ঢাকা, বুধবার 25 April 2018, ১২ বৈশাখ ১৪২৫, ৮ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

প্রথম দিনে বিসিবি উত্তরাঞ্চল ১৮৭ রানে অলআউট 

স্পোর্টস রিপোর্টার : বিসিএল এর শিরোপা জিততে জয়তো চাই-ই সঙ্গে প্রয়োজন বাড়তি  বোনাস পয়েন্টও। তবে খুলনায় প্রথম দিনে সে কাজটা খুব ভালোভাবেই করে রাখলো প্রাইম ব্যাংক দক্ষিণাঞ্চল। কারণ আব্দুর রাজ্জাকের ঘূর্ণিতে বিসিবি উত্তরাঞ্চলকে মাত্র ৫৮.৩ ওভারে ১৮৭ রানে গুটিয়ে দিয়েছে দলটি। ফলে ৩টি বোনাস পয়েন্ট তুলে নিয়েছে তারা। আর নিজেদের প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমেও দারুণ এগিয়ে যাচ্ছে তারা। দিনশেষে তাদের সংগ্রহ ১ উইকেটে ১১৫ রান। প্রাইম ব্যাংক দক্ষিণাঞ্চলের ব্যাটিং লাইন আপে বড় কোন ধস না নামলে নিঃসন্দেহে প্রথম ইনিংসে লিড পেতে যাচ্ছে দক্ষিণাঞ্চল। সেক্ষেত্রে আরও ১টি বোনাস পয়েন্ট  পেতে যাচ্ছে দলটি। খুলনায় প্রথম দিনের নায়ক দলের অধিনায়ক ও মাশরাফীর কাছের বন্ধু আব্দুর রাজ্জাক। একই দিনে জোড়া রেকর্ড গড়েছেন তিনি। আন্তর্জাতিক উইকেট ছাড়া শুধুমাত্র ঘরোয়া ক্রিকেটের প্রথম শ্রেণির ম্যাচে ৫০০ উইকেট নিয়েছেন। পাশাপাশি বাংলাদেশের কোন  বোলার হিসেবে প্রথম শ্রেণির ম্যাচে এক ইনিংসে সবচেয়ে বেশি ৩৩বার ৫ উইকেট নেয়ার কীর্তিটাও গড়েছেন এ স্পিনার। আর তাতেই উত্তরাঞ্চলের বিপক্ষে প্রথম দিনটা দারুণ কেটেছে দক্ষিণাঞ্চলের। অথচ প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগ (বিসিএল) খেলছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের অধিনায়ক মাশরাফী। সবার নজর ছিলো তার দিকেই। কিন্তু তাকে ছাপিয়ে প্রথম দিনের নায়ক রাজ্জাকই। খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে গুরুত্বপূর্ণ টসটা জিতে নেয় দক্ষিণাঞ্চল। বোলারদের উপর আস্থা রেখে ফিল্ডিং বেছে নেন অধিনায়ক আব্দুর রাজ্জাক। আস্থার প্রদিানও পেয়েছেন। যদিও দলের এমন দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের কা-ারী তিনিই। একাই তুলে নিয়েছেন ৫টি উইকেট। উত্তরাঞ্চলের অধিনায়ক জহুরুল ইসলাম অমিকে আউট করে উইকেটের খাতা খোলেন রাজ্জাক। এরপর একে একে তুলে নেন ধীমান ঘোষ, আরিফুল হক, তাইজুল ইসলাম ও শফিউল ইসলামকে। তবে দিনের শুরুটা করেছিলেন মাশরাফী। দলীয় ১৩ রানেই জুনায়েদ সিদ্দিকিকে মোহাম্মদ মিঠুনের তালুবন্দি করেন এ পেসার। মাশরাফীর পর উত্তরাঞ্চলের টপ অর্ডারের দুটি উইকেট তুলে চাপে ফেলে দেন সাকলাইন সজীব। এরপর বাকি কাজ সারেন রাজ্জাক। ফলে মাত্র ১৮৭ রানে গুটিয়ে যায় পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা উত্তরাঞ্চল। দলের ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতার দিনে একাই প্রতিরোধ গড়েছিলেন সোহরাওয়ার্দী শুভ। সর্বোচ্চ ৫৯ রান করে শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন তিনি। তবে সঙ্গীর অভাবে পেরে ওঠেননি তিনি। এছাড়া নাজমুল হোসেন শান্ত খেলেছেন ৫০ রানের ইনিংস। দক্ষিণাঞ্চলের পক্ষে রাজ্জাক ৫৩ রানের খরচায় নিয়েছেন ৫টি উইকেট। নিজেদের প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো করতে পারেনি দক্ষিণাঞ্চল। দলীয় ২১ রানেই সৌম্য সরকারকে হারায় দলটি। তবে দ্বিতীয় উইকেটে ইমরুল কায়েসের সঙ্গে দারুণ এক জুটি গড়েছেন আরেক ওপেনার এনামুল হক বিজয়। দুজনই দিনশেষে অপরাজিত থেকে এর মধ্যেই ৯৪ রান যোগ করেছেন। ফিফটিও তুলে নিয়েছেন দুই ব্যাটসম্যান। ফলে ১ উইকেটে ১১৫ রানে দিন শেষ করেছে দক্ষিণাঞ্চল। বিজয় ৫২ ও ইমরুল ৫১ রান নিয়ে আজ ব্যাটিং করতে নামবেন। গতকাল বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগে ৫ উইকেট শিকার করলেন আব্দুর রাজ্জাক। ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেটে বাংলাদেশি কোনো বোলারের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৩ বারের মতো ৫ উইকেট শিকার করলেন রাজ্জাক। ঘরোয়া ফার্স্ট ক্লাসেও ৫০০ উইকেটের অনন্য অর্জন হলো তার। আগের ম্যাচেই মধ্যাঞ্চলের বিপক্ষে ম্যাচে প্রথম ইনিংসে ৬ উইকেট নিয়েছিলেন রাজ্জাক। দ্বিতীয় ইনিংসে নেন আরো ৩ উইকেট। তাতে এনামুল হক জুনিয়রের সর্বোচ্চ ৩২বার ৫ উইকেট শিকারের রেকর্ডে ভাগ বসান রাজ্জাক। এদিন ঘরের মাঠ খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে উত্তরাঞ্চলকে গুঁড়িয়ে রেকর্ডটা শুধু নিজের করে নিলেন। জানুয়ারিতে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ৫০০ উইকেট শিকারের রেকর্ড গড়েছিলেন রাজ্জাক। সেটা জাতীয় দলের হয়ে টেস্ট ও বাকী সব ধরনের প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ মিলিয়ে। টেস্টে রাজ্জাকের উইকেট সংখ্যা ২৮টি। এদিন বিসিএলের ম্যাচ খেলতে নামার আগে রাজ্জাকের প্রথম শ্রেণিরর উইকেট সংখ্যা ছিল ১১৭ ম্যাচে ৫২৭টি। টেস্ট ম্যাচ বাদ দিয়ে শুধু ঘরোয়া ক্রিকেটের প্রথম শ্রেণির উইকেট সংখ্যা দাঁড়ায় ৪৯৯টি। অর্থাৎ এদিন ৫ উইকেট নেওয়ার পথে টেস্ট ম্যাচ বাদে অন্যান্য ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেটে আলাদাভাবে ৫০০ উইকেটের মাইলফলক পেরিয়ে গেলেন রাজ্জাক।

সংক্ষিপ্ত স্কোর : বিসিবি উত্তরাঞ্চল : প্রথম ইনিংস : ১৮৭ (মিজানুর ২২, জুনায়েদ ৭, শান্ত ৫০, ফরহাদ ১২, জহুরুল ১, ধীমান ১, আরিফুল ৬,  সোহরাওয়ার্দী ৫৯*, রেজা ৭, তাইজুল ০, শফিউল ১৪; মাশরাফী ১/৪৯, রাব্বি ১/৪৩, সাকলাইন ২/২০, সৌম্য ০/২, রাজ্জাক ৫/৫৩, নাহিদুল ০/১৯)।

প্রাইম ব্যাংক দক্ষিণাঞ্চল : প্রথম ইনিংস : ১১৫/১ (২৯ ওভার) (বিজয় ৫২*, সৌম্য ১২, ইমরুল ৫১*; ১/২৮, আরিফুল ০/১৬,  রেজা ০/১৭, তাইজুল ০/৪৩, সোহরাওয়ার্দী ০/৯, ফরহাদ ০/২)।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ