ঢাকা, শনিবার 28 April 2018, ১৫ বৈশাখ ১৪২৫, ১১ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শ্বশুরবাড়ি থেকে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার ॥ পরিকল্পিত হত্যার অভিযোগ স্বজনদের

কুমিল্লা দক্ষিণ সংবাদদাতা: কুমিল্লায় শ্বশুড়বাড়ি থেকে এক গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
গত সোমবার সকালে জেলার বরুড়া উপজেলার কাকৈরতলা গ্রাম থেকে ফেরদৌসি আক্তার (২০) নামের ওই গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করা হয়। ফেরদৌসি আক্তার ওই গ্রামের কাউসার পাটোয়ারির স্ত্রী।
এ দম্পতির আড়াই মাস বয়সী একটি পুত্র সন্তান রয়েছে বলে জানা গেছে। এদিকে, গৃহবধূ ফেরদৌসি আক্তারের মৃত্যুকে তার শ্বশুর বাড়ির লোকজন আত্মহত্যা বললেও তা মানতে নারাজ স্বজনরা। পরিকল্পিতভাবে হত্যার পর ফেরদৌসির লাশ ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তারা।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দেড় বছর আগে বরুড়া ভাউকসার ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের আবুল কালামের মেয়ে ফেরদৌসি আক্তারের বিয়ে হয় কাকৈরতলা গ্রামের কাউসার পাটোয়ারির সঙ্গে। বিয়ের পর থেকে তাদের মধ্যে নানা বিষয় নিয়ে পারিবারিক কলহ লেগেই থাকতো।
আড়াই মাস পূর্বে ফেরদৌস-কাউসার দম্পতির একটি পুত্র সন্তান হয়। কিন্তু তারপরও বন্ধ হয়নি কলহ। এর মধ্যে  সোমবার সকালে ফেরদৌসির ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।
তবে ফেরদৌসির স্বজনদের অভিযোগ, যৌতুকের দাবিতে শ্বশুড়বাড়ির লোকজন তার সঙ্গে ঝগড়া করতেন। এ জন্য প্রায়ই তারা ফেরদৌসির ওপর শারীরিক নির্যাতন চালাতেন।
এ বিষয়ে ফেরদৌসির ভাই সাইদি মিয়া বলেন, আমার বোনকে ৭-৮ মাস আমাদের বাড়িতে আসতে দেওয়া হয়নি। তারা নানাভাবে তার ওপর মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করতেন। প্রায়ই আমার মাকে ফোন করে আমার বোন কান্নাকাটি করে এসব কথা বলতেন। তারা আজ সোমবার সকালে আমাদের বাড়িতে ফোন দিয়ে বলছে, আমার বোন আত্মহত্যা করেছে।
আমার বোনকে তারা পরিকল্পনা করে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রেখেছে।
বরুড়া থানার ওসি আজম উদ্দিন মাহমুদ বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। লাশ উদ্ধার ও ময়নাতদন্ত শেষে জানা যাবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ