ঢাকা, রোববার 13 May 2018, ৩০ বৈশাখ ১৪২৫, ২৬ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চাপের মুখে দল ও জোটের শীর্ষ পদ থেকে নাজিব রাজাকের পদত্যাগ

১২ মে, ইন্টারনেট : চাপের মুখে নিজ দল ইউনাইটেড মালয় ন্যাশনাল অর্গানাইজেশনের (উমনো) প্রেসিডেন্ট ও বারিসন ন্যাসিওনাল জোটের চেয়ারম্যানের পদ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিলেন সদ্য বিদায় নেওয়া মালয়েশীয় প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক। গতকাল শনিবার রাজধানী কুয়ালালামপুরের মেনারা দাতো এলাকায় দলের প্রধান কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তিনি এই ঘোষণা দেন। নির্বাচনে পরাজয়ের পর থেকেই তার পদত্যাগের দাবিতে দল ও জোট নেতাদের চাপ জোরালো হতে শুরু করে।

গত বুধবারের নির্বাচনে জোটের পরাজয়ের পর এর দায় নিয়ে এক ফেসবুক পোস্টে তিনি জানিয়েছিলেন, এক সপ্তাহের ছুটি কাটাতে গিয়ে দল ও জোটের শীর্ষ পদে থাকবেন কিনা তা বিবেচনা করে দেখবেন। তবে মালয়েশিয়ার অভিবাসন দফতর তার ও তার স্ত্রীর ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারির পর সেই পরিকল্পনা বাতিল করেন তিনি। 

নির্বাচনে পরাজয়ের পরই তার ওপর পদত্যাগের চাপ জোরালো করতে থাকেন দলের নেতারা। উমনোর কুয়ালা পিলাহ বিভাগের প্রধান ইসমাইল লাসিম বলেন, সদ্য সমাপ্ত ১৪তম সাধারণ নির্বাচনে আমাদের দলের নেতৃত্বাধীন বারিসন ন্যাসিওনাল (বিএন) জোটের পরাজয়ের পরই তার পদত্যাগ করা উচিত। তিনি বলেন, মানুষ বিএন জোটকে ভোট দেয়নি কারণ তারা দলটিকে ঘৃণা করে। এছাড়া ব্যক্তির কারণেও মানুষ এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারা নেতৃত্ব নিয়ে খুশি ছিল না। উমনো জেমপোল বিভাগের প্রধান মো. সেলিম মো. শরীফ বলেন, নির্বাচনের আগেই নাজিবের পদত্যাগ করা উচিত ছিল। উমনোর জেলেবু বিভাগীয় চেয়ারম্যান জালালুদ্দিন ইলিয়াস নির্বাচনে পরাজয়ের পর নাজিব ছাড়াও বিএন স্টেট প্রধান মোহাম্মদ হাসানের পদত্যাগ দাবি করেন।

শনিবারের সংবাদ সম্মেলনে নাজিব জানান, এখন থেকে উমনো দলের প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করবেন ডক্টর আহমাদ জাহিদ হামিদি।  হিসামুদ্দিন হোসেন থাকবেন ডেপুটি প্রেসিডেন্টের দায়িত্বে। তিনি বলেন, (উমনো) প্রেসিডেন্ট ও বারিসন ন্যাসিওনাল জোটের চেয়ারম্যান হিসেবে আমি পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। নির্বাচনের ফলাফল প্রসঙ্গ তিনি বলেন, যা ঘটেছে তা নিয়ে আমরা মর্মাহত তবে আমাদের দল গণতান্ত্রিক মূলনীতির জায়গা থেকে ফলাফল মেনে নিয়েছি।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ