ঢাকা, শুক্রবার 20 April 2018, ৭ বৈশাখ ১৪২৫, ৩ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কাল থেকে শুরু বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক ভলিবল 

স্পোর্টস রিপোর্টার : ২০১৬ সালে আয়োজিত বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক ভলিবল টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশ। দুই বছর পর আবারো শুরু হতে যাচ্ছে এই টুর্নামেন্ট। আগামীকাল থেকে মিরপুরস্থ শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে শুরু হবে বঙ্গবন্ধু এশিয়ান সিনিয়র মেনস সেন্ট্রাল জোন ভলিবল চ্যাম্পিয়নশিপ-২০১৮। এবারের এই আসরে ছয়টি দল অংশ নিবে। দলগুলো হল বাংলাদেশ, নেপাল, তুর্কমেনিস্তন, কিরগিজস্তন, মালদ্বীপ ও উজবেকিস্তন। ছয়টি দলকে দুই গ্রুপে বিভক্ত করা হয়েছে। ‘এ’ গ্রুপে রয়েছে বাংলাদেশ, মালদ্বীপ ও নেপাল। আর ‘বি’ গ্রুপে রয়েছে কিরগিজস্তন, তুর্কমেনিস্তন ও উজবেকিস্তন। ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে এই প্রতিযোগিতা। ২১ থেকে ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত হবে গ্রুপপর্বের খেলা। ২৫ এপ্রিল হবে দুটি সেমিফাইনাল। আর ২৭ এপ্রিল বিকেল ৩টায় হবে ফাইনাল। তার আগে সকাল সাড়ে দশটায় হবে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচ। টুর্নামেন্ট সম্পর্কে বিস্তরিত জানানোর জন্য রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে টুর্নামেন্ট পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ভলিবল দলের নতুন অধিনায়ক হরিষৎ বিশ্বাস শিরোপা অক্ষুন্ন রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। ভলিবলকে আরো এগিয়ে নেওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন সভাপতি আতিকুল ইসলাম। এ সময় অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক হরিষৎ বলেন, ‘অধিনায়ক হিসেবে এটা আমার প্রথম টুর্নামেন্ট। আগের আসরের আমরা চ্যাম্পিয়ন। শিরোপা ধরে রাখাটাই আমাদের লক্ষ্য। অবশ্য গেল আসরের চেয়ে এবার আমাদের দলটা আরো বেশি শক্তিশালী। অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ের পাশাপাশি তরুণ প্রতিভাবান খেলোয়াড়রাও রয়েছে দলে। খেলোয়াড় বাছাই শেষে অনেকদিন অনুশীলন করেছি। ইরানে ২১ দিনের প্রশিক্ষণ ক্যাম্প ও প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছি। আশা করছি আমরা আমাদের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখতে পারব।’ সভাপতি আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘ভলিবল এক সময়কার খুবই জনপ্রিয় খেলা। গ্রাম বাংলার খেলা। বাপ-দাদাদের খেলা। আমাদের রক্তের খেলা। এই ভলিবলকে যদি আমরা স্কুল-কলেজে ছড়িয়ে দিতে পারি তাহলে এক সময় আমাদের ভলিবলের হারানো ঐতিহ্য ফিরে আসতে পারে। এই টুর্নামেন্টকে সামনে রেখে আমরা ভলিবল দলকে ২১দিন ইরানে প্রশিক্ষণ ক্যাম্প করিয়েছি। সেখানে তারা ৮টি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছে। ইরান ভলিবলের র‌্যাঙ্কিংয়ে বিশ্বে ৬ নম্বর। গেল বছর যেসব দল খেলেছিল, তারা এবারও এসেছে। রানার্স-আপ হওয়া দলটিও এবার এসেছে। তারা গেল দুই বছর ধরে প্রস্তুতি নিয়েছে। তাদের জাতীয় দলই পাঠিয়েছে। নেপাল ভলিবলকে জাতীয় খেলা হিসেবে ঘোষণা করেছে। তারাও এসেছে। শিরোপা ধরে রাখাইটাই হবে আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জ। তবে আশা করব আমাদের ছেলেরা শিরোপা অক্ষুন্ন রাখবে। তাদের সেরাটা দিয়ে খেলবে। আপনারা যদি আমাদের পাশে থাকেন তাহলে ভলিবলকে ইনশাল্লাহ আরো অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যেতে পারব।’ এ ছাড়া বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের কোচ আলীপোর আলজির ও টুর্নামেন্ট কমিটির অন্যান্য সদস্যগণ। উদ্বোধনী দিনে একটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। বিকেল চারটায় উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও নেপাল। তার আগে বিকেল ৩টায় হবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল (এমপি)। বিশেষ অতিথি হিসেবে থাকবেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ড. বীরেন শিকদার (এমপি), বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন (এমপি), আলহাজ্ব ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ (এমপি), এফবিসিসিআই এর সভাপতি মো. শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব অ্যাডভোকেট সাইফুজ্জামান শেখর।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ