ঢাকা, বুধবার 25 April 2018, ১২ বৈশাখ ১৪২৫, ৮ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চট্টগ্রামে ঐতিহ্যবাহী জব্বারের বলী খেলা আজ 

নুরুল আমিন মিন্টু, চট্টগ্রাম ব্যুরো : চট্টগ্রামের লালদিঘী ময়দানের আজ (বুধবার) অনুষ্ঠিত হবে ঐতিহ্যবাহী জব্বারের বলী খেলা। এরই মধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে আয়োজকরা। বলী খেলাকে ঘিরে শুরু হয়েছে তিনদিনব্যাপী বৈশাখী মেলা। বৃটিশবিরোধী আন্দোলনে যুবকদের সংগঠিত করতেই ১৯০৯ সালে চট্টগ্রামে শুরু হয় ঐতিহ্যবাহি আবদুল জব্বার স্মৃতি বলী খেলা ও বৈশাখী মেলার আয়োজন। এরপর থেকে প্রতি বৈশাখে লালদীঘি মাঠে নিয়মিত হয়ে আসছে এই আয়োজন। এরই অংশ হিসেবে এবার বসছে বলীখেলার ১০৯ তম আসর। ইতিমধ্যে ৭০ থেকে ৮০ জন খেলায় অংশ গ্রহণের জন্য নাম লিপিবদ্ধ করেছে । আয়োজকরা জানিয়েছেন, শতাধিক বলী এবরাও অংশ গ্রহণ করবে। গেলো বছরও ঐতিহ্যবাহি জব্বারের বলী খেলার ১০৮ তম আসরের কক্সবাজার, টেকনাফ, রামু চকরিয়া এবং পার্বত্য অঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন জেলার শতাধিক খেলোয়াড় অংশ নেন। ১০৮ তম আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল রামুর দিদার বলী। এর আগে ১০৭তম আসরে জব্বারের বলী খেলার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার লড়াইয়ে দিদার বলী ও টেকনাফের শামছু বলী কেউ কাউকে নির্ধারিত সময়ে হারাতে না পারায় সিলেকশন পদ্ধতিতে হেরে যায় দিদার। ১৫ বার অংশ নিয়ে ১৩ বারই চ্যাম্পিয়ন হয় দিদার। উনিশ শতকের গোড়ায় এ খেলার সূচনা করেন ব্যবসায়ী আব্দুল জব্বার সওদাগর। চট্টগ্রামের বদরপাতি এলাকার ব্যবসায়ী আব্দুল জাব্বার এ বলি খেলার আয়োজন করায় তার নামেই এই বলীখেলার নামকরণ হয়ে যায়। 

বলীখেলাকে ঘিরে দেড় বর্গকিলোমিটার জুড়ে বৈশাখি মেলা : চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহি জব্বারের বলীখেলাকে ঘিরে এরিমধ্যে লালদীঘি ও আশপাশের কয়েক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে বসেছে বৈশাখী মেলা। যাতে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মৃৎশিল্পসহ রকমারি সব জিনিসপত্র নিয়ে দোকান বসিয়েছেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। প্রতিবছর ১২ বৈশাখ নানা রঙে রঙিন হয়ে বৈশাখ হাজির হয় চট্টগ্রামের লালদীঘি মাঠে। মেলার সময়সীমা শেষ হলেও প্রতিবছরই মেলার পণ্য বিকিকিনি চলে বাড়তি দুই একদিন।

চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক ইলিয়াস হোসেন জানান, দেশের কুটির শিল্পকে টিকিয়ে রাখার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে এ মেলা।  জব্বারের বলী খেলার আয়োজক কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর জহরলাল হাজারী জানান, বলি খেলার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ