ঢাকা, সোমবার 7 May 2018, ২৪ বৈশাখ ১৪২৫, ২০ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নীলকর জমিদারদের প্রধান ঘাঁটি কুষ্টিয়া অঞ্চলে দাদন নিয়ে প্রজারা নীল চাষ করতো

কুষ্টিয়ার নীলকুঠি

কুষ্টিয়া সংবাদদাতা : ঊনবিংশ শতাব্দীর শুরুতে কুষ্টিয়া জেলায় কয়েকজন নীলকর জমিদারী ক্রয় করেছিলেন। নীলকর ইংরেজগণ জোরপূর্বক প্রজাদের দাদন দিয়ে নীল চাষ করাতো। জন এন্ড ওয়াটসন কোম্পানীর কুষ্টিয়া কুমারখালী ও খোকসায় কয়েক শত বর্গমাইল এলাকায় জমিদারী ছিল। এ অঞ্চলে সবচাইতে উৎকৃষ্ট মানের নীল চাষ হওয়ায় জমিদাররা প্রজা সাধারণকে দিয়ে জোরপূর্বক নীল চাষ করাতো। এ নীল আবাদের জন্য জমিদার, নীলকর, জোতদার প্রভৃতি সামন্ত প্রভূরা প্রজা জনসাধারণের উপর অকথ্য অত্যাচার চালাতো। প্রজার জমির উপর কোন অধিকার ছিলনা। জমিদারগণ বাকী খাজনার জন্য প্রজাদের বসতবাড়ী থেকে উচ্ছেদ করতো। কাচারীতে ধরে এনে নির্যাতন করে হত্যা করলেও তার কোন বিচার হতো না। নীল চাষ লাভজনক হওয়ায় তারা প্রজাদের উপর এ অকথ্য নির্যাতন চালাতো।
১৭৭৪ সালে লুই বান্নো নামক এক ফরাসী যুবক বাংলাদেশে প্রথম নীল চাষ শুরু করে। পরের বছর ক্যাবল ব্লুম ইংরেজ প্রথম নীলকুঠি স্থাপন করেন। কুষ্টিয়া অঞ্চলে নীলচাষে ব্যাপক ফলন ও লাভজনক হওয়ায় ১৮১৫ সালের মধ্যে কুষ্টিয়াসহ সারা দেশে নীল কুঠি স্থাপিত হয়ে যায়। নীল গাছ ছিল পাট গাছ বা ভাং গাছের মত। ৪/৫ ফুট লম্বা এ গাছটি বছরে ২ বার উৎপন্ন হতো। একবার বৈশাখ জ্যৈষ্ঠ মাসে ও আরেক বার আশ্বিন কার্তিক মাসে বপন করা হতো। তা কেটে হাউসে পঁচিয়ে পানি জ্বালিয়ে নীল রং তৈরি করা হতো। বাংলাদেশে বছরে ২০ লাখ ৪০ হাজার একর জমিতে প্রায় ১২ লাখ ৮০ হাজার মন নীল উৎপন্ন হতো। চাষীদের এক বিঘা জমিতে আড়াই সের তিন সের নীল উৎপন্ন হতো। যার খরচ হতো ১২ টাকা। অথচ চাষীরা কুঠিয়ালদের কাছ থেকে পেত মাত্র এক টাকা থেকে ৩ টাকা।এ কারণে চাষীরা নীল চাষ করতে চাইতো না। ইংরেজ কুঠিয়াল এবং সরকার চাষীদের উপর প্রায় দেড়’শ বছর ধরে অমানুষিক নির্যাতন করেছে। ইংরেজ নীলকরগণ কুষ্টিয়া জেলায় চাষীর জমি জোরপূর্বক দাদন লিখিয়ে কোন টাকা না দিয়ে তাদের গরু-লাঙ্গল দ্বারা নীল চাষ করিয়ে তাদের দ্বারা কেটে পঁচিয়ে নীল তৈরি করে নিয়েছে। অবাধ্য চাষীদের অপহরণ করে হত্যা করতো। যার কোন সংবাদ পাওয়া যেত। কুষ্টিয়া জেলায় কয়েকজন নীলকর হলো টি আই কেনী, ফারগুসন, ক্রফোর্ড, ষ্টিভেনসন, সিমসন, সেস, শেলী, ওয়াটস, হেমিল্টন প্রমুখ।  নীলকরদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে দীর্ঘকালের অনাচার অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে ১৮৬০ সালে বিদ্রোহী হয়ে ওঠে। যেটা নীল বিদ্্েরাহে রূপ নেয়।  টমাস আইভান কেনীর অত্যাচারে কুমারখালীর শালঘর মধুয়ার শেখ ও মৃধা দুটি পরিবার এবং পাশ্বর্তী কয়েকটি গ্রামের বহু পরিবার ভিটে মাটি ছেড়ে দেশ ত্যাগ করে। এ সকল কারণে মানুষের ধৈর্য্যের বাধ ভেঙে যায়। চাষীদের এসব অত্যাচারের প্রতিবাদে বেরিয়ে আসেন জমিদার প্যারী সুন্দরী।  প্যারীসুন্দরী, নীল বিদ্রোহের অবিস্মরণীয় চরিত্র। স্বদেশ প্রেমের অনির্বান শিখাসম এক নাম। অবিভক্ত বাংলার নদীয়া জেলার (বর্তমান কুষ্টিয়ার) মিরপুর উপজেলার সদরপুরের জমিদার রামানন্দ সিংহের কনিষ্ঠ কন্যা। আজীবন লড়েছেন মাটি ও মানুষের পক্ষে, দেশমাতৃকার স্বার্থে। অত্যাচারী নীলকরের বিরুদ্ধে গ্রামের সাধারণ মানুষ ও লাঠিয়ালদের নিয়ে তাঁর সংগ্রাম কিংবদন্তিতুল্য। প্রতিপক্ষ ছিল নীলকর টমাস আইভান কেনি, সংক্ষেপে টি আই কেনি। ফার্গুসন, শেলি ক্রফোর্ড, স্টিফেনসন, সিম্পসন প্রমুখ অত্যাচারী নীলকরের মধ্যে সর্বাপেক্ষা ভয়ংকর নাম।
নীল কমিশনের সাক্ষ্যে বারাসাতের ম্যাজিস্ট্রেট অ্যাসলি ইডেন বলেছিলেন, ‘খুন, জখম, দাঙ্গা, ডাকাতি, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ, মানুষ চুরি প্রভৃতি এমন কোনো অপরাধ নেই, যা নীলকরেরা করেনি।’ কেনির অত্যাচার ছিল এদের চেয়েও মাত্রাতিরিক্ত। যার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান প্যারী সুন্দরী। কেনির কাচারি ছিল কুষ্টিয়া শহরের বেকিদালানে, কুঠি ছিল অনতিদূর শালঘর মধুয়ায়। প্যারী সুন্দরীর দেশপ্রেম, প্রজাহিতৈষণার বিপরীতে কেনির অন্যায়, অত্যাচার ও নির্যাতনের কাহিনী ঐতিহাসিক গ্রন্থসমূহে দেখা যায়। হরিশচন্দ্র মুখোপাধ্যায় সম্পাদিত দ্য হিন্দু পেট্রিয়ট পত্রিকায়ও এ-সংক্রান্ত খবর প্রকাশিত হয়েছে। সবিশেষ রয়েছে মীর মশাররফ হোসেনের উদাসীন পথিকের মনের কথায়। প্যারী সুন্দরীর সাহস, বুদ্ধিমত্তা ও দেশপ্রেমের দৃষ্টান্ত ওই গ্রন্থে উদ্ধৃত হয়েছে এভাবে, ‘আমার লাঠীয়াল কুঠি লুট করিয়াছে, দশজনের মুখে এ কথা শুনিয়া আমার সুখবোধ হইতেছে। আমি বাঙ্গালীর মেয়ে, সাহেবের কুঠী লুটিয়া আনিয়াছি, ইহা অপেক্ষা সুখের বিষয় আর কি আছে!’ নীলকর কেনি ও জমিদারকন্যা প্যারীসুন্দরীর লড়াই ছিল নাটকীয়তায় পূর্ণ, যা কল্পনার গল্প-উপন্যাস-নাটকের কাহিনীকেও হার মানায়। ধূর্ততা, শঠতার ফাঁদের বিপরীতে বীরোচিত প্রজ্ঞা ও নৈপুণ্যে মাথা উঁচু করে দেশের জন্য সর্বস্ব দিয়ে নিজেকে উৎসর্গ করার ব্রত, বাংলার নীল বিদ্রোহের ইতিহাসে স্বদেশ প্রেমের অনির্বান শিখার মর্যাদা পেয়েছে। প্রজাবান্ধব প্যারীসুন্দরীর জীবন ও কর্ম দেশপ্রেমে উজ্জীবিত করার মতো, অগ্নিমন্ত্রে দীক্ষিত হওয়ার মতো। যেমন, ‘যে ব্যক্তি যে কোন কৌশলে কেনীর মাথা আমার নিকট আনিয়া দিবে, এই হাজার টাকার তোড়া আমি তাঁহার জন্য বাঁধিয়া রাখিলাম।...ধর্ম্ম সাক্ষী করিয়া বলিতেছি, সদরপুরের সমুদয় সম্পত্তি কেনীর জন্য রহিল।... দুরন্ত নীলকরের হস্ত হইতে প্রজাকে রক্ষা করিতে জীবন যায়, সেও আমার পণ। আমি আমার জীবনের জন্য একটুকুও ভাবি না। দেশের দুর্দ্দশা, নিরীহ প্রজার দুরবস্থার কথা শুনিয়া আমার প্রাণ ফাটিয়া যাইতেছে।’ প্যারীসুন্দরীর সঙ্গে সর্বস্ব হারানো জনগণের সর্বাত্মক অংশগ্রহণ ছিল। প্রতি বিঘা জমিতে নীল চাষে খরচ হতো ১০ টাকা, অথচ নীলকরেরা মূল্য দিত সাড়ে তিন টাকা। নদীয়ায় ১৭ হাজার ৬০০ বিঘা জমিতে ৭০০ মণ নীল উৎপন্ন হতো। এর মধ্যে কুষ্টিয়া ছিল প্রথম, যার নেপথ্য ক্রীড়নক ছিলেন নীলকর টি আই কেনি।
প্রসঙ্গত, ঐতিহাসিক বিনয় রায় তাঁর বাংলার সামাজিক ইতিহাসের ধারা গ্রন্থে উল্লে¬খ করেছেন, ১৭৭০ থেকে ১৭৮০ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে ল্যুই বোনদ অবিভক্ত বাংলায় প্রথম নীল চাষ শুরু করেন।’ ক্যারল ব¬ুম স্থাপন করেন প্রথম নীলকুঠি। পরবর্তী সময়ে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির সনদে ইউরোপীয়ানরা এ দেশে জমি কেনা ও নীল চাষের অনুমতি পায়।
কেনি ও প্যারী সুন্দরীর বিরোধের সূত্রপাত বাড়ল-পোড়াদহ অঞ্চলের ধানের জমিতে জোরপূর্বক নীল চাষ করা নিয়ে। অত্যাচারে অতিষ্ঠ কৃষক, প্রজা, চাষিরা প্যারী সুন্দরীর কাছে দিনের পর দিন প্রতিকারের জন্য নালিশ জানায়। তিনি নায়েব রামলোচনকে লাঠিয়াল বাহিনী নিয়োগ ও আক্রমণের পরামর্শ দেন। কেনির বাহিনীর কাছে তারা পরাজিত হয়। ভাড়ল কুঠি লুণ্ঠিত হয়। কেনির অত্যাচার বৃদ্ধি পায়। প্যারীসুন্দরী নতুন অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে কেনির কুঠিতে আক্রমণ করে। কেনি কুঠিতে না থাকায় প্রাণে বেঁচে যান। মিসেস কেনি অজস্র কাঁচা টাকা ছড়িয়ে দিয়ে প্যারী সুন্দরীর লাঠিয়ালদের হাত থেকে নিজেকে রক্ষা করেন। কেনি প্যারী সুন্দরীর বিরুদ্ধে কুঠি লুটের মামলা করেন। ভীত না হয়ে উল্টো, গর্ববোধ করেন প্যারী সুন্দরী। কেনির মাথার জন্য পুরস্কার ঘোষণা করেন এবং মিসেস কেনিকে বালা পরিয়ে বাঙালি বধূ সাজানোর অঙ্গীকার করেন। ক্ষিপ্ত হন কেনি। ঘোষণা করেন, যে প্যারী সুন্দরীকে তাঁর কাছে এনে দিতে পারবে, তাকে তিনি এক হাজার টাকা পুরস্কার দেবেন এবং প্যারী সুন্দরীকে গাউন পরিয়ে মেম সাজিয়ে তাঁর কুঠিতে রাখবেন। শুরু হয় পাল্টাপাল্টি পুরস্কার ঘোষণা ও আক্রমণ। আবারও কেনির কুঠিতে আক্রমণ করে প্যারী বাহিনী। চতুর কেনি পালিয়ে বাঁচেন। ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশও প্রাণে রক্ষা পায়। দারোগা মোহাম্মদ বক্স খুন হন। আবারও প্যারী সুন্দরীর বিরুদ্ধে মামলা হয়। প্রহসনের বিচারে যাবতীয় জমিদারি ইংরেজ সরকার অধিকার করে। গরিব কৃষক, চাষি ও প্রজা নিয়ে অকূলে পড়েন প্যারী সুন্দরী। রায়ের বিরুদ্ধে মামলা করে জমিদারি ফেরত পান। কিন্তু তখন তিনি ঋণের ভারে জর্জরিত, ফলে জমিদারির বিরাট অংশ পত্তনি বন্দোবস্ত করে দেন।  ড. আবুল আহসান চৌধুরী ‘প্যারী সুন্দরী নীল বিদ্রোহের বিস্মৃত নায়িকা’ শিরোনামে এক লেখায় উলে¬খ করেছেন, ‘প্যারী সুন্দরী প্রজাদরদি, স্বদেশপ্রাণ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনায় লালিত এক অসামান্য জননেত্রী।’ অত্যাচারী কেনি নিজেই স্বীকার করেছেন, প্যারী সুন্দরী সব দিক থেকেই তাঁর চেয়ে অগ্রগামী ছিলেন। তাঁর সাহস ও দেশপ্রেমের কাছে তিনি ভীতসন্ত্রস্ত ও শঙ্কিত ছিলেন। যেমন- ‘স্ত্রী লোকের মধ্যে প্যারীসুন্দরীর নাম করিতেও ভয় হয়।’
প্রজাদরদি, মানবহিতৈষী, দেশপ্রেমিক প্যারী সুন্দরী সমকালে বিস্মৃত এক নাম। বিপরীতে টি আই কেনি বর্বর অত্যাচারের প্রতিভূ। কুষ্টিয়া শহরের বেকি দালানের রাস্তাটি লোকমুখে এখনও কেনি রোড নামে পরিচিত। এই বেঁচে থাকা শ্রদ্ধা, ভয় না ঘৃণার, সেটি প্রশ্নসাপেক্ষ।
স্মরিত হোক কিংবা না হোক, প্যারীসুন্দরী নীল বিদ্রোহের ইতিহাসে সংযোজন করেছেন স্বদেশপ্রেমের অনির্বান শিখা। যে ইতিহাসের ব্যাপ্তিকাল ১৮৪৯ থেকে ১৮৬০ সাল পর্যন্ত। এসব আন্দোলনের ফলে বৃটিশ সরকারের দৃষ্টিগত হয়। এসব বাস্তব অবস্থা পর্যবেক্ষণের জন্য তদানীন্তন লেফটেন্যান্ট গভর্নর স্যার জন পিটার গ্রান্ট কুষ্টিয়ায় আসেন। তিনি কুমার নদী দয়ে কুষ্টিয়ায় আসার সময় তার জাহাজের সামনে চাষীরা ঝাঁপ দিয়ে জাহাজ থামান। এলাকার চাষীরা নীল চাষ বন্ধে তার হস্তক্ষেপ কামনা করেন। তার উদ্যোগে পানায় চাষীদের নিয়ে বিশাল সম্মেলন হয়। লেফটেন্যান্ট গভর্নর স্যার জন পিটার গ্রান্ট ওই সম্মেলনে অন্যান্য ফসলের মত নীল চাষ করা আর না করা চাষীদের ছেড়ে দিয়ে চাষীদের এ অভিশপ্ত জীবন থেকে রক্ষা করেন। কেহ জোরপূর্বক চাষীদের নীল চাষ করালে কঠোরভাবে শাস্তি দেবেন বলেও ঘোষণা দেন। এ ঘোষণার পর থেকে চাষীরা নীল গাছ কেটে কালীগঙ্গা ও কুমারনদীতে নিক্ষেপ করেন। এই সংগ্রামের ধারাবাহিকতায় ধানের জমিতে জোরপূর্বক নীল চাষে বাধ্য করার নীতি থেকে সরে দাঁড়ায় ইংরেজ সরকার। পরের বছর কুষ্টিয়াকে দেয়া হয় মহকুমার মর্যাদা। শুধু নামে নয়, চিরকুমারী প্যারী সুন্দরী জীবন ও কর্মেও ছিলেন দেশপ্রেমের এক অনন্য প্রতীক।  অপরদিকে কুষ্টিয়ার চুয়াডাঙ্গা মহকুমায় নীল কুঠির সংখ্যা ছিল প্রচুর। জমিদাররা এলাকার মানুষকে জোর করে এসব নীল চাষ করাতো। নীল কুঠির সাহেবরা সুদীর্ঘ কাল নীল চাষীদের উপর অকথ্য নির্যাতন চালাতো। তারা তাদের এ নীল ব্যবসাকে ধরে রাখার জন্য এ মহকুমাকে ৬টি ভাগে ভাগ করে। এ এলাকাতেও তাদের আধ্যিপত্য গড়ে তোলে নিরীহ চাষীদের উপর অত্যাচার চালাতো। এসব অত্যাচারের বিরুদ্ধে রুখে দাড়ান সে সময়কার তেজস্বীনী ব্যক্তি মহেষচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়। তার পিতা রাম সুন্দর চট্টোপাধ্যায় গোঁসাই দূর্গাপুর নীলকুঠির দেওয়ান ছিলেন। মহেষচন্দ্র পাঠশালায় লেখাপড়া শেষ করে একজন মৌলভীর নিকট আরবী, ফারসী শিক্ষা গ্রহণ করেন। পরে তিনি নীল কুঠিতে চাকুরী গ্রহণ করেন। কিন্তু নীলকরদের অমানুষিক নির্যাতন দেখে তিনি চাকুরী ছেড়ে দেন। এ সময় কিছুদিন দিনবন্ধু কৃষ্ণনাথের অনুরোধে তাদের“বাহার বন্ধ”পরগণার নায়েব হয়েছিলেন। তার সহয়োগিতায় অনেকেই প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলেন। তিনি অনেক দরিদ্র ছাত্রদের লেখাপড়া শিখিয়েছিলেন। তার সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলেন গোঁসাই দূর্গাপুরের বিচারপতি দ্বারকানাথ মিত্র। নীলকর সাহেবদের অত্যাচারের হাত থেকে অসহায় কৃষকগণকে রক্ষা করার অপরাধে নীলকররা তার বিরুদ্ধে একের পর এক মিথ্যা মামলা দেন। এতে তিনি সর্বশান্ত হয়ে যান। ১৮৬২ সালের জানুয়ারীতে মহেষচন্দ্র পরলোকগমন করেন। কুষ্টিয়ার নীল আন্দোলনে তার অবদান চির স্মরণীয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ