ঢাকা, শুক্রবার 27 April 2018, ১৪ বৈশাখ ১৪২৫, ১০ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

পাঁচজনের অস্বাভাবিক মৃত্যু

রাজশাহী অফিস : রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) এক গাড়ি চালক আবদুস সালামকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে রুয়েট ক্যাম্পাসের ভেতরেই এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আবদুস সালাম (৫৫) রাজশাহী মহানগরীর ইসলামপুর দেবিশিংপাড়া মহল্লার মৃত কোবাদ আলী ম-লের ছেলে। আবদুস সালাম রুয়েটের একটি বাস চালাতেন। রুয়েট কর্মচারি ইউনিয়নের সভাপতি মহিদুল ইসলাম জানান, স্ত্রী, দুই ছেলে এবং এক মেয়েকে নিয়ে রুয়েট ক্যাম্পাসের ভেতরে কোয়ার্টারে থাকতেন আবদুস সালাম। রাতে তিনি বাইসাইকেল চালিয়ে কোয়ার্টারের দিকে যাচ্ছিলেন। কোয়ার্টার থেকে মাত্র ১০০ গজ দূরে অগ্রণী স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে জখম করে। এ সময় নৈশ প্রহরীরা আবদুস সালামের চিৎকার শুনে এগিয়ে গেলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। পরে আবদুস সালামকে উদ্ধারকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। হাসপাতালে নিহত আবদুস সালামের ছোট ভাই আবুল কালাম বলেন, ক্যাম্পাসের ভেতরে তার ভাইয়ের সঙ্গে কয়েকজনের দ্বন্দ্ব চলছিল। তবে এ হত্যাকা-ের সঙ্গে কে বা কারা জড়িত তা তিনি জানেন না। ভাইকে কোপানোর খবর পেয়ে তিনি হাসপাতালে এসেছেন। এদিকে মঙ্গলবার ভোরে নগরীর মতিহার থানায় আব্দুস সালাম হত্যাকা-ের ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামী করে নিহত আব্দুর সালামের বড় ছেলে হাসিবুল ইসলাম পলাশ বাদি হয়ে অজ্ঞাত নামা এই মামলাটি করেন। পরে মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে রুয়েটের প্রশাসন ভাবনের সামনে হত্যকাারিদের গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ করেন কর্মচারীরা। বিক্ষোভ থেকে বাস চালক আব্দুস সালামকে হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে জানানো হয়।

গুইমারা (খাগড়াছড়ি)

খাগড়াছড়ি’র গুইমারায় ডাক্তার টিলা সংলগ্ন পুরাতন ইটভাটা এলাকায় বাঙ্গালীর লাশ পাওয়া গেছে। নিহত ব্যক্তির নাম মো: আনোয়ার হোসেন (৪৫) পিতা মো: এছাক মিয়া।তার স্থায়ী ঠিকানা চাঁদপুরের  চিতষী এলাকায়।ব্যাক্তিগত জীবনে সে ৫ সন্তানের জনক। গুইমারা থানার পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

পলাশবাড়ী (গাইবান্ধা) 

গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে জমি-জমা সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে স্ত্রী নছিরন বেগমকে (৫০) হত্যা। ঘটনার সাথে জড়িত স্বামীসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

নৃশংস ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার ভোররাতে উপজেলার মনোহরপুরের পল্লীতে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মনোহরপুর ইউনিয়নের খামার মামুদপুর (পাতারেরপাড়া) গ্রামের ঘাতক স্বামী আব্দুর রশিদ ও মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলামের সাথে একটি জমির মালিকানা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। 

জমি সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষ সিরাজুলকে ফাঁসাতে আব্দুর রশিদ তার নিজ পরিকল্পনায় স্ত্রী নছিমনকে হত্যার ফন্দি আঁটে।

সিরাজুলের ভোগ দখলে থাকা বিরোধপূর্ণ ওই জমিতে থাকা ধান মঙ্গলবার কাটবেন বলে সিরাজুলের পরিবার সিদ্ধান্ত নেন। 

এদিকে এলাকাবাসির অভিযোগে জানা যায়, ধান কাটার খবর পেয়ে সিরাজুলকে ফাঁসাতে রশিদ তার স্ত্রী নছিরন বেগমকে হত্যার উদ্দেশ্যে সোমবার রাতে বেধরক বেদম মারপিট করে। এক পর্যায় নছিরন মৃত্যুর দিকে ধাবিত হবার সাথে-সাথে পাষন্ড স্বামী রশিদ শ্বাসরোধ করে তার স্ত্রীকে হত্যা করে। পরে ঘাতক স্বামী রশিদ সোমবার দিনগত ভোররাতে তার স্ত্রীর মৃতদেহ ওই বিরোধপূর্ণ ধানের জমিতে ফেলে আসে।

মঙ্গলবার সকালে অত্র ইউপি’র হরিণাবাড়ী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই মিজানুর রহমান সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করেন। লাশের শরীরের বিভিন্ন স্থানে একাধিক আঘাতের চিহৃ রয়েছে।

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) 

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় মঞ্জুমা খাতুন (৫০) নামের এক নারী নিহত ও প্রায় ১০জন আহত হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল সোয়া ১১টার দিকে উপজেলার রঘুনাথপুর বাসস্ট্যা-ে একটি সিমেন্ট বোঝায় ট্রাকের নীচে চাপা পড়ে ১জন নিহত ও একই দিন দুপুরে কালীগঞ্জ-জীবননগর সড়কের পাতবিলা ইটভাটা নামক স্থানে কালীগঞ্জগামী শাপলা পরিবহন নিয়ন্ত্রন হারিয়ে পাশের খাদে পড়ে প্রায় ১০জন বাসযাত্রী আহত হয়েছে। নিহত মঞ্জুমা খাতুন রঘুনাথপুর গ্রামের বসু উল্লাহ পাটোয়ারির স্ত্রী বলে জানা গেছে।  বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কালীগঞ্জ থানার ওসি মিজানুর রহমান খান। 

পলাশবাড়ী (গাইবান্ধা)

গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলা সদরের রাইগ্রাম মোড়ে রংপুর-বগুড়া মহাসড়কে একটি নৈশ কোচের ধাক্কায় মটর সাইকেল আরোহী মোস্তফা কামাল (৪০) নামে এক পুলিশ সদস্য নিহত এবং তার শ্যালিকা যমুনা আকতার (২২) গুরুতর আহত হয়। মোস্তফা কামাল জেলার ফুলছড়ি থানায় কনস্টেবল হিসেবে কর্মরত  ছিলেন। পলাশবাড়ী থানা পুলিশ জানায়, গত সোমবার রাতে গোবিন্দগঞ্জ থেকে মোস্তফা কামাল তার শ্যালিকা যমুনাকে নিয়ে উপজেলার বরিশাল ইউনিয়নের মাদক পল্লী রাইগ্রাম শ্বশুর বাড়ীতে আসছিলেন। 

রংপুর-বগুড়া মহাসড়কের রাইগ্রাম মোড়ে এসে পৌছিলে রংপুর থেকে ঢাকাগামী একটি নৈশকোচ তাদের মটর সাইকেলটিকে ধাক্কা দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। ফলে কনস্টেবল মোস্তফা কামাল ও তার শ্যালিকা যমুনা গুরুতর আহত হয়। তাদের দ্রুত রংপুর প্রাইম হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মোস্তফা কামাল মারা যান। নিহত মোস্তফা দিনাজপুর জেলার সদর থানার হাই গ্রামের মৃত জামাল উদ্দিনের ছেলে। এ ব্যাপারে থানা একটি মামলা দায়ের হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ