ঢাকা, বুধবার 25 April 2018, ১২ বৈশাখ ১৪২৫, ৮ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

দাউদকান্দি-তিতাসের ১৪ কিলোমিটার সড়কের বেহাল দশা ॥ সেতুর অভাবে দুর্ভোগ চরমে

দাউদকান্দি-তিতাসের বাতাকান্দি মোহনপুর ভায়া বাহেরচর সড়কের বেহাল অবস্থা। উত্তর ইউনিয়নের হাসনাবাদ-বটতলী ও নন্দনপুর-কদমতলীর গোমতী নদীতে সেতু না থাকায় যানবাহন ও মানুষ পারাপার হচ্ছে নৌকা যোগে

দাউদকান্দি (কুমিল্লা) সংবাদদাতা: দাউদকান্দি উপজেলার অংশ বিশেষ নিয়ে গঠিত তিতাস উপজেলার বাতাকান্দি থেকে সাতানি, জগতপুর, মজিদপুর ও দাউদকান্দির ১০নং সদর উত্তর ইউনিয়ন হয়ে প্রায় ১৪ কিলোমিটার আঞ্চলিক সড়কটি এসে ঠেকেছে হাসনাবাদ-বটতলী, গোমতী নদীর খেয়া ঘাটে। দক্ষিণ প্রান্তে কদমতলী-নন্দনপুর হয়ে সড়কটি উপজেলা সদরের কেডিসি ঘাটে মিলিত হয়েছে। গোমতী নদীতে সেুত নির্মাণ না হওয়ায় সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে এই পথে। সাধারণ জনগণ নদীর দু’পাড়ে ছোট যানবাহনে পৌছে খেয়া নৌকায় নদী পেরিয়ে নিজ গন্তব্যে গেলেও দাউদকান্দির ভি.আই.পি.-ভি. ভি.আই.পি’রা নিজস্ব যানবাহনে তাদের বাড়ী-ঘরে যেতে হলে অতিরিক্ত ২০ কিলোমিটার পথ উপজেলার গৌরীপুর, বাতাকান্দি হয়ে উত্তর ইউনিয়নে যেতে হয়। ২০০৬ সালে তৎকালীন সরকার বাতাকান্দি-ভায়া-মোহনপুর, বাহেরচর, দাউদকান্দি সড়কটির উদ্যোগ গ্রহণ করলেও ২০১২ সালে এ সড়ক দিয়ে ছোট যানবাহন চলাচল শুরু করে। কিন্তু গত ৬ বছরে সড়কটির সংস্কার, মেরামত না করায় এই সড়কে যাতায়াতকারী রোগী, যাত্রী সাধারণ ও শিক্ষার্থীরা চরম বিপাকে পড়েছে। এই পথে চারটি সেতুর এ্যাপ্রোচের মাটি পর্যন্ত দেবে যাওয়ায় ছোট যানবাহনে যাত্রীরা নেমে ধাক্কিয়ে গাড়ি পারাপার করতে হয়। আর ভাঙা গর্তের ডামাডোলে যানবাহনের যাত্রীরা নিয়মিত অসুস্থ্য হয়ে যায়। এমনকি সড়কের পথে-পথে যানবাহন বিকল হয়ে যাওয়ার কারণ দেখিয়ে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয়। সড়কের প্রায় অর্ধেক অংশ সাতানী ইউনিয়নে হওয়ায় সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এই ইউনিয়নের জনগণকে। মজিদ পুর ইউপি সদস্য মুকবুল মাহমুদ প্রধান সড়কটি অতি তারাতারি নষ্টের জন্য দায়ী করেন স্থানীয় ইট ভাটার মালিকদের। ইট বোজাই গাড়ি চলাচলের কারণেই সড়কটির বেহাল দশা বলে তিনি মন্তব্য করেন। সাংবাদিক সফিকুল ভুইয়া বলেন, সড়ক হওয়ার পূর্বে যেমন জনগণের দুর্ভোগ পোহাতে হত এখনো দুর্ভোগের শেষ নেই। উত্তর ইউনিয়নের গোমতী নদীর হাসনাবাদ-বটতলী ও কদমতলী-নন্দনপুরে সেতু নির্মাণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশনের সভাপতি ও বাহেরচর গ্রামের কৃতি সন্তান ইঞ্জি. আব্দুস সবুর। তিনি জানান, সেতু নির্মাণে প্রক্রিয়ার বহুদূর এগিয়েছে। বাতাকান্দি-বাহেরচর-ভায়া মোহনপুর, দাউদকান্দি সড়কটির অর্থায়ণ করেছিল বিশ্ব ব্যাংক, রিপ- ২ এর তত্ত্বাবধানে কাজটি শেষ হলে বর্তমানে ঐ প্রকল্প না থাকায় আর.সি.আই.পি. প্রকল্পের আওতায় এটি মেরামতের আর্থিক ব্যয়ের পরিমাণ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছেন এল.জি.ই.ডি’র দাউদকান্দি প্রকৌশলী আমিনুল হক ও তিতাসের প্রকৌশলী মুহীন উল্লাহ। কুমিল্লা-১ নির্বাচনী এলাকার সংসদ সদস্য মেজর জেনারেল (অব.) সুবিদ আলী ভুইয়া বলেন, উন্নয়নের শেষ নেই বটতলী-নন্দনপুর, গোমতী নদীতে সেতু নির্মাণে বড় মাপের অর্থের প্রয়োজন তবে এটি প্রক্রিয়াধীন। কুমিল্লা-২ এর সংসদ সদস্য জাপা নেতা আমির হোসেন ভুইয়া বলেন, অসমাপ্ত কাজ শেষ করতে সময়ের প্রয়োজন।
এ দিকে দাউদকান্দি সদর উত্তর ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জি. আব্দুস সালাম, তিতাসের মজিদপুর ইউপি চেয়ারম্যান ফারুক মিয়া সরকার, জগতপুর ইউপি চেয়ারম্যান মজিবুর রহমান, সাতানী ইউনিয়নের কালীর বাজার ইউনিয়ন কারিগরী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. শহীদ উল্লাহ ও সাতানী ইউপি চেয়ারম্যান সামছুল হক সরকার সড়ক মেরামত ও সেতু নির্মাণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি জোর দাবী জানিয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ