ঢাকা, শুক্রবার 20 April 2018, ৭ বৈশাখ ১৪২৫, ৩ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ভিয়েনার এক মসজিদের বিরুদ্ধে অস্ট্রিয়া সরকারের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি

ভিয়েনায় ইসলামী সেন্ট্রাল মসজিদ

১৯ এপ্রিল, বিবিসি : একদল শিশু তুর্কী পতাকা হাতে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের এক ঘটনা তুলে ধরেছিল অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনার এক মসজিদে। এ বিষয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে অস্ট্রিয়ার প্রধানমন্ত্রী সেবাস্টিয়ান কুর্য বলেছেন, মসজিদে যা ঘটেছে তার স্থান নেই অস্ট্রিয়ায়। এর বিরুদ্ধে সরকার ‘জিরো টলারেন্সের’ নীতি নেবে। পূর্ণ শক্তি দিয়ে সরকার এসবের মোকাবেলা করবে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় গ্যালিপলির লড়াইয়ের এক দিকে ছিল জার্মানি ও তৎকালীন অটোম্যান তুরস্ক আর অন্যদিকে মিত্র পক্ষ। সেখানে তীব্র লড়াই চলে বহুদিন ধরে। শেষ পর্যন্ত এই লড়াইয়ে মিত্র পক্ষের অগ্রযাত্রা থামিয়ে দিতে সক্ষম হয় অটোম্যান বাহিনী। এই বিজয় এখনো উদযাপন করা হয় তুরস্কে। এই ঘটনার মধ্য দিয়ে আধুনিক তুরস্কের ভিত্তি স্থাপিত হয়েছিল বলে মনে করা হয়। ঠিক এই ঘটনাটিকেই ভিয়েনার এক মসজিদে এক অনুষ্ঠানে ফুটিয়ে তুলেছিল একদল শিশু।

সেখানে তারা সামরিক ইউনিফর্ম পরে তুর্কী পতাকা হাতে মিছিল করে। এরপর যুদ্ধে গুলী খেয়ে মারা যাওয়ার ভান করে।

এই অনুষ্ঠানের ছবি এবং খবর প্রকাশিত হওয়ার পর ভীষণ ক্ষুব্ধ অস্ট্রিয়ার ডানপন্থী সরকার। চ্যান্সেলর সেবাস্টিয়ান কুর্য এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার হুমকি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, পূর্ণ শক্তি দিয়ে সরকার এসবের মোকাবেলা করবে। প্রয়োজনে অস্ট্রিয়ার আইন অনুযায়ী মসজিদটি বন্ধ পর্যন্ত করে দেয়া হতে পারে। ভিয়েনার যে মসজিদে এই ঘটনা ঘটেছে সেটি চালায় তুর্কী ইসলামিক কালচারাল এসোসিয়েশেন। এটির মূল দফতর জার্মানির কোলন শহরে।

সংস্থাটি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, এই অনুষ্ঠানের জন্য তারা দু:খিত। এটি তারা তদন্ত করে দেখছে। অন্যদিকে অস্ট্রিয়ার ইসলামিক এসোসিয়েশন বলেছে, এই কেলেংকারি অস্ট্রিয়ায় মুসলিমদের ভাবমূর্তির মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ