ঢাকা, শনিবার 28 April 2018, ১৫ বৈশাখ ১৪২৫, ১১ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বন্ধুত্বপূর্ণ ও আনন্দদায়ক বৈঠক হয়েছে: দ. কোরিয়া

২৭ এপ্রিল, রয়টার্স: উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের সকালের বৈঠক শেষ হয়েছে। গতকাল শুক্রবার দক্ষিণ কোরিয়ায় বহু কাক্সিক্ষত বৈঠকে বসেন দেশটির প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইন ও উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উন। বৈঠক শেষে দক্ষিণ কোরীয় মুখপাত্র দুই পক্ষের বৈঠককে ‘বন্ধুত্বপূর্ণ ও আনন্দদায়ক’ আখ্যা দেন। এখন দুই দেশের শীর্ষ নেতা পৃথকভাবে মধ্যাহ্ন ভোজ করছেন। এর আগে দুই কোরিয়ার নেতারা দুইবার আলোচনায় বসলেও দুইবারই সেই আয়োজন হয়েছিল পিয়ংইয়ং এ। এবারের বৈঠকের পুরো পরিকল্পনা আগে থেকেই তৈরি করা হয়েছে। বৈঠক শেষে প্রেসিডেন্ট মুনের মুখপাত্র ইউন ইয়াং চ্যান বলেন, দুজনের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ ও আনন্দদায়ক আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিম জংকে নিজের প্রেসিডেনশিয়াল বাসভাবতে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন মুন। কিমও রাজি হয়েছেন। মুন আশা করছেন, এই সম্মেলনের কারণে ভবিষ্যতে পিয়ংইয়ংয়েও আলোচনার দ্বার উন্মুক্ত হবে। কিম জং বলেছেন, ‘এখন থেকে যেন মাঝে মাঝেই দেখা হয়।’
আনুষ্ঠানিতকা শেষে সকাল সাড়ে দশটায় শুরু হওয়া আলোচনা চলে মধ্যাহ্নভোজনের বিরতির আগ পর্যন্ত। বিরতিতে দুই নেতা নিজেদের দেশে ফিরে যাওয়ার কথা। ঐতিহাসিক বৈঠক শুরুর আগে দুই কোরীয় নেতা ফলপ্রসূ আলোচনার মধ্য দিয়ে নতুন অধ্যায় রচনার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। কিম জং উন দক্ষিণ কোরিয়ায় পা রাখার পর বৈঠককে ঘিরে নিজেদের আশাবাদের কথা জানান দুই নেতা। সাংবাদিকদের উদ্দেশে কিম ফলপ্রসূ আলোচনার মধ্য দিয়ে নতুন অধ্যায় রচনার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। বিপরীতে মুন কিমের সফরকে সামরিক ভেদরেখায় শান্তির বার্তা আখ্যা দিয়েছেন।
নিজ দেশে মধ্যাহ্নভোজনের পর বিকেলেই দুই নেতা দুই কোরিয়ার মাটি ও পানি ব্যবহার করে একটি পাইন গাছের চারা রোপণ করবেন। শান্তি ও সমৃদ্ধির প্রতীক হিসেবে বৃক্ষ রোপণের পর দ্বিতীয় দফা আলোচনায় বসবেন দুই নেতা। সম্ভাব্য চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে শেষ হবে আলোচনা। এরপর দুই নেতা দক্ষিণ কোরিয়ায় রাতের খাবারে অংশ নেওয়ার আগে একটি যৌথ বিবৃতি দেবেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ