিক্ষার্থী এবং স্থানীয়রা তুলা বীজ বর্ধন খামার কর্মকর্তাদের কার্যালয়ে অবরুদ্ধ করে রাখেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ