ঢাকা, বুধবার 25 April 2018, ১২ বৈশাখ ১৪২৫, ৮ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চলে গেল নড়ে ওঠা শিশুটি

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত ঘোষণার পর দাফনের আগে নড়ে ওঠা নবজাতককে শেষ পর্যন্ত বাঁচানো গেল না। ঢাকা শিশু হাসপাতালে সোমবার দিবাগত রাত দুইটার দিকে এই নবজাতক মারা যায়।
হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক মো. আবদুল আজিজ বলেন, এই নবজাতককে বাঁচানো যায়নি। সোমবার রাতে সে মারা গেছে। তার লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এর আগে সকাল সাড়ে সাতটার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শারমিন আক্তার (২৪) একটি মেয়ে শিশু প্রসব করেন। জন্মের পরই নবজাতকটিকে মৃত ঘোষণা করা হয়। আজিমপুর কবরস্থানে দাফনের জন্য গোসল করানোর সময় নবজাতকটি হঠাৎ নড়ে ওঠে। দুপুরের দিকে নবজাতকটিকে ঢাকা শিশু হাসপাতালে নেওয়া হয়। তাকে হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) রাখা হয়।
হাসপাতালের সিসিইউর দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী অধ্যাপক আবদুল্লাহ আল মামুন সোমবার জানিয়েছিলেন, নবজাতকটির অবস্থা খুব খারাপ। তার হৃদ্যন্ত্র সচল আছে। অবস্থা সম্পর্কে নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না। তবে তাকে বাঁচাতে সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে।
আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, নবজাতকটির ওজন ছিল মাত্র ৯০০ গ্রাম। সম্ভবত সাত মাসে তার জন্ম হয়েছিল। অস্ত্রোপচার ছাড়াই তার জন্ম হয়। নবজাতকের মা শারমিন আক্তার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। নবজাতকটির বাবা মিনহাজ উদ্দিন। তিনি একটি পোশাক কারখানায় কাজ করেন। স্ত্রীসহ তিনি ধামরাইতে থাকেন।
দুপুরে হাসপাতালের পরিচালক আবদুল আজিজ সাংবাদিকদের বলেন, শিশু হাসপাতালে শিশুটির চিকিৎসার কোনো ঘাটতি ছিল না। তবে যে অবস্থায় শিশুটিকে হাসপাতালে আনা হয়েছে, সেখান থেকে শিশুটির ফিরে আসা কঠিন ছিল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ