ঢাকা, রোববার 6 May 2018, ২৩ বৈশাখ ১৪২৫, ১৯ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কাঠুয়া হত্যাকান্ডের আইনজীবীর পাশে দাঁড়ালেন এমা ওয়াটসন

৫ মে, হিন্দুস্তান টাইমস : কাঠুয়ায় ধর্ষণ ও হত্যার শিকার আফিফার হয়ে আইনি লড়াই চালানো আইনজীবী দীপিকা সিংহ রাজাওয়াত’র পাশে দাঁড়িয়ে এবার টুইটারে সরব হলেন ব্রিটিশ অভিনেত্রী এমা ওয়াটসন। দীপিকার একটি ছবি টুইট করে হ্যারি পটার খ্যাত এ অভিনেত্রী লিখেন, ‘অল পাওয়ার টু দীপিকা সিংহ রাজাওয়াত।’

কাঠুয়ার নির্যাতিতার পরিবারের পাশে দাড়ানোয় ইতিমধ্যেই যথেষ্ট হয়রানির মুখে পড়তে হয়েছে দীপিকাকে। যেকোন সময় খুন হতে পারেন বলে আশঙ্কাও করছেন তিনি। দীপিকাকে নিয়ে এমার টুইটটি ভারতে আলোচনার বিষয়ে পরিণত হয়েছে। এর আগেও নারী অধিকার আর সম্মানরক্ষা নিয়ে একাধিবার সরব হয়েছেন এমা। দীপিকার ছবি টুইটের পরে এমার প্রশংসা করেছেন সবাই। তবে জুটেছে সমালোচনাও। টুইটারে একজন লিখেছেন, ‘এই মামলাটিকে সমর্থন করার আগে আপনাকে এর পিছনে ষড়যন্ত্র আর রাজনীতিটা বুঝতে হবে।’

এদিকে, কাঠুয়া হত্যাকান্ডের মূল অভিযুক্ত সঞ্জি রাম শনিবার সুপ্রিম কোর্টে মামলাটি সিবিআইয়ের হাতে তুলে দেওয়ার আবেদন জানিয়েছেন। তাঁর দাবি, তিনি এই ঘটনায় কোনও ভাবেই জড়িত নন। সিবিআই-ই আসল দোষীদের ধরে শাস্তি দিতে পারবে। মামলাটি কাঠুয়া থেকে চন্ডীগড়ে সরানোতেও আপত্তি রয়েছে তার। তার দাবি, সাক্ষীদের নিয়মিত কাঠুয়া থেকে চন্ডীগড়ের আদালতে গিয়ে হাজিরা দেওয়া কঠিন হবে। একই সঙ্গে দীপিকাকে নিরাপত্তা দেওয়া নিয়েও আপত্তি তুলেছেন সঞ্জি রাম।

ফ্রান্সে ইসলাম বিদ্বেষী লেখককে ৫ হাজার ইউরো জরিমানা

৫ মে, পার্স টুডে : ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের একটি আপিল আদালত ইসলাম বিদ্বেষী বক্তব্য ও ধর্মীয় বিদ্বেষ উসকে দেয়ার অপরাধে দেশটির একজন বিতর্কিত লেখককে ৫,০০০ ইউরো জরিমানা করেছে।

বিতর্কিত লেখক এরিক জেমোর ২০১৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর টেলিভিশনের এক লাইভ টক শোতে বলেছিলেন, ফ্রান্সে বসবাসরত মুসলমানদেরকে ইসলাম অথবা ফ্রান্স এ দু’টির একটিকে বেছে নিতে হবে। তার এ বক্তব্য মুসলমানদেরকে প্রচ- ক্ষুব্ধ করে তোলে। প্যারিসের আপিল আদালত তার এ বক্তব্যকে বৈষম্যমূলক বলে রায় দিয়েছে। ওই টেলিভিশন অনুষ্ঠানে জেমোর দাবি করেছিলেন, ফ্রান্সের বড় শহরগুলোতে বসবাসকারী মুসলিম নারীরা হিজাব পরে রাস্তায় বের হওয়ার মাধ্যমে প্রকারান্তরে ফরাসি সমাজের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করছেন। তিনি আরো দাবি করেন, মুখে স্বীকার করুক আর নাই করুক সব মুসলমান সন্ত্রাসীদেরকে ভালোবাসে।

এর আগে ২০১১ সালে আফ্রিকার কৃষ্ণাঙ্গদের বিরুদ্ধে এক মন্তব্য করে আদালতে হাজিরা দিতে বাধ্য হয়েছিলেন ফ্রান্সের এ বিতর্কিত লেখক। সে সময় তিনি বলেছিলেন, ফ্রান্সে মাদক চোরাকারবারীদের বেশিরভাগই হয় কৃষ্ণাঙ্গ আর না হয় আরব জনগোষ্ঠী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ