ঢাকা, শনিবার 28 April 2018, ১৫ বৈশাখ ১৪২৫, ১১ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

তাড়াশে আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা লাঞ্ছিত উভয় পক্ষের অভিযোগ

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) সংবাদদাতা: তাড়াশ তালম ইউনিয়নের প্রত্যন্ত মানিকচাপড় গ্রামে লাঞ্ছিত বিসিএস পরীক্ষায় নতুন নিয়োগ পাওয়া আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম (২৮) থানায় মামলা করেছেন। পরিকল্পিতভাবে তার ওপর হামলা করা হয় বলে মামলার এজহারে উল্লেখ করেন তিনি। এদিকে অভিযুক্তরা অভিযোগ অস্বীকার করে উল্টো এ কর্মকর্তাকে দোষারোপ করেছেন। তাদের দাবি, মিথ্যে মামলা দিয়ে হয়রানি ও সামাজিকভাবে হেয় পতিপন্ন করার চেষ্টা করা হচ্ছে।
সম্প্রতি মানিকচাপড় গ্রামের শুকুর আলীর দোকানের সামনের এ ঘটনার বিষয়ে আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলামের বাবা ও মামলার বাদি তফাজ্জল হোসেন জানান, এ মাসের ১২ তারিখে মামলার ১নং আসামী সম্পদের ভাতিজা আইয়ূব আলীর গায়ে ভুলবশত হাত উঠায় তার ছেলে শরিফুল। পরে তিনি দু’জনকে ডেকে আপোষ করে দেন। এরপরও বিশেষ কোন কারণ ছাড়া কেন তার ছেলেকে লাঞ্ছিত করা হয়েছে তা বোধগম্য নয়।
সিরাজগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম জানান, হিংসা বশত পরিকল্পিতভাবে লাঞ্ছিত করা হয়েছে তাকে।
চিকিৎসাধীন শরিফুল ইসলাম শঙ্কামুক্ত রয়েছেন বলে জানিয়েছেন, হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক রোকন উদ্দিন।
মামলার ৪ আসামী মোস্তাফিজুর রহমান সম্পদ, আলামিন হোসেন, ইয়ামিন হোসেন ও ফজলুল বারিক বলেন, চাকরি ও পড়ালেখার সুবাদে তারা সকলেই ঢাকায় থাকেন। বয়োবৃদ্ধ বাবা-মার খোঁজ-খবর রাখেন সম্পদের ভাতিজা আইয়ুব আলী ও প্রতিবেশী নবীর উদ্দিন। বিশেষ করে একলা বাড়িতে তারা রাতের বেলায় ঘুমান। সম্পদের বাড়িতে থাকা নিয়ে আইয়ূব আলী ও নবীরকে হুমকী দেন শরিফুল ইসলাম। বলেন, “ওই বাড়িতে আড্ডা দিস ক্যান।”  তোদের নামের তালিকা করা হচ্ছে। ”
মানিকচাপড় বাজারে শুকুর আলীর দোকানের সামনে হুমকী প্রদর্শনের বিষয়ে শরিফুলকে জিজ্ঞেস করেন সম্পদ। শরিফুল রেগে গেলে দু’জনার মধ্যে ধস্তাধস্তি শুরু হয়। এ সময় শরিফুল ও সম্পদের বাবা হাজী ফজলার রহমান উভয়কেই থামানোর চেষ্টা করেন। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে দোকান ঘরের ওয়ালের সাথে লেগে শরিফুলের মাথা সামান্য কেটে যায়। এ ঘটনাকে পুঁজি করে মিথ্যে মামলা দিয়ে হয়রানি ও সামাজিকভাবে হেয় পতিপন্ন করার চেষ্টা করা হচ্ছে তাদের।
তাড়াশ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোস্তাফিজুন রহমান জানিয়েছেন, তদন্ত চলছে। আইনানুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ