ঢাকা, বুধবার 25 April 2018, ১২ বৈশাখ ১৪২৫, ৮ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

অনৈতিক প্রস্তাবে রাজী না হওয়ায় গৃহবধূর আত্মহত্যা

নওগাঁ সংবাদদাতা: নওগাঁর রানীনগরে দাদন ব্যবসায়ীর চাপে ও অনৈতিক প্রস্তাবে রাজী না হওয়ায় লীমা রানী(৩০) নামে এক গৃহবধূ কীটনাশক পানে আত্মহত্যার অভিযোগ উঠেছে। বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার পারইল ইউনিয়নের খোলাগাড়ী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
বৃহস্পতিবার দুপুরে লাশ উদ্ধার করে নওগাঁ সদর হাপাতালে মর্গে পাঠানো হয়। গৃহবধু লীমা রানী গ্রামের গোপেনের স্ত্রী।স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,  গৃহবধুর স্বামী (গোপেন) ফল ব্যবসায়ী।
দোকানের মালামাল কেনার জন্য তার স্ত্রী পার্শ্ববতী বগুড়া জেলার আদমদীঘি উপজেলার কুন্ডগ্রাম ইউনিয়নের বশিকরা গ্রামের দাদন ব্যবসায়ী মৃত গোবরার ছেলে আইয়ুবের কাছ থেকে মাসে ৫ হাজার সুদে ৩৫ হাজার টাকা, বাচ্চুর কাছ থেকে মাসে ৬ হাজার সুদে ৪৫ হাজার টাকা এবং ওসমান আলীর ছেলে বাবুর কাছ থেকে মাসে দেড় হাজার টাকা সুদে ৫ হাজার টাকা নেয়। এছাড়া বেসরকারি সংস্থা দাবী, আশা, ব্র্যাক, বেডো ও গ্রামীন ব্যাংক থেকে প্রায় লক্ষাধিক টাকা ঋণ নেয়।
গত প্রায় তিন মাস আগে দাদন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে উচ্চ সুদে টাকা নেয়া হলেও মাসে মাসে পরিশোধ করার কথা।
কিন্তু টাকা দিতে না পারায় দাদন ব্যবসায়ীরা গৃহবধু লীমা রানীকে চাপ সৃষ্টি করে।
এক পর্যায়ে অনৈতিক প্রস্তাব দেয় তারা। গৃহবধু তাদের প্রস্তাবে রাজী না হয়ে ক্ষোভের বসে বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে নিকটনাশক পান করে। বাড়ির লোকজন বিষয়টি বুঝতে পেরে আদমদিঘী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পথে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় এলাকায় বেশ চাঞ্চলের সৃষ্টি হয়েছে।
এলাকাবাসীদের অভিযোগ দাদন ব্যবসায়ীর চাপে ও অনৈতিক প্রস্তাবে রাজী না হওয়ায় লীমা রানী আত্মহত্যা করেছে।
উল্লেখ্য, বশিকরা গ্রাম আদমদিঘী উপজেলায় হলেও খোলাগাড়ী গ্রামের পাশের।
আর ওই গ্রামে আইয়ুব, বাচ্চু ও বাবু ছাড়াও কয়েকজন মিলে উচ্চসুদে দাদন ব্যবসা করে থাকে। আর তাদের কাছ থেকে উচ্চ সুদে টাকা নিয়ে সর্বস্বান্ত হয়েছেন লীমা রানীসহ অনেকেই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ