ঢাকা, বৃহস্পতিবার 26 April 2018, ১৩ বৈশাখ ১৪২৫, ৯ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আর্সেনাল থেকে অবসরে আর্সেন ওয়েঙ্গার

মাহাথির মোহাম্মদ কৌশিক : একজন ফুটবল একটি ক্লাবে কতদিন থাকতে পারেন। বর্তমান যুগে এই দিকটি নিয়ে খুব বেশি ভাবনা থাকেনা তাদের। বেশি অর্থ পেলে ক্লাবের মায়া ত্যাগ করতে খুববেশি সময়ও নেয়না। কোচদের বিষয়টি আবার উল্টো। মাঠে দল খারাপ খেললে সব দোষ এসে পড়ে কোচের উপর। মৌসুমের শুরু থেকে মাঝপথে সবখানেই কোচদের বহিস্কার করার রেকর্ডও রয়েছে। সে হিসেবে একটি ক্লাবে ২২ বছর কাটিয়ে দেওয়াও সহজ নয়। যেটি করে এখন বিদায়ের দিন গুনছেন আর্সেন ওয়েঙ্গার। আর্সেনালে আসা এই আর্সেনটা আবার কে? ২২ বছর আগে ১৯৯৬ সালের অক্টোবরে ওয়েঙ্গারকে যখন গানারদের ম্যানেজার হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়, তখন অনেকের মুখেই ছিল প্রশ্নটা। এখনকার আর্সেনালের টিকিট স্বত্বাধিকারী এবং অংশীদার ড্যারেন এপসটেইন সম্প্রতি স্মৃতিচারণ করে বলছিলেন, ‘অন্য অনেকের মতো আমিও এর আগে তার নামই শুনিনি। জানলাম, সে জাপানের একটা ক্লাবে ছিল। সবাই বুঝে নিল, খুব লো-প্রোফাইলের কোচ।’ লো-প্রোফাইলের অপরিচিত সেই ওয়েঙ্গার গানার শিবিরে যোগ দিয়ে একে একে কাটিয়ে দিলেন ২২ মৌসুম। অবশেষে বিদায় নিতে যাচ্ছেন আর্সেনাল ডাগআউট থেকে। ৬৮ বছর বয়সী এ ফরাসি কোচের সঙ্গে ক্লাবের চুক্তি ছিল আগামী বছর পর্যন্ত। কিন্তু তিনটি প্রিমিয়ার লীগ, সাতটি এফএ কাপ জেতা এ কোচ অনেকটা আচমকাই এক বিবৃতিতে জানিয়ে দিলেন, সরে যাওয়ার এটিই সঠিক সময়। যদিও বিভিন্ন মাধ্যমে জানা গেছে নিজ থেকে নয় ক্লাবই নাকি ওয়েঙ্গারকে বহিস্কার করেছে। কারো কারো কথায় সেটিকে বলা হচ্ছে অব্যহতি হিসেবে। বিদায়বেলায় যেমন হয়ে থাকে, তেমন করে ক্লাব, ফুটবল ও পরিবার সংশ্নিষ্ট সবাইকেই ধন্যবাদ জানিয়েছেন। যদিও প্রকাশ্য বিবৃতি আচমকা এলেও ভাবনাটা যে দীর্ঘদিনের, সেটি বলেছেন বিবৃতির ভাষ্যে, ‘গভীর ভাবনা আর ক্লাব কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনার পর মনে হলো, মৌসুম শেষে সরে যাওয়াটাই আমার জন্য সঠিক সময়। অনেকগুলো স্মরণীয় বছর এই ক্লাবের সেবা করার সুযোগ পেয়ে আমি কৃতজ্ঞ।’ আর্সেনালের সিংহভাগ অংশের মালিক স্টান ক্রেওঙ্কে ওয়েঙ্গারের ঘোষণাকে অভিহিত করেছেন ফুটবল জগতে এটি আমাদের অন্যতম কঠিন একটি দিন’ বলে। আর্সেনালের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, খুব দ্রুত ওয়েঙ্গারের উত্তরসূরির নাম ঘোষণা করা হবে। দায়িত্ব ছাড়ার আগের দিন ওয়েঙ্গার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, গানারদের সাবেক অধিনায়ক প্যাট্রিক ভিয়েরা হতে পারে পরবর্তী কোচ। ইংল্যান্ডের স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করার কথা আর্সেনালের প্রধান নির্বাহী ইভান গাজিদিসের। একসময় মোনাকোকে কোচিং করানো ওয়েঙ্গার আর্সেনালের ডাগআউটে সেরা সময় কাটিয়েছেন দায়িত্বের প্রথম এক দশকে। প্রথম মৌসুমে তৃতীয় হওয়ার পর দ্বিতীয় মৌসুমেই ইপিএল জেতান আর্সেনালকে। ২০০১-০২-এ জেতেন দ্বিতীয় শিরোপা। তবে গৌরবময় অধ্যয়টা ২০০৩-০৪ মৌসুমের। ওই বছর তার অধীনে থাকা আর্সেনাল ইপিএল জেতে অপরাজিত থেকে। প্রিমিয়ার লীগ ইতিহাসে এখন পর্যন্ত ইনভিনসিবল চ্যাম্পিয়ন ওই একটা দলই। দুই বছর পর হাতে ওঠাতে পারতেন চ্যাম্পিয়ন্স লীগ শিরোপাও। কিন্তু ফাইনালে বার্সেলোনার কাছে হেরে তা আর হয়নি।
পরবর্তীতে ক্লাব কর্তৃপক্ষ নতুন ঠিকানা এমিরেটস স্টেডিয়ামের নির্মাণ কাজের বেশি মনোযোগী হয়ে গেলে খেলার মাঠে ছন্দ হারিয়ে ফেলে আর্সেনাল। যার ধারাবাহিকতায় গত ১৪ মৌসুমে আর কোনো ইপিএল জিততে পারেনি ওয়েঙ্গারের দল। তবে ৮২৩টি ইপিএল ম্যাচের ডাগআউটে দাঁড়িয়ে ৪৭৩টি ম্যাচে দলকে যেভাবে জয়ের বন্দরে পৌঁছিয়েছেন, তা-ই উজ্জ্বল হয়ে থাকবে আর্সেনালের স্মৃতিতে, কীর্তিতে। এখন ওয়েঙ্গারের উত্তর সুরি করে হতে যাচ্ছে সেই বিষয়টি নিয়েই বেশি আলোচনা হচ্ছে। দীর্ঘ ২২ বছরের বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারের সমাপ্তি টেনে আর্সেনালের কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আর্সেনালের ফরাসী কোচ। চলতি মৌসুমের শেষেই আর্সেনাল ছেড়ে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তিনি। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ থেকে বিদায় নিয়েছেন আরও আগেই। তবে ইউরোপা লীগে শিরোপা জিততে পারলে ইউরোপ সেরার এই টুর্নামেন্টে খেলার সুযোগ হবে গানারদের। তবে আর্সেন ওয়েঙ্গারের বিদায় বলার পর থেকেই জল্পনা-কল্পনার শুরু। বিশ্ব ফুটবলের অন্যতম বড় বাজেটের এই ক্লাবটির পরবর্তী কোচের পদে আসীন হবেন কে? ওয়েঙ্গারের উত্তরসূরি খুঁজে পাওয়াটা মোটেই সহজ হবে না। তারপরও এ্যামিরেটস স্টেডিয়ামে পরবর্তী কান্ডারি হিসেবে আলোচনার শীর্ষে রয়েছেন কয়েকজন। তাদের মধ্যে কার্লো আনচেলত্তি, লুইস এনরিকে, জোয়াকিম লো, প্যাট্রিক ভিয়েরা এবং ব্রেন্ডন রজার্স অন্যতম। ২০০৩-০৪ সালে পুরো মৌসুমে অপরাজিত থাকা উজ্জীবিত আর্সেনালের নেতৃত্বে ছিলেন প্যাট্রিক ভিয়েরা। ওয়েঙ্গারের অধীনে সেই মৌসুমে ক্লাবের সবধরনের সাফল্যের দারুণ এক প্রতিচ্ছবি ছিলেন ভিয়েরা। আর্সেনালে থাকাকালীন সময় তিনটি করে লীগ শিরোপা ও এফএ কাপের শিরোপা জিতেছিলেন তিনি। কিন্তু কোচ হিসেবে ক্যারিয়ারের প্রথম ক্লাব হিসেবে ম্যানচেস্টার সিটিকে বেছে নিয়েছিলেন। নিউইয়র্ক সিটিতে যোগ দেয়ার ১৮ মাস আগে এই ফ্রেঞ্চম্যান সিটির ডেভেলপমেন্ট স্কোয়াডের দায়িত্ব পেয়েছিলেন। গত দুই আসরে তিনি এমএলএস’এ নিউইয়র্ক সিটির দায়িত্বে ছিলেন। কিন্তু দুই মৌসুমেই ইস্টার্ন কনফারেন্সের সেমিফাইনালে তার ক্লাব পরাজিত হয়েছে।
ভক্তদের কাছে দারুণ জনপ্রিয় ভিয়েরার শীর্ষ পর্যায়ে কোচিংয়ের অনভিজ্ঞতা থাকলেও প্রিমিয়ার লীগের শিরোপার জন্য আবারও নিজেদের দাবিকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে আর্সেনাল ভিয়েরাকে নিয়ে ঝুঁকি নিতেই পারে। সেলটিকের হয়ে দুর্দান্ত সময় কাটছে ব্রেন্ডন রজার্সের। গত দুই বছরে নিজের হারানো খ্যাতি আবারও পুনরুদ্ধার করেছেন তিনি। টানা দ্বিতীয়বারের মতো এই নর্দার্ন আইরিশম্যানের অধীনে ঘরোয়া ট্রেবল জয়ের একেবারে কাছাকাছি রয়েছে গ্ল্যাসগো জায়ান্টসরা। ২০১৫ সালের অক্টোবরে লিভারপুলের সঙ্গে সাড়ে তিন বছরের সম্পর্ক শেষ হয় ৪৫ বছরের রজার্সের। কিন্তু ২০১৩-১৪ সালে লীগ শিরোপার খুব কাছাকাছি গিয়েও ব্যর্থ হতে হয়েছিল লিভারপুলকে।
ফলে লীগ শিরোপা জয়ের ২৮ বছরের অপেক্ষা অধরাই থেকে যায়। সেলটিকের অন্যতম মালিক ডারমট ডেসমন্ড বলেন রজার্স যদি চলে যেতে চায় তবে তাতে কোন বাধা দিবেন না। তার মতে আর্সেনালের মতো বিশ্বসেরা একটি ক্লাবের প্রস্তাব আসলে কাউকেই আটকে রাখা ঠিক হবে না। এটা সম্পূর্ণভাবেই ব্রেন্ডনের সিদ্ধান্ত। অন্যসব প্রার্থীর তুলনায় কার্লো আনচেলত্তির ইউরোপিয়ান শীর্ষ ক্লাবে কোচের দায়িত্বে থাকার অভিজ্ঞতা অনেক বেশি। এটাই তাকে অন্য সবদিক থেকে আর্সেনালের কোচের জন্য এগিয়ে রেখেছে। ২০০৯-১১ সাল পর্যন্ত দুই বছর চেলসি মেয়াদ শেষে আবারও তার সামনে লন্ডনে ফিরে আসার হাতছানি। ইতালিয়ান এই কোচের তিনটি চ্যাম্পিয়ন্স লীগ শিরোপা জয়ের অভিজ্ঞতা রয়েছে। এছাড়াও ইতালি, ফ্রান্স, জার্মানি ও ইংল্যান্ডের লীগ শিরোপাও জয় করেছেন তিনি। যদিও গত সেপ্টেম্বরে বেয়ার্ন মিউনিখের কোচের পদ থেকে বরখাস্ত করা হয় তাকে। ৫৮ বছর বয়সী এই অভিজ্ঞ কোচকে না নিয়ে আর্সেনাল হয়তো অপেক্ষাকৃত কম বয়সী কোন কোচের সন্ধান করতে পারে। এটাই আনচেলত্তিকে না নেবার একমাত্র কারণ হিসেবে বিবেচনা করছেন অনেকে। বার্সিলোনার কোচ হিসেবে নিজের প্রথম মেয়াদেই ট্রেবল জয়ের কৃতিত্ব দেখিয়েছিলেন লুইস এনরিকে। ন্যু ক্যাম্পে তিনটি কঠিন মৌসুম কাটানোর পর আপাতত এক মৌসুমের জন্য বিশ্রামে রয়েছেন তিনি। ঐ দুই মৌসুমে বার্সা দু’টি লীগ শিরোপা ছাড়াও তিনটি কোপা ডেল’রে ও ২০১৫ সালে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের শিরোপা ঘরে তুলেছে। এনরিকে নিজেও প্রিমিয়ার লীগে কাজ করার জন্য মুখিয়ে আছেন। গাজিডিস ইতোমধ্যেই ইঙ্গিত দিয়েছেন ওয়েঙ্গারের পথ ধরেই আক্রমণাত্মক স্টাইল সমৃদ্ধ একজন কোচকে তারা নিয়োগ দিতে চায়। এদিকে বিশ্বকাপ জয়ী জার্মান কোচ জোয়াকিম লো দীর্ঘদিন ধরেই ক্লাব ফুটবলের অনেক লোভনীয় প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে এসেছেন। ২০২০ সাল পর্যন্ত এখনও জার্মান ফেডারেশনের সঙ্গে চুক্তি বহাল রয়েছে তার। তবে বাজিকরদের তালিকায় আর্সেনালের পরবর্তী কোচের জন্য ফেবারিটদের একজন লোও। যদিও লোয়ের সামনে এখন একটাই লক্ষ্য রাশিয়া বিশ্বকাপে জার্মানদের শিরোপা ধরে রাখা। আর্সেনালের প্রধান নির্বাহী ইভান গাজিডিস ইঙ্গিত দিয়েছেন আগস্টে ট্রান্সফার উইন্ডোর সময় শেষ হবার আগেই কোচের পদে নিয়োগ সম্পন্ন করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ