ঢাকা, বৃহস্পতিবার 26 April 2018, ১৩ বৈশাখ ১৪২৫, ৯ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে একটি এনজিও উধাও

রামপাল বাগেরহাট সংবাদদাতা : বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক অনুমোদিত ডে-নাইট পরিবেশ উন্নয়ন ফাউন্ডেশন যার রেজিঃ নং-এস.৭২৬৫(৪৫৪) ২০০৭। এটি সামাজিক উন্নয়নসেবামূলক একটি প্রতিষ্ঠান। যার প্রধান কার্যালয় সোনাডাঙ্গা আবাসিক এলাকা, বাসা # ১০০, রোড # ০৭ (ফেজ)। বাগেরহাটের খানপুর ইউনিয়নে মনোয়ারা মোল্লার বাড়ী ভাড়া নিয়ে সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে হতদরিদ্র অসহায় নারী ও পুরুষকে অধিক লাভের প্রলোভন দেখিয়ে দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এছাড়া রামপাল, ফয়লা বাজার, চাকশ্রী বাজারসহ বিভিন্ন গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলে নিবন্ধন নিয়ে সাইনবোর্ড, ব্যানার, পাসবই দেখিয়ে মাঠ পর্যায়ে কার্যক্রম চালিয়ে যেতে থাকে। পর্যায়ক্রমে অন্যান্য সুযোগ সুবিধা বেশি পাওয়া যাবে এমন কথা বলে দৈনিক, সাপ্তাহিক, মাসিক, বাৎসরিক হিসাবে গ্রাহকের কাছ থেকে  ক্ষুদ্র সঞ্চয় নেওয়ার কার্যক্রম শুরু করে। বছর শেষে গ্রহকের মেয়াদ উর্ত্তীর্ণ জামানতে টাকা লভ্যাংশসহ ফেরত চাইলে আজ দেব কাল দেব বলে গ্রাহকদের হয়রানির স্বীকার হতে হয়।  পরবর্তীতে গ্রহকরা তাদের জমাকৃত টাকার জন্য মাঠ কর্মীদের উপর চাপ প্রয়োগ করলে সু-কৌশলে রাতের আধারে সবকিছু নিয়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।  পরের দিন মাঠ কর্মীরা অফিসে এসে কাউকে না পেয়ে খোজ খবর নিতে শুরু করে এনজিওর  মালিকদের। কোন সন্ধান না পেয়ে শুশান্ত মজুমদার, উজ্জ্বল মন্ডল, প্রিতি মন্ডল, মিলন মন্ডলসহ  একশতেরও  বেশি  গ্রাহকরা এনজিও মালিকদের বিরুদ্ধে খুলনা র‌্যাব-০৬ এর বরাবর ১০/০৪/২০১৮ তারিখে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। এই সংবাদ শুনে সাংবাদিক ও মানবাধীকার কর্মীরা, ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকরা খানপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্যা মনোয়ারা মোল্লার বাড়ীতে যায়। তিনি বলেন, আমি বাড়ি না থাকায় কিভাবে তারা পালিয়ে গেছে বলতে পারি না। বাড়ী এসে বহু খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে আমি এনজিও মালিকদের নামে বাগেরহাট জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট এর আদালতে ২৩/০৪/২০১৮ তারিখে একটি মামলা দায়ের করি বলে সাংবাদিকদের জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ