ঢাকা, শনিবার 28 April 2018, ১৫ বৈশাখ ১৪২৫, ১১ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সাদুল্যাপুরে অবৈধ ইটভাটায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে গাভীর মৃত্যু

সাদুল্যাপুর (গাইবান্ধা) সংবাদদাতা: গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলায় ড্রাম চিমনীর নির্মিত অবৈধ হাটভাটার সংযোজিত অবৈধ বিদ্যুৎ তারে জড়িয়ে গৃহপালিত একটি গাভীর প্রাণ গেছে। বনগ্রাম ইউনিয়নের বদলাগাড়ী এলাকার এইচআরবি ব্রিক্স নামের ইটভাটায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে নানা উত্তেজনা বিরাজ করছে।
স্থানীয়রা জানান, সাদুল্যাপুর উপজেলার বদলাগাড়ী গ্রামের মৃত রুহুল আমিন ফকিরের ছেলে রোম আলী একই গ্রামের জনবসতি এলাকায় ইটভাটা স্থাপন করেন। পরিবেশ অধিদপ্তরের নিয়মনীতিকে তোয়াক্কা না করে ড্রাম চিমনী দিয়ে ইট প্রস্তুত কাজ চালিয়ে আসছে। এমন কী ওই ভাটার নামীয় বিদ্যুতের নিজস্ব কোনো মিটার না নিয়ে আবাসিক এলাকার প্রায় ৩শ গজ দুরের আঃ বারেক মিয়ার বাড়ি থেকে লাইন টেনে বিদ্যুৎ সংযোগ নেয়। ইটভাটার বিদ্যুতের সংযোজিত তাড়গুলো বিভিন্ন স্থানে এলোমোলো ও ঝুলন্ত অবস্থায় ছিল। ঝুঁকিপূর্ন এই বিদ্যুৎ লাইনে রোববার সকালে ওই গ্রামের শহিদুল ইসলাম এর পালিত গাভীটি ইটভাটার দিকে ছুটে যেতে ঝুলন্ত বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে গাভীটি মারা যায়।
গাভীর মালিক শহিদুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, নিহত গাভীটির মূল্যে প্রায় ৫০ হাজার টাকা হবে। যার ক্ষতিপুরণ চাওয়া হলে রাগান্বিত হয়ে উঠে রোম আলী।
অপর একটি সুত্র জানায়, অবৈধভাবে ইটভাটাটি স্থাপিত হওয়াও এলাকার পরিবেশ নষ্ট, ফল-ফসলের ক্ষতিসহ মানুষ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। ওই ইটভাটাটি অপসারণের জন্য ইতোপূর্বে সাদুল্যাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবের আবেদন করেও কোনো প্রতিকার পায়নি এলাকাবাসী। সংশ্লিষ্ঠ প্রশাসনের যোগসাজসে অবৈধ ইটভাটাটি চালানো হচ্ছে বলে একধিক সুত্রে জানা গেছে।
এ বিষয়ে ভাটা মালিক রোম আলী জানান, বিভিন্ন মাধ্যমকে ম্যানেজ করে ইটভাটার কাজ চালানো হচ্ছে। বিদ্যুতের জন্য নিজস্ব মিটার নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ঠ বিভাগে আবেদন করা হয়েছে। স্থানীয় কিছু স্বার্থন্বেষী লোক আমার সাথে ইর্শ্বান্বিত হয়ে আমার ব্যবসা ঘাটতি করার চেষ্ঠা করে আসছে।    
সাদুল্যাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রহিমা খাতুন জানান, গত ছয় মাস আগে স্থানীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ইটভাটা মালিক রোম আলীকে নোটিশ প্রদান করা হয়েছিল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ