ঢাকা, শনিবার 28 April 2018, ১৫ বৈশাখ ১৪২৫, ১১ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বাসা ভাড়ায় বৈষম্যের শিকার ব্যাচেলররা

স্টাফ রিপোর্টার : ভাড়াটিয়াদের অসুবিধের শেষ নেই। বাসা ভাড়া নিতে গিয়ে কত যে কারসাজি তারও কোনও সীমা নেই। আর সেক্ষেত্রে ব্যাচেলর হলে তো মালিকের সোজা ‘না’। শহরে ব্যাচেলর বা স্বল্প আয়ের মানুষগুলো মেস হিসেবে বাসা বা ফ্ল্যাট ভাড়া পাওয়ার ক্ষেত্রে বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ জানিয়েছে বাংলাদেশ মেস সংঘ (বিএমও) নামক একটি সংগঠন। শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধনে এ অভিযোগ জানানো হয়।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, স্থান, কাল ও পাত্রভেদে মেস বিভিন্ন নামে পরিচিত। মহিলা হোস্টেল, ছাত্রী নিবাস, ছাত্রাবাস, ডরমেটরি, অফিসার মেস ইত্যাদি। মেস হিসেবে বাসা বা ফ্ল্যাট ভাড়া পাওয়ার ক্ষেত্রে বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন মানুষ। এ কারণে মেসে বসবাস করা সত্ত্বেও তা স্বীকার করতে লজ্জা পায় অনেকেই।
বক্তারা আরও বলেন, মেস বিষয়ক পর্যালোচনায় দেখা গেছে, গ্রাম-গঞ্জের তৃণমূল পর্যায় থেকে উঠে আসা ব্যবসায়ী, চাকুরিজীবী, পেশাজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষের বেশিরভাগই অধিকাংশ সময় মেসে থাকেন।
মানববন্ধনে বাংলাদেশ মেস সংঘের পক্ষ থেকে ১৩ দফা তুলে ধরা হয়। দাবিগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য : প্রতি বাড়ি-ফ্ল্যাটে মেসের জন্য স্থান বরাদ্দ, প্রতিটি মেসে পুলিশের পরিদর্শন ও সদস্যদের পরিচয় নিশ্চিত করে শান্তিপূর্ণ বসবাস নিশ্চিতকরণ, মেস ভাড়া স্বাভাবিককরণে বাড়ির মালিকদের উদ্বুদ্ধকরণ, মেস ভাড়ার নীতিমালাকরণ, মেস কেন্দ্রিক অপরাধ রোধ, বাড়ির মালিকদের মেস মেম্বারদের প্রতি সঠিক আচরণ নিশ্চিতকরণ ও বিভাগীয় শহরের উপকণ্ঠে পরিকল্পিত মেস নগরী গড়ে তোলা প্রভৃতি।
মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন আয়োজক সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা মহাসচিব মো. আক্তারুজ্জামান আয়াতুল্লাহ, ঢাকা মহানগরীর সহসভাপতি সৈয়দ আখতার সিরাজী, নয়ন মৃধা, লিটন দ্রো ও মোমেন মেহেদি প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ