ঢাকা, বুধবার 25 April 2018, ১২ বৈশাখ ১৪২৫, ৮ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সরকারের বড় বাঁধেও ফাটল ধরেছে

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে জিয়া নাগরিক সংসদের উদ্যোগে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুস্থতা কামনায় আয়োজিত দোয়া ও আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, জনগণের ওপর আস্থা হারিয়ে সরকার গুম, খুন আর দূর্নীতির ওপর নির্ভরশীলতা বাড়িয়েছে। জনগণের প্রতিবাদ আর প্রতিরোধের মুখে সরকার এখন ফেক নিউজে (মিথ্যা সংবাদ) নির্ভরশীলতা বাড়াচ্ছে। সরকারের বিভ্রান্তিকর সব মিথ্যাচার জনগণ জেনে গেছে। গণজোয়ারে সব বাঁধ ভেঙ্গে যাচ্ছে। কোনো বাঁধই টিকছে না। বড় বাঁধেও ফাটল ধরেছে। এ জন্য সরকার দিশেহারা হয়ে পড়েছে। গণতন্ত্র অবরুদ্ধ রেখে এদেশে কোনো নির্বাচন হতে দেয়া হবে না।
গতকাল দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে জিয়া নাগরিক সংসদ আয়োজিত ‘সমসাময়িক রাজনীতি ও আজকের প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সংগঠনের সভাপতি মাইন উদ্দীন মজুমদারের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি ওয়াহেদুল হক জোয়ার্দ্দারের পরিচালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদীন ফারুক, ওয়াদুদ ভূঁইয়া, এনডিপি মহাসচিব মঞ্জুর হোসেন ঈসা প্রমুখ।
আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, দলের ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহানকে দুদকে তলব করা হয়েছে। দুর্নীতি করে আওয়ামী লীগ, আর তলব করে বিএনপিকে। দেশে এক দলীয় দূর্নীতি চলছে। সেটার জন্য আমি একটি কথা বারবার বলি কেউ ইচ্ছে করলেই দুর্নীতি করতে পারবেন না। দুর্নীতি করতে চাইলেও আওয়ামী লীগ করতে হবে। রাজনীতির ন্যায় দুর্নীতিকেও দলীয়করণ করা হয়েছে।
তিনি বলেন, খালেদা জিয়া ছাড়া দেশে কোনো নির্বাচন হবে না। গণতন্ত্রকে কারাগারে রাখলে নির্বাচন হবে কী করে? সুতরাং গণতন্ত্রের মা ‘মাদার অফ ডেমোক্রেসি’ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ছাড়া দেশে কোনো নির্বাচন হবে না, হতে দেয়া হবে না, হতে পারবেও না। আমরা এখন সবাই ঐক্যবদ্ধ। সবাই মিলে গণতন্ত্রের মাকে উদ্ধার করে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরির মাধ্যমে নির্বাচনে অংশ নিয়ে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করবো। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ