ঢাকা, শনিবার 21 April 2018, ৮ বৈশাখ ১৪২৫, ৪ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নতুন ধান ওঠার আগে কমছে না চালের দাম সবজির বাজারে অস্থিরতা চলছেই

স্টাফ রিপোর্টার : অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পাওয়া চালের দাম সহসাই কমছে না। তবে নতুন ধান উঠলে চালের দাম কমবে বলে আশা প্রকাশ করছেন ব্যবসায়ীরা। এদিকে সবজির বাজারে অস্থিরতা চলছেই। প্রতি সপ্তাহেই কোন না কোন সবজির দাম বাড়ছে। গত এক সপ্তাহে ঝিংগা, চিচিংগা ও বেগুনসহ কয়েকটি সবজির দাম বেড়েছে। সামনে সবজির দাম আরো বাড়বে বলে আশংকা করছে ব্যবসায়ীরা। অপরদিকে ব্রয়লার মুরগী ও দেশী রসুনের দামও কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে।
গতকাল শুক্রবার রাজধানীর মগবাজার ও সেগুন বাগিচা কাঁচা বাজারসহ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, গত সপ্তাহে যে বেগুন বিক্রি হয়েছে প্রকারভেদে ৫০-৫৫ টাকা, তা সপ্তাহে বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকা। কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ৪০-৫০ টাকা, পেঁপে ৩৫-৪০ টাকা, করলা ৪০-৫০ টাকা, শিম ৫০-৬০ টাকা, দেশি টমেটো ২৫ টাকা, গাজর ৪০ টাকা, শসা ৪০ টাকা, মূলা ৩০ টাকা, আলু ২০ টাকা, প্রতি পিস বাঁধাকপি ৩০ টাকা, প্রতি পিস ফুলকপি ৩৫ টাকা, বরবটি ৫০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫০ টাকা, পেঁয়াজ পাতা এক আঁটি ২০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া এক আঁটি লাল শাক ১৫ থেকে ২০ টাকা ও ধনিয়াপাতা ১০০ টাকা কেজি, কাঁচা কলা হালি ৩০ টাকা, লাউ প্রতিপিচ ৫০ টাকা, এছাড়া কচুর ছড়া ৩০ টাকা, লেবু হালি ৩৫-৪০ টাকা।
বিভিন্ন ধরনের শাকের আঁটি ২০ থেকে ২৫ টাকা এবং কেজি ২৫ থেকে ৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। প্রতি আঁটি মূলা শাক মিলছে ১০ ও ১৫ টাকায়, লাল শাক ১৫ ও ২০ টাকায়। আমদানি করা মসুরের ডাল কেজি প্রতি ১০০ টাকা এবং দেশি ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
সবজির দাম বৃদ্ধির বিষয়ে ব্যবসায়ীরা বলছে, শীতের সবজির মওসুম শেষ হয়ে গেছে। এখন সবজির দাম বাড়ছে। সামনে বৃষ্টি বাদল থাকবে। সে ক্ষেত্রে সবজির দাম আরো বাড়বে বলে তারা আশংকা প্রকাশ করেছে।
গত দু’সপ্তাহ ধরে বাড়ছে ব্রয়লার মুরগীর দাম। বর্তমানে ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৪০-১৪৫ টাকা কেজি দরে। অন্যদিকে ১৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে পাকিস্তানি লাল মুরগি। এ ছাড়া গরু ও খাসির গোশত আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে। গরুর গোশত ৪৮০-৫০০ টাকা এবং খাসির গোশত ৭৫০-৮০০ টাকা।
চালের বাজার ঘুরে দেখা যায় মোটা স্বর্ণা চাল আজকের বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৪৩ টাকায়। এছাড়া পাইজাম ৪৫ টাকা, মিনিকেট মানভেদে ৬০ থেকে ৬৫ টাকা এবং পোলাও চাল ৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
মসলার বাজারে কাঁচা মরিচ ৮০ টাকা, আদা ১০০ থেকে ১১০ টাকা, রসুন মানভেদে ৮০ থেকে ৯০ টাকা এবং দেশি পেঁয়াজ ৪০ টাকায় বেচাকেনা হতে দেখা যায়। অন্যদিকে ভারত থেকে আমদানিকৃত বড় পেঁয়াজ ৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
এদিকে মাছের বাজার অনেকটা স্থিতিশীল রয়েছে। পহেলা বৈশাখ চলে যাওয়ায় ইলিশের বাজারের উত্তাপ কমে এসেছে। তবে ইলিশ ধরা বন্ধ থাকায় এখনো কিছুটা উত্তাপ রয়েছে। বাজারে ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৫শ থেকে ১৪শ টাকা কেজি। আর আকার ভেদে প্রতি কেজি রুই মাছ ১৬০-২৫০ টাকা, সরপুঁটি ২৫০-৩৫০ টাকা, কাতলা ১৮০-২৯০ টাকা, তেলাপিয়া ১৩০-১৫০, শিং ৩০০-৪০০, সিলভার কার্প ২০০-২৫০, চাষের কৈ ২৫০-৩৫০, পাঙ্গাস ১৫০-২৫০, টেংরা ৬০০, মাগুর ৬০০-৮০০ টাকা ও প্রকার ভেদে চিংড়ি ৪০০-৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ