ঢাকা, শনিবার 12 May 2018, ২৯ বৈশাখ ১৪২৫, ২৫ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আওয়ামী লীগ পুলিশ লেলিয়ে ধানের শীষের বিজয় ছিনিয়ে নিতে চায় -মেয়র প্রার্থী মঞ্জু

খুলনা অফিস : খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত ও ২০ দলীয় জোট সমর্থিত মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেছেন, বিএনপিকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়ে পুলিশ লেলিয়ে দিয়ে গণগ্রেফতার ও তল্লাশির নামে তান্ডব চালিয়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে আওয়ামী লীগ। কিন্ত কোন ধরনের হুমকি ও ভীতির কাছে বিএনপির কর্মীরা নতিস্বীকার করবেনা। জনগণকে সাথে নিয়ে ভোট কেন্দ্র পাহারা দিয়ে ফলাফল বুঝে তবেই ঘরে ফিরবে তারা। তিনি বলেন, রাষ্ট্রীয় সম্পদ ও ব্যাংক বীমা লুটের হাজার কোটি টাকায় বহিরাগত সন্ত্রাসী ক্যাডার নগরে আমদানী করে তারা নৌকার ভোট চাচ্ছে। কিন্ত নৌকার পালে বাতাস লাগাতে ব্যর্থ হয়ে বেসামাল হয়ে পড়েছে। বিএনপির ওয়ার্ড কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদক, ধানের শীষের পোলিং এজেন্ট, ভোট কেন্দ্রের দায়িত্বশীল নেতাদের গ্রেফতার করেও আমাদের বিজয় ঠেকানো যাবেনা। তিনি ১৫ মে সবাইকে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে সাহসিকতার সাথে ধানের শীষে ভোট দেয়ার আহবান জানান। গতকাল শুক্রবার সকালে নগরীর বিভিন্ন জনবহুল এলাকায় গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণকালে মেয়র প্রার্থী মঞ্জু এ আহবান রাখেন। সকালে তিনি সোনাডাঙ্গা ময়লাপোতা হরিজন পল্লী থেকে গণসংযোগ শুরু করেন। এরপর নিউ মার্কেট কাঁচা বাজার, বানরগাতি বাজার, ইসলাম কমিশনারের মোড়, সোনাডাঙ্গা বাস স্ট্যান্ড ও সংলগ্ন এলাকায় ব্যাপক ও সর্বাত্মক গণসংযোগ করেন।
এ সময় তার সাথে বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ প্রচার সম্পাদক কৃষিবীদ শামীমুর রহমান শামীম, বিজেপির নগর সভাপতি এডভোকেট লতিফুর রহমান লাবু, সাধারণ সম্পাদক সিরাজউদ্দিন সেন্টু, মহানগরী জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি এডভোকেট শাহ আলম, বিএনপি নেতা ফখরুল আলম, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম বাবু, শফিকুল আলম তুহিন, আজিজুল হাসান দুলু, ইশতিয়াক হোসেন লাভলু, সাজ্জাদ আহসান পরাগ, এস এম শাহজাহান, অধ্যাপক মনিরুল হক বাবুল, শরিফুল ইসলাম বাবু, নুুরুল হুদা খান বাবু, সরদার রবিউল ইসলাম রবি, ফারুক হোসেন, কাজী নজরুল ইসলাম, মেহেদী হাসান সোহাগ, মুসা হোসেন খান, হেদায়েত হোসেন হেদু, এডভোকেট কামরুন্নাহান হেনা, আসাদুল্লাহ আসাদ, তরিকুল ইসলাম বাশার, অহেদুজ্জামান খোকন প্রমুখ।
খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত ও ২০ দলীয় জোট সমর্থিত মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু নগরীর ১৯ নং ওয়ার্ডের তেতুলতলা মোড় বিএনপি অফিস থেকে গণসংযোগ, লিফলেট বিতরণ ও ধানের শীষ প্রতীকে ভোট চান। সেখান থেকে আলিশান মোড়, শাহবাড়ি মোড়, ন্যাশনাল স্কুল মোড়, গাবতলা মোড়, গোবরচাকা, নবপল্লী ও বসুপাড়ায় গণসংযোগে যান। এসময় তার সাথে সিনিয়র আইনজীবী এডভোকেট বজলুর রহমান, জেপি (জাফর) মহানগর সভাপতি মোস্তফা কামাল, বিজেপি’র নগর সম্পাদক সিরাজউদ্দিন সেন্টু, মুসলিম লীগ সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আক্তার জাহান রুকু, খেলাফত মজলিসের নগর সম্পাদক মাওলানা নাসির উদ্দিন, জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি এডভোকেট শাহ আলম, কাজী মো. রাশেদ, ফখরুল আলম, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, শেখ আব্দুর রশিদ, উপজেলা চেয়ারম্যান খান আলী মুনসুর, যশোরের ইউপি চেয়ারম্যান আবু বক্কর আবু, আজিজুল হাসান দুলু, ইকবাল হোসেন খোকন, একরামুল হক হেলাল, সরদার রবিউল ইসলাম রবি, কাউন্সিলর প্রার্থী আশফাকুর রহমান কাকন, আকরাম হোসেন খোকন, মনিরুজ্জামান মনি, হাফিজুর রহমান হাফিজ, নাহিদ আল মামুন, আবিদ হোসেন, নজরুল ইসলাম গাজী, মো. ইমরান হোসেন, শাকিল আহমেদ, শেখ বায়েজিদ হাসান, সিদ্দিকুর রহমান, বি এম হুমায়ুন আজিজ বাবলু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে তিনি মানিক মিয়া শপিং কমপ্লেক্স, জব্বার মার্কেট, হকার্স মার্কেট, মশিউর রহমান মার্কেট এলাকায় ব্যাপক ও সর্বাত্মক গণসংযোগ করেন।
এদিকে, ১৯ নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ শেষে ২৫নং ওয়ার্ডে যাওয়ার সময় জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ইছাহাক সরকারের নেতৃত্বে ছাত্রদল নেতাকর্মীদের একটি বিশাল টিম মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জুর গণসংযোগে যোগ দেয়। কর্মসূচিতে ২৫নং ওয়ার্ড বিএনপি সভাপতি নজরুল ইসলাম বাবু, কাউন্সিলর প্রার্থী আনিসুর রহমান আরজু ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী শামসুন নাহার লিপি উপস্থিত ছিলেন। এরপর নজরুল ইসলাম মঞ্জু ২২ নং ওয়ার্ডের নতুন বাজার এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ করেন।
এছাড়া নগরীর প্লটিনাম জুবিলী জুট মিলস গেট থেকে শুরু করে নতুন রাস্তার মোড় পর্যন্ত গণসংযোগ করেন শ্রমিক দল নেতারা। গণসংযোগকালে আরো উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি মতিউর রহমান ফরাজি, মিজানুর রহমান, উজ্জল কুমার সাহা, মো. মজিবর রহমান, খান ইসমাইল হোসেন, সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, আযম সরোয়ার, জি এম মাহবুব, আবু হানিফ, আরব আলী, এনায়েত হোসেন, আবুল কালাম জিয়া, মোহাম্মদ হোসেন প্রমুখ।
বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আওয়াল মিন্টু বলেছেন, অনির্বাচিত অবৈধ সরকার মানুষের ভোটের অধিকার হরন করবে এটা স্বাভাবিক। এর বিরুদ্ধেই আমরা জনগনকে স্বোচ্চার করছি। যতই অত্যাচার-নির্যাতন হোক আপনারা আপনাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের চেষ্টা করুন। আপনারা ভোট কেন্দ্রে যান, ভোট দেন। যদি ভোট দিতে না দেয় বা ভোট দেয়ার পর ভন্ডুলের চেষ্টা করে তাহলে এটা হচ্ছে আমাদের আন্দোলনের অংশ।
এদিকে বিএনপির অপর ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উলাহ বুলু বলেন, খুলনায় বিএনপির অবস্থান গত নির্বাচনের চাইতে আরো ভালো। কারণ হচ্ছে আমাদের নেত্রীর প্রতি এদেশের ১৬ কোটি মানুষের যে সহানুভূতি। একটি মিথ্যা-ষড়ন্ত্রমূলক মামলায় কারা অন্তরীণ রয়েছেন। চার জন মন্ত্রী ১৩ বছর করে সাজা পেয়েও ১০ বছর ধরে তারা মন্ত্রীত্ব করছে। আর একটি মিথ্যা মামলায় বেগম খালেদা জিয়া তিন মাসের অধিক জেলখানায়। এদেশের সমস্ত নারী সমাজ, আমরা যত মা-বোনের সাথে কথা বলেছি, তাদের অনুভূতি ও চোখের পানি দেখেছি। তাদের অভিব্যক্তি তার এই খুলনায় ভোটের মাধ্যমে তার জবাব দিতে চায়।
তিনি বলেন, খুলনায় আ’লীগের বাড়াবাড়ি, প্রশাসনের হস্তক্ষেপ, বিএনপির নেতাকর্মীদের গণহারে গ্রেপ্তার, বাড়ি বাড়ি হামলা হচ্ছে আতঙ্কের বিষয়। তার পরেও সাধারণ ভোটাররা এটাকে উপেক্ষা করে ভোট কেন্দ্রে যাবেন এবং ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থীকে বিজয়ী করবেন।
নগরীর ১৫ নং ওয়ার্ডের বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু’র পক্ষে গণসংযোগকালে এসব কথা বলেন। খালিশপুর ১ নং নেভী গেট, আলমনগর, বিআইডিসি রোড, গাবতলা মোড়সহ বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ ও পথসভা করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা স ম আব্দুর রহমান, এসএম আরিফুর রহমান মিঠু, হাবিবুর রহমান বিশ্বাস, কাউন্সিলর প্রার্থী আব্দুর রহমান ডিনো, গাজী সোয়েবউদ্দিন মিন্টু, মো. শাহিনউদ্দিন, বাবুল মুন্সি প্রমুখ।
বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহাজহান, সাংগঠনিক সম্পাদক শ্যামা ওবায়েদ ও কেন্দ্রীয় সহ প্রচার সম্পাদক কৃষিবীদ শামীমুর রহমান শামীম খালিশপুরের প্লাটিনাম গেট থেকে শুরু করে বিআইডসি রোডের একাংশে ব্যাপক গণসংযোগ করেন। এ সময় তাদের সাথে আশারফ হোসেন, সরদার ইউনুস আলী, আবুল কালাম জিয়া, কাজী শফিকুল ইসলাম শফি, বেলাল হোসেন, ইদ্রিস আলী, রবিউল ইসলাম রুবেল, মিন্টু কাজী, বাচ্চু হোসেন প্রমুখ।
বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মশিউর রহমান, কেন্দ্রীয় নেতা মেহেদী রুমি খালিশপুরের কাশিপুর, মেঘনা গেট, রাজধানী মোড় ও বিআইডিসি রোডের একাংশে ব্যাপক গণসংযোগ করেন। এ সময় তাদের সাথে লিটন খান, শেখ সাদী, বাদল, মিজানুর রহমান মিজু, হাফিজুর রহমান তুহিন, জাহিদুল ইসলাম, কাবির হোসেন, বাপ্পি, নাজিম সরদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
বিএনপি চেয়ারপাসনের উপদেষ্টা জয়নাল আবেদনি ফারুক ২৩ নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ ও পথ সভা করেন। পিটিআই মোড়ে অনুষ্ঠিত হয় পথ সভা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নাসিরউদ্দিন খান, শাহাবুদ্দিন মন্টু, জামালউদ্দিন মোড়ল, জাহাঙ্গীর হোসেন, আকবর হোসেন, সৈয়দ বোরহান, শফিকুল ইসলাম শাহিন উপস্থিত ছিলেন।
জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ইছাহাক সরকার নগরীর ১৯ ও ২৫ নং ওয়ার্ড এলাকায় গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণ করেছেন।
বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু মাগরিবের পর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ২২ নং ওয়ার্ডের নতুন বাজার ওয়াপদা, গগন বাবু রোড, ১নং কাস্টম ঘাট ও ২ নং কাস্টম ঘাট এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ করেন। এ সময় তার সাথে বিজেপি সভাপতি সভাপতি এডভোকেট লতিফুর রহমান লাবু, জেপি (জাফর) সভাপতি মোস্তফা কামাল, বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সিরাজউদ্দিন সেন্টু, সিনিয়র আইনজীবী এডভোকেট বজলুর রহমান, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, ছাত্রদলের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা রুহুল আজিম রুমী, কাউন্সিলর প্রার্থী মাহবুব কায়সার, তরিকুল্লাহ খান, আফজাল হোসেন পিয়াস, জাহিদ কামাল টিটু, সিরাজুল ইসলাম লিটন, খান মইনুল হাসান মিঠু, সাইমুন ইসলাম রাজ্জাক, নুরুল আলম দীপু, শামসুল আলম বাদল, ফজলুর রহমান, মুজিবর রহমান, জহিরুল ইসলাম জুয়েল, শহিদুল ইসলাম, কামাল হোসেন প্রমুখ।
মহানগর মৎস্যজীবী দলের নেতাকর্মীরা ৩০ নং ওয়ার্ডের টুটপাড়া কবরখানা, জোড়াকল বাজার, টুটপাড়া মেইন রোড ও দারোগাপাড়া এলাকায় গণসংযোগ করেছে। পরিচালনা করেন সাইমুন ইসলাম রাজ্জাক, শাহজান শেখ, নুরুল ইসলাম মামুন, আসাদুর রহমান সানা, আব্দুল গফুর সরদার, শহিদুল ইসলাম বাবু, মো. ইকবাল হোসেন, মোঃ শাহ, মো. জালাল শেখ, রবিউল ইসলাম প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ