ঢাকা, বুধবার 25 April 2018, ১২ বৈশাখ ১৪২৫, ৮ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

জনগণই নির্ধারণ করবে কে ক্ষমতায় থাকবে -ওবায়দুল কাদের

স্টাফ রিপোর্টার : আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচন নিয়ে প্রতিবেশী  দেশ ভারতের হস্তক্ষেপ করার কিছু নেই। দেশের জনগণই নির্ধারণ করবে কে ক্ষমতায় থাকবে আর কে থাকবে না।
গতকাল মঙ্গলবার বিকালে দুই দিনের ভারত সফর শেষে দেশে ফিরে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন তিনি।
ওবায়দুল কাদের বলেন, আমরা একটি রাজনৈতিক দল। আমরা আজ আছি, কাল না-ও থাকতে পারি। আমাদের ক্ষমতার উৎস দেশের জনগণ। দেশের জনগণই নির্ধারণ করবে কে ক্ষমতায় থাকবে আর কে থাকবে না। এ বিষয়ে প্রতিবেশী দেশ ভারতের হস্তক্ষেপ করার কিছু নেই। আমরা আশাও করি না। এসব ব্যাপার আমরাই ঠিক করবো।
ওবায়দুল কাদের বলেছেন: কারও অনুগ্রহে নয়, বরং জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আগামীতে ক্ষমতায় আসতে চায় আওয়ামী লীগ।
তিনি বলেন, বিদেশী শক্তি আমাদের বন্ধু হতে পারে। কিন্ত নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করবে আমরা তা আশা করি না। আর ভারত অতীতেও আমাদের নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করেনি, এবারও করবে না। আমাদের সঙ্গে তাদের অনেক নেতার কথা হয়েছে। তাদের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা ও আলোচনা হয়েছে।
ওবায়দুল কাদের বলেন,ভারত অন্যতম বৃহৎ গণতন্ত্রের দেশ। তাদের একটা বিউটি রয়েছে। আমরা অনেক দেশকেই দেখেছি নির্বাচনের সময় তারা নিজস্ব এজেন্ডা বাস্তবায়নের চেষ্টা করে। কিন্ত ভারত কখনও এমন কিছু করেনি। আমাদের প্রত্যাশা, বন্ধু দেশ ভারত তাদের ঐতিহ্য ধরে রাখবে।
ক্ষমতায় কে থাকবে তা নির্ধারণ করবে জনগণ। কেউ ডিকটেট করুক তা চাই না। জানা মতে ভারত অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে না। ইলেকশন প্লান কি হবে তা আমরা ঠিক করব। পার্টি টু পার্টি সম্পর্ক শক্ত করতে এই সফর বলে জানান ওবায়দুল কাদের।
তিস্তা পানিবন্টন চুক্তি নিয়ে তিনি বলেন, আমরা ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে বলেছি, আপনারা দু’জন বছরের পর বছর ধরে ঝুলে থাকা সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়ন করেছেন। এর ফলে বাংলাদেশের মানুষের কাছে আপনার এবং আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গ্রহণযোগ্যতা অনেক বেড়েছে। আমরা আশা করবো তিস্তা চুক্তিও আপনাদের হাত ধরেই হবে।
উত্তরের জনপদে পানির জন্য হাহাকার এখন বাস্তবতা। বিষয়টি মোদিকে জানানো হয়েছে। মোদিকে বলেছি, এই কাজ করলে, দুই পিএম এর চলমান টার্মে হলে ট্রিমেন্ডাস গুড উইল সৃষ্টি হবে।
তিস্তার পানিবন্টন চুক্তি সম্পন্নের ব্যাপারে মোদি আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিদলকে আশ্বস্ত করেছে বলে জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। এসময় তারেক রহমানের নাগরিকত্ব ইস্যুতে প্রশ্ন করা হলে এড়িয়ে যান কাদের। তিনি বলেন: গত তিনদিন আমি দেশের বাইরে ছিলাম। তাই ভালো করে না জেনে এখনই কিছু বলতে পারবো না। আমাদের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এ বিষয়ে দলের অবস্থান পরিষ্কার করেছেন।
অল্প সময়ের জন্য সফরে গেলেও দলের একজনকে দায়িত্ব দিয়ে যাওয়া বাংলাদেশের রাজনীতির জন্য নজির বলে দাবি করেন কাদের।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ