ঢাকা, বুধবার 25 April 2018, ১২ বৈশাখ ১৪২৫, ৮ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বৃটিশ হোম অফিসের কথিত চিঠিতে মেজর ১৩ ভুল -বিএনপি

স্টাফ রিপোর্টার: তারেক রহমানের পাসপোর্ট জমা নিয়ে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বরাবর যে চিঠি দেখিয়েছেন তাতে ১৩ ভুল সনাক্ত করে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিএনপি। গতকাল মঙ্গলবার সকালে এক সাংবাদিক সম্মেলনে দলের  মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই প্রশ্ন তুলেন।
তিনি বলেন, বৃটিশ স্বরাষ্ট্র বিভাগের চিঠিটা নিশ্চয়ই আপনারা সবাই দেখেছেন। এই চিঠিতে ১৩টি বেশ মেজর ভুল পাওয়া গেছে। যা বৃটিশ গভমেন্টের পক্ষে এই ধরনের ভুল করা খুব অস্বাভাবিক। যেমন প্রথমেই লিখেছে, ডিপার্টমেন্টের নাম। লিখেছে ইমিগ্রেশন এন্ড এনফোর্সমেন্ট- হোম অফিস। এটির আসল নাম হচ্ছে ইমিগ্রেশন কমপ্রাইনস এন্ড এনফোর্সমেন্ট।  এই যে ৫৮ ঠিকানা যেটা দেয়া হয়েছে, তার পরে কমা নেই। তারপরে হানসস্রো মেডিসেক্স- ঠিকানা যেটা দেয়া হয়েছে এরপরও ফুলস্টপ নেই। বাংলাদেশ অ্যাম্বেসি। দি ইজ নট বাংলাদেশ অ্যাম্বেসি। হাইকমিশন অফ বাংলাদেশ। এটা মেজর ভুল। কমনওয়েথভুক্ত রাষ্ট্রের অফিসকে সবসময় হাই কমিশন বলা হয়।।
 কুইন্স গেট বানান ভুল। এরপরে আছে আর্ননেসারি বোল্ডবড়ি করে টেলিফোন নাম্বার ও ফ্যাক্স নাম্বারগুলোকে। যেটা আনকমন বৃটিশ চিঠির মধ্যে বিশেষ করে হোম ডিপার্টমেন্টের চিঠির মধ্যে এসব নাম্বার থাকে না। যে টাইপ ব্যবহার করা হয়েছে এই টাইপ সাধারণত এই ডিপার্টমেন্টের চিঠিতে ইউজ করা হয় না।
তিনি বলেন, এরপর নেক্সট পয়েন্ট যেটা ভেরি ইন্টারেস্টিং , উঊঅজ ঝওজঝ । এটা অবশ্যই হবে উঊঅজ ঝওজ।  চিঠির উপরে বলছে, ৪টা পাসপোর্টের কথা। তারেক রহমান, জায়েমা রহমান, জুবায়েদা রহমান ও মাইনুল ইসলাম। সেই জায়গায় লিখছে, প্লিজ ফাইন্ড ইন এনক্লোজ- ফোর পাসপোর্ট ফর ইউর রিটেনশন। কথাটা লক্ষ্য করবেন রিটেনশন বলা আছে।
চিঠির শেষ দিকে ভুলের কথা তুলে ধরে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এরপরে থ্যাংক ইউ‘র পরে কোনো ফুলস্টপ নেই। ণড়ঁৎং ঋধরঃযভঁষষু, ঋধরঃযভঁষষুদর  ঋ টা বড় হাতের। সেটা কখনো বৃটিশরা লেখবে না এবং যিনি সই করেছেন তার কোনো নাম নেই।
এই চিঠি নিয়ে যথেষ্ট রহস্য রয়েছে। অসংখ্য ভুলে ভরা রহস্যজনক এই চিঠি। এটা পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর ফেইসবুকে আছে। আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের আইনজীবী এটা সম্পর্কে ডিটেইলস জানতে চেয়েছেন। জানলে আমরা পরে আপনাদের জানাব।
মির্জা ফখরুল বলেন, দেশের জনগণ ক্ষোভের সাথে লক্ষ্য করেছে যে, তাদের কষ্টার্জিত বিপলু পরিমাণ অর্থ ব্যয় করে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে লন্ডনে সফরকারী বিশাল বহরের একমাত্র অর্জন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সংগ্রহ করা তারেক রহমানের ২০০৮ সালে ইস্যু করা পাসপোর্টের তিনটি পাতা এবং কি বিচিত্র এই সরকার। কি দুর্বল তাদের অপকৌশল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ