ঢাকা, সোমবার 7 May 2018, ২৪ বৈশাখ ১৪২৫, ২০ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

স্বনির্ভর দেশ গড়তে মেধাবীদের এগিয়ে আসতে হবে -শিবির সভাপতি

গতকাল রোববার ইসলামী ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগরী উত্তরের উদ্যোগে এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্তদের তাৎক্ষণিক সংবর্ধনা প্রদান অনুষ্ঠানে শিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইয়াছিন আরাফাতসহ নেতৃবৃন্দের মাঝে কৃতি শিক্ষার্থীদের একাংশ -সংগ্রাম

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইয়াছিন আরাফাত বলেছেন, বর্তমান বাংলাদেশে  নৈতিকতা ও যোগ্যতাসম্পন্ন নেতৃত্বের বড় অভাব। আর এই অভাবই দেশকে কাক্সিক্ষত মানে পৌঁছাতে দিচ্ছে না। তাই দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে নৈতিকতাসম্পন্ন ক্যারিয়ার গঠনের মাধ্যমে স্বনির্ভর দেশ গড়তে মেধাবীদের এগিয়ে আসতে হবে।
গতকাল রোববার ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগরী উত্তর শাখার আয়োজিত এসএসসি, দাখিল ও সমমান পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত এবং উত্তীর্ণদের তাৎক্ষণিক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মহানগরী সভাপতি জামিল মাহমুদের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি আজিজুল ইসলাম সজিবের পরিচালনায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মহানগরী অর্থ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান, অফিস সম্পাদক মাহমুদ মুরাদ ও শিক্ষা সম্পাদক আব্দুর রহিমসহ মহানগরীর বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ।
শিবির সভাপতি মেধাবীদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, আজকে তোমাদের এই সাফল্যে অবিভাবক ও শিক্ষকদের সাথে আমরাও আনন্দিত। একটি ছাত্র সংগঠন হিসেবে আমরা তোমদের নিয়ে স্বপ্ন দেখি একটি ক্ষুধা, দারিদ্র, দুর্নীতিমুক্ত ইনসাফ ভিত্তিক সুন্দর দেশ গড়ার। বহু ত্যাগের বিনিময়ে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি। কিন্তু স্বাধীনতার প্রকৃত সুফল জাতি এখনো ভোগ করতে পারেনি। বরং দেশে বিভক্তির রাজনীতি, অব্যাহত দুর্নীতি, গুম, খুন, জুলুম নির্যাতন ও অপশাসনে স্বাধীনতার অর্জনকে ম্লান করে দিয়েছে। জাতির এ দুর্ভাগ্যের মূল কারণ হচ্ছে অযোগ্য ও নৈতিকতাহীন নেতৃত্ব। আর দুঃখজনকভাবে শিক্ষিতরাই দূর্নীতিসহ সকল অপরাধে প্রধান ভূমিকা পালন করছে। জাতির জন্য অনাকাঙ্খিত সত্য যে প্রায় প্রতিটি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসের অনৈতিক চর্চা করছে একটি শ্রেণী। এ নীতিহীন প্রক্রিয়ায় মেধাবীদের অবমূল্যায়ন করছে। যা আমাদেরকে বার বার হতাশ করে দিচ্ছে। এক্ষেত্রে মেধাবীদের গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে। মেধাবীরা সক্রিয় ভূমিকা পালন করলে এ অশুভ শক্তি টিকে থাকতে পারবে না। সব কিছুর পরও আজকের মেধাবীদের এমন গৌরবময় সাফল্য জাতিকে আশান্বিত করেছে। মেধাবীরা যদি নৈতিকতা ও মেধার সমন্বয় ঘটিয়ে এগিয়ে যায় তাহলে দেশের এ দুরবস্থা কাটিয়ে উঠতে বেশি সময় লাগবে না।
তিনি আরো বলেন, আজকের এ সাফল্য জাতির প্রত্যাশা আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। জাতির প্রত্যাশা পূরণে মেধাবীদের বুদ্ধিমত্তার সাথে পথ চলতে হবে। আগামী দিন গুলোতে নানা পথের হাত ছানি আসবে। ছাত্রদেরকে দৃষ্টি রাখতে হবে কারা সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজি করছে। ছাত্রশিবির দেশের ছাত্রসমাজকে সাথে নিয়ে মেধা ও নৈতিকতার সমন্বয় ঘটিয়ে দেশ পরিচালনার উপযোগী এক দল মানুষ গড়তে চায়। ছাত্রশিবির বিশ্বাস করে একজন মুসলমানকে দুনিয়া ও আখিরাত উভয় ক্ষেত্রেই সফল হতে হবে। তাই কোরআনের আলোকে মেধাবী ও নৈতিকতা সম্পন্ন নাগরিকের অভাব পূরণ করতেই ছাত্রশিবির তার প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। ছাত্রশিবির এ প্রচেষ্টার মাধ্যমে জাতিকে অনেক মেধাবী ও নৈতিকতা সম্পন্ন নাগরিক উপহার দিতে সক্ষম হয়েছে। জাতির প্রত্যাশা পুরণে আমাদেরকে আরও বহু পথ পাড়ি দিতে হবে। আর তার জন্য আজকের মেধাবীদেরকেই অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।
তিনি এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত এসএসসি, দাখিল ও সমমান পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ও মেধাবী সকল শিক্ষার্থীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান ও মিষ্টিমুখ করান। প্রেসবিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ