ঢাকা, বৃহস্পতিবার 20 September 2018, ৫ আশ্বিন ১৪২৫, ৯ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আমদানিকৃত এলএনজির প্রথম চালান দেশে, মে মাসে সরবরাহ

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: জাতীয় লাইনে আমদানিকৃত গ্যাস সরবরাহের জন্য কাতার থেকে মহেশখালী পৌঁছেছে তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাসের (এলএনজি) প্রথম চালান।

সূত্র জানিয়েছে, এক্সিলারেট এনার্জি কোম্পানির ফ্লোটিং স্টোরেজ অ্যান্ড রি-গ্যাসিফিকেশন ইউনিটের (এফএসআরইউ) মাধ্যমে এলএনজির প্রথম চালানটি চট্টগ্রামে আসে।

এফএসআরইউ সাধারণভাবে এলএনজি টার্মিনাল হিসেবে পরিচিত। ভাসমানভাবে স্থাপিত এই টার্মিনালে এলএনজি মজুদ এবং তা পুনরায় গ্যাসে রূপান্তরের সুবিধা থাকে। মহেশখালীতে স্থায়ীভাবে এই টার্মিনাল থাকবে।  

রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানি লিমিটেডের (আরপিজিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ কামরুজ্জামান ইউএনবিকে বলেন, ‘এফএসআরইউটি মঙ্গলবার দুপুর ২টায় দেশে আসে। নির্ধারিত সময়ের একদিন আগেই এটি এসেছে।’

রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান পেট্রোবাংলার অধীনে থাকা আরপিজিসিএল এলএনজি আমদানি এবং তা পুনরায় গ্যাসে রূপান্তর করে জাতীয় লাইনে সরবরাহের দায়িত্বে রয়েছে।

গ্যাসের সংকট মোকাবেলায় এলএনজি আমদানির জন্য ৭ বছর আগে উদ্যোগ নেয়া হয়। কিন্তু এতোদিন পরে প্রথম চালান আসার মাধ্যমে সরকার এই ক্ষেত্রে সফলতা অর্জন করল।

কামরুজ্জামান জানান, এখন আমদানিকৃত গ্যাস জাতীয় লাইনে সরবরাহ করতে এফএসআরইউটিকে প্রস্তুত করা হবে। এ জন্য কিছু কারিগরি কাজ সম্পন্ন করতে ৩-৪ সপ্তাহ সময় লাগবে। 

‘আমরা আশা করছি, মে মাসের মাঝামাঝি সময়ে আমরা এফএসআরইউটিকে প্রস্তুত করতে পারব। আর এলএনজির পরবর্তী চালান মধ্য জুনে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে,’ যোগ করেন তিনি।

মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালাম জানান, এক্সিলারেট কোম্পানির এলএনজি বহনকারী জাহাজটি মঙ্গলবার সোনাদিয়া ভিড়েছে। এটি ২৭৭ মিটার লম্বা ও ৪৪ মিটার প্রস্থ। এ জাহাজে ১ লাখ ৩৬ হাজার ঘনমিটার এলএনজি রয়েছে।

বাংলাদেশের ইতিহাসে এতো বড় জাহাজ আগে আসেনি। এটি এফএসআরইউ হিসেবে ব্যবহৃত হবে, যা উপকূল থেকে তিন কিলোমিটার দূরে ভাসমান টার্মিনাল হিসেবে থাকবে। এ জন্য বিদেশি প্রতিষ্ঠান এক্সিলারেট ১৫ বছর ধরে ভাড়া পাবে। এরপর এটি বাংলাদেশ সরকারের মালিকানায় চলে আসবে।

জাতীয় লাইনে সরবরাহ করার আগে আমদানিকৃত এলএনজি এফএসআরইউর মাধ্যমে পুনরায় গ্যাসে রূপান্তর করা হবে। যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এক্সিলারেট এনার্জি এই ইউনিট স্থাপন করেছে।

এলএনজি আমদানির জন্য বাংলাদেশ কাতারের রাষ্ট্রীয় কোম্পানি রাসগ্যাসের সাথে চুক্তি করেছিল। প্রতিষ্ঠানটি প্রতি বছর ২৫ লাখ টন এলএনজি সরবরাহ করবে। এরকম আরো চুক্তি করার প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ